×

এই জনপদ

পত্রিকায় খবর প্রকাশ : মঠবাড়িয়ায় বিতর্কিত সেই শিক্ষককে স্ট্যান্ড রিলিজ

Icon

প্রকাশ: ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি : গত ১৯ এপ্রিল দৈনিক ভোরের কাগজ পত্রিকায় ‘মঠবাড়িয়ায় দুই শিক্ষকের অপসারণের দাবি’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর বিতর্কিত সেই শিক্ষক মো. মাইনুল ইসলামকে স্ট্যান্ড রিলিজ করা হয়েছে। তবে সহকারী শিক্ষিকা তামান্না নুসরাত স্বপদে বহাল রয়েছেন। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মু. সাঈদুর রহমান স্বপন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মাইনুল ইসলামকে ৫২নং মধ্য মিঠাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বদলি করা হয়েছে। এ ছাড়া শিক্ষিকা তামান্না নুসরাতের বিষয়টিও ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। উল্লেখ্য, মাইনুল ইসলাম মঠবাড়িয়ার ঐতিহ্যবাহী ৫৬নং মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছিলেন এবং তামান্না নুসরাত একই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা। দীর্ঘদিন পরকীয়ার পর সম্প্রতি তারা বিয়ে করেছেন। শিক্ষক মো. মাইনুল ইসলামকে বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকাণ্ডের হোতা আখ্যা দিয়ে এবং এ দুই শিক্ষকের পরকীয়ার পরে বিয়ের ঘটনার তীব্র সমালোচনা করে তাদের অপসারণের দাবিতে গত ১৮ এপ্রিল দুপুরে মঠবাড়িয়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনের সড়কে মানববন্ধন হয়। অভিভাবক ও এলাকাবাসীর আয়োজনে মানববন্ধনে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার দেড় শতাধিক নারী-পুরুষ অংশগ্রহণ করে। এ সময় অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কলামিস্ট নূর হোসাইন মোল্লার সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন অভিভাবক প্রভাষক মো. ফারুক হোসেন, শিক্ষক নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা মোস্তফা শাহ আলম দুলাল, অভিভাবক সালমা বেগম, সাংবাদিক মো. শাহজাহান মিয়া প্রমুখ। এদিকে সহকারী শিক্ষিকা তামান্না নুসরাত স্বপদে বহাল থাকায় ক্ষোভে ফেটে যাচ্ছেন অভিভাবকরা। এ শিক্ষিকার মুঠোফান বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মো. মাইনুল ইসলাম জানান, সহকারী শিক্ষিকা তামান্না নুসরাতকে বৈধ ও আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ে করা হয়েছে। কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত আমাকে মেনে নিতেই হবে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App