×

সম্পাদকীয় ও মুক্তচিন্তা

রনো ভাই চলেই গেলেন

Icon

প্রকাশ: ১৩ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

রনো ভাই চলেই গেলেন
রনো ভাই (হায়দার আকবর খান রনো) চলেই গেলেন, শেষটায় মৃত্যু আর তাকে ছাড় দেয়নি। ব্যক্তি মানুষের শরীরী জীবন নিয়ে আরো দীর্ঘদিন বাঁচতে চেয়েছিলেন তিনি। অক্সিজেন মাক্স পরে দুর্বিষহ সময়ের সঙ্গে লড়াই করে গেছেন একাকী। ব্যক্তির এই যন্ত্রণার ভাগবাটোয়ারা হয় না। বাঁচার জন্য ব্যক্তি মানুষের এই লড়াই শ্রেণিযুদ্ধের চেয়েও ভয়ংকর। কেননা এই যুদ্ধে শ্রেণির কোনো কমরেড থাকেন না, একেবারে একাকী যুদ্ধ। একদিন নয়, দুদিন নয়, মাস এবং বছরের পর বছর। প্রশ্ন তা নয়, আসল প্রশ্নটা হচ্ছে বাংলাদেশের বুদ্ধিজীবী মহলে রনো ভাইয়ের রাজনৈতিক জীবনের বাইরে তার শিল্পসত্তা নিয়ে। রনো ভাই একজন বিরল প্রজাতির রাজনৈতিক সাহিত্যের মহান কারিগর। মার্কসবাদী রাজনীতির ওপর অসংখ্য বই লিখেছেন তিনি। এটাও আশ্চর্য যে, বাঙালি বুদ্ধিজীবী সমাজ হায়দার আকবর খান রনোর মেধা এবং শ্রমকে অজ্ঞাত কোনো কারণে উচ্চারণ করতে দ্বিধা করে গেছেন। তার বই নিয়ে পাঠকসমাজকে জানান দিতে খুব সামান্যই লেখা হয়েছে। হয়তো তেমন কিছু লেখা হয়নি। এমনটা কেন হলো? বুদ্ধিজীবীবিষয়ক ঈর্ষা? ভুল হলে এই বাক্য উচ্চারণের জন্য আমি ক্ষমাপ্রার্থী। রনো ভাইয়ের পাঠকসমাজ যে ‘জনপ্রিয়’ বইয়ের পঙ্গপাল পাঠকদের মতো অগুনতি তা বলা যাবে না। একটি বইয়ের প্রচারের দায় কেবল প্রকাশকের নয়, সতীর্থ লেখকদেরও। সেই দায় কেউ গ্রহণ করেননি। রনো ভাই একাত্তরের যুদ্ধে (অবশ্যই শ্রেণি যুদ্ধে) আমার জন্ম মাটি পলাশ, শিবপুর, নরসিংদী, মনোহরদী অঞ্চলে ছিলেন মান্নান ভূঁইয়ার সঙ্গে। সঙ্গী ছিলেন অনুজ হায়দার আনোয়ার খান জুনো। এই লেখা (ক্ষুদ্র) রনো ভাইয়ের রাজনৈতিক জীবনের বিশাল পটভূমিতে ঢুকছে না। আমার উদ্দেশ্য তার বিশাল সংগ্রামী জীবনকে ব্যাখ্যা করা নয়। অনুসন্ধানটা হচ্ছে তার বিপ্লবী সাহিত্য সৃষ্টির বিষয়ে সামান্য খোঁজখবর দেয়া। একজন বিপ্লবী যে অস্ত্র নিয়েই থাকবে এমন তো নয়, হাতে তার কলমও থাকে। আমাদের রনো ভাই লেনিন-স্ট্যালিন হতে চাননি। কিন্তু বাংলাদেশের রাজনৈতিক ও সাহিত্যে তার অবদান অসামান্য। রনো ভাই মন্ত্রী হননি, সংসদ হননি, হয়েছেন বাম রাজনৈতিক ধারার বিশ্লেষক। সংবাদপত্রে তার লেখা কলামগুলো তারই প্রমাণ। আজীবন যিনি রাজনৈতিক কর্মী এবং সংগঠক, অবশ্যই নেতা, তিনিই আবার লেখকও বটে। বাংলাদেশের কৃষক-শ্রমিকের বিপ্লবী সত্তাকে চিনতেন রনো ভাই। মার্কসবাদী দৃষ্টিতে তা ব্যাখ্যাও করেছেন। কেবল তাই নয়, বিশ্বসাহিত্য সম্পর্কে তার জ্ঞান-প্রজ্ঞা ছিল অতুলনীয়। সারা বিশ্বের বিপ্লবী সাহিত্যের অনুরাগী পাঠক ছিলেন তিনি। আমার বিশ্বাস লাতিন আমেরিকান বিপ্লবী সাহিত্য সম্পর্কে তার যতটা জ্ঞান ছিল, অনেক খ্যাতিমান বাঙালি লেখক তার ধারে-কাছেও নেই। এই মহান মানুষটি চলে গেলেন অনেকটা নিঃসঙ্গ অবস্থায়ই। একদিন আমরা তাকে ভুলে যাব। বাঙালির বিস্তৃতির ভেতর তলিয়ে যাবেন তিনি। তার যেসব মূল্যবান বই আজ বাজারে ঘুরে বেড়ায়, হয়তো একদিন সেসবের সন্ধানে ন্যাশনাল আর্কাইভে জীর্ণ পুস্তকের অন্ধকারে হাতড়েও নিরাশ হয়ে বিলুপ্ত প্রজাতির স্মৃতি নিয়ে ঘরে ফিরব। এটাই তো বাঙালির ইতিহাস, এটাই জাতীয় নিয়তি। রনো ভাই চলে গেলেন সত্য, তবে তিনি মেহনতি মানুষের মুক্তি সংগ্রামে আলোকবর্তিকা হয়ে থাকবেন অনন্তকাল। লাল সালাম কমরেড হায়দার আকবর খান রনো। হরপিদ দত্ত : কথাসাহিত্যিক, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App