×

সম্পাদকীয় ও মুক্তচিন্তা

নগরবাসী জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি পাবে কীভাবে

Icon

প্রকাশ: ২৯ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

নগরবাসী জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি পাবে কীভাবে

ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে টানা বৃষ্টিতে রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এতে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে নগরবাসীকে। সঠিক পরিকল্পনার অভাব এবং দুর্বল ব্যবস্থাপনার কারণে রাজধানীবাসী জলাবদ্ধতার ভোগান্তি থেকে মুক্তি পাচ্ছে না। জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি দিতে ঢাকা ওয়াসা, সিটি করপোরেশনসহ বিভিন্ন সংস্থা গত ১২ বছরে ৩ হাজার কোটি টাকা ব্যয় করলেও কার্যকর কোনো সমাধান হয়নি। কারণ হিসেবে নদী, খাল-বিলের মতো প্রাকৃতিক জলাশয় দখল ও ভরাটকে দায়ী করছেন নগর বিশেষজ্ঞরা। পাশাপাশি তারা দায়ী করছেন অপরিকল্পিত স্থাপনা নির্মাণকেও। গণমাধ্যমের খবরে জানা যায়- বাড্ডা, গ্রিন রোড, নিউমার্কেট, ধানমন্ডি ২৭, মানিক মিয়া এভিনিউ, মিরপুরের কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, মিরপুর-১০, ১৩ ও ১৪ নম্বর, মালিবাগ, শান্তিনগর, সায়েদাবাদ, শনির আখড়া, পুরান ঢাকা, বংশাল, নাজিমুদ্দিন রোড, হাতিরঝিলের কিছু অংশ, আগারগাঁও থেকে জাহাঙ্গীর গেট পর্যন্ত বাইপাস, খামারবাড়ী থেকে ফার্মগেট, তেজগাঁও ট্রাকস্ট্যান্ড-সংলগ্ন এলাকা, মোহাম্মদপুরের কিছু অংশ, মেরুল বাড্ডা, ডিআইটি প্রজেক্ট এলাকায়, ইসিবি ও গুলশান এলাকায় জলাবদ্ধতা ছিল বেশি। অলিগলির অবস্থা ছিল নাজুক। ঢাকা শহর ৮০-৯০ ভাগ কংক্রিটে আচ্ছাদিত। যেখানে একটি শহরে ৩০-৩৫ ভাগ সবুজ এবং জলাশয় থাকার কথা, সেটা তো নেই। এমন অবস্থায় নগর তো ডুববে, এটাই স্বাভাবিক। টানা বর্ষণে রাজধানী ও আশপাশের নিচু এলাকা তলিয়ে লাখ লাখ পানিবন্দি মানুষের জীবনে নেমে আসে চরম দুর্দশা। ঢাকার মতো রাজধানী শহরে এ ধরনের জলাবদ্ধতা দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন ও আর্থসামাজিক ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন বলছে, চলতি বছরে বর্ষা মৌসুমের আগে জলাবদ্ধতা নিরসনে বেশকিছু কাজ হয়েছে। ঢাকা ওয়াসার কাছ থেকে দীর্ঘ ৩৪ বছর পর শাখা-প্রশাখাসহ ১১টি অচল খাল, বর্জ্যে জমাটবদ্ধ ৫টি বক্স কালভার্ট ও প্রায় ২০০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে নর্দমার মালিকানা নিয়েছে সংস্থাটি। দায়িত্বভার গ্রহণের পর এসব খাল, বক্স-কালভার্ট ও নর্দমা থেকে বর্জ্য অপসারণ, সীমানা নির্ধারণ ও দখলমুক্ত কার্যক্রম শুরু করে। এছাড়া জলাবদ্ধতা নিরসনে নিজস্ব অর্থায়নে ২২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে গত ৩ বছরে ১৩৬টি স্থানে অবকাঠামো নির্মাণ ও উন্নয়ন করেছে ডিএসসিসি। প্রতিটি অর্থবছরেই ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন জলাবদ্ধতা নিরসনে বিপুল পরিমাণ অর্থ বরাদ্দ রাখে। সে বরাদ্দমাফিক কাজও হয়, কিন্তু ভোগান্তি শেষ হয় না। তাই প্রশ্ন উঠেছে জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্পের হাজার হাজার কোটি টাকার আদৌ সদ্ব্যবহার হচ্ছে কিনা। নগরীর জলাবদ্ধতা নিয়ে গণমাধ্যমে লেখালেখি কম হয়নি। সরকারের নানামুখী উদ্যোগ, বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের পরামর্শ কোনোটাই যেন কাজে আসছে না। আমরা মনে করি, জলাবদ্ধতা নিরসনে রাজধানীর খালগুলো ভূমিকা রাখতে সক্ষম। নগরীর খালগুলো উদ্ধারে কর্তৃপক্ষকে আরো সোচ্চার হতে হবে। শুধু প্রকল্পের মাধ্যমে বিপুল অর্থ ব্যয় করলে জলাবদ্ধতার সমাধান হবে না। বৃষ্টির পানি নেমে যাওয়ার পথকে সব সময় উন্মুক্ত রাখতে হবে। সর্বোপরি জলাবদ্ধতার কারণ চিহ্নিত করে তা বাস্তবায়নে কার্যকর উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে কিনা, সেদিকে কঠোর দৃষ্টি দিতে হবে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App