×

অর্থ শিল্প বাণিজ্য

ক্যাপিটাল গেইন ট্যাক্স বাতিলসহ ডিবিএর ছয় দাবি

বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলন

Icon

প্রকাশ: ১২ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলন

কাগজ প্রতিবেদক : বছরের পর বছর পুঁজিবাজারে মন্দাভাব বিরাজ করছে জানিয়ে ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ডিবিএ) সভাপতি সাইফুল ইসলাম বলেছেন, চার বছর ধরে সবার অবস্থা খারাপ। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা রুগ্ণ হয়ে পড়েছে।

এ পরিস্থিতিতে ২০২৪-২৫ অর্থবছরে পুঁজিবাজারে ক্যাপিটাল গেইন ট্যাক্স আরোপ না করার দাবি জানিয়েছে ডিবিএ। সেই সঙ্গে আরো ছয়টি দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি। ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে গতকাল আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি জানানো হয়।

এ সময় ডিবিএ সভাপতি বলেন, চার বছর ধরে পুঁজিবাজারের অবস্থা খারাপ। আমরা চার বছর ধরে এ অবস্থা থেকে উত্তরণের উপায় পাচ্ছি না। এ পরিস্থিতিতে বাজারে সাপোর্ট দেয়ার কথা প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের। এ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা রুগ্ণ হয়ে পড়েছে।

তিনি বলেন, ২০১০ সাল থেকেই আমরা সমস্যার মধ্য দিয়ে যাচ্ছি। ১৪ বছরে বাজার স্থিতিশীল করতে পারিনি। একটি প্রজন্ম বাজার বিমুখ হয়ে পড়ছে। যে হারে বাজারে পতন হচ্ছে এর কোনো যৌক্তিক কারণ নেই। বাজার অস্থিতিশীল হয়ে পড়ছে। বিনিয়োগকারীদের ধরে রাখা কঠিন হয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে মূলধন আয়ের ৫০ লাখ টাকার অধিক আয়ের ওপর স্তরভিত্তিক করারোপ করা হয়েছে। অন্যদিকে কোনো সিকিউরিটিজ বিনিয়োগের সময়কাল ৫ বছর অতিক্রম করলে উক্ত বিনিয়োগ থেকে প্রাপ্ত আয়ের ওপর ১৫ শতাংশ হারে কর প্রদানের প্রস্তাব করা হয়। গত কয়েক বছর মন্দাবাজার পরিস্থিতি এবং আর্থিক সংকটে থাকা বিনিয়োগকারীর বিনিয়োগ পরিস্থিতি বিবেচনা করে মূলধন আয়ের ওপর থেকে করারোপের প্রস্তাব রহিতকরণের জন্য আমরা জোর সুপারিশ করছি।

পুঁজিবাজারের মূল্য সমস্যা কি? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে ডিবিএ সভাপতি বলেন, পুঁজিবাজারের মূল সমস্যা ভালো পণ্যের অভাব। ১৫ বছর ধরে ১-২টা ছাড়া আমাদের বাজারে ভালো কোনো কোম্পানি আসেনি।

আরেক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশনের পর গত ১০ বছরে স্টক এক্সচেঞ্জের কোনো উন্নতি হয়েছে বলে জানি না। যদি না হয় ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন আইন রিভিউ করা উচিত। আমরা মনে করি ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন আইন রিভিউ করার সময় এসেছে।

ডিবিএর আরো দাবিগুলো হচ্ছে- ব্রোকারেজ হাউসের রাজস্ব করহার ০.০৫ থেকে ০.০২৫ শতাংশ করা। করপোরেট আয়করকে ব্রোকারেজের জন্য চূড়ান্ত কর হিসেবে বিবেচনা করা। ব্যক্তিশ্রেণির সর্বোচ্চ করহার ৩০ শতাংশের ঊর্ধ্বে অতালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানের করপোরেট করহার নির্ধারণ করা। নিয়মিত এবং সম্পূর্ণ আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশের শর্তে তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানের করহার হ্রাস করা। নতুন বিও আইডিগুলোকে ৩ বছরের জন্য করমুক্ত রেখে পরিচালনা করার অনুমতি দেয়া। সব নতুন বিও অ্যাকাউন্টগুলোকে সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকা বিনিয়োগের সীমা সাপেক্ষে ৩ বছর পর্যন্ত সময়কালের জন্য করবহির্ভূত রেখে পরিচালনা করার অনুমতি দেয়া। শিক্ষার্থী, সুবিধাবঞ্চিত ব্যক্তি, প্রতিবন্ধী এবং প্রবীণ নাগরিকদের দ্বারা পরিচালিত বিও হিসাবধারীদের লাভের জন্য শূন্য হারে কর উপভোগ করার অনুমতি দেয়া। মার্জিন লসকে করছাড় যোগ্য হিসেবে অনুমতি দেয়া।

ডিবিএ সভাপতি আরো বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে মূলধন লাভের ওপর করারোপের প্রস্তাব করা হয়েছে। অথচ মূলধনি লোকসানের ওপর ৬ বছর পর্যন্ত মূলধনি ক্ষতির জের বহন কিংবা সমন্বয় করার বিধান বিদ্যমান রয়েছে। এরূপ ক্ষেত্রে আমরা বিনিয়োগকারীর মূলধন ক্ষতির বিষয়ে থাকা বিদ্যমান আইনের সুস্পষ্ট ও কার্যকর ব্যাখ্যা প্রদানসহ এটিকে ৭ বছর পর্যন্ত প্রদেয় আয়করের বিপরীতে বহন বা সমন্বয় করার সুপারিশ করছি। তিনি বলেন, গত কয়েক বছর বাজারে মন্দা বিরাজ করায় অধিকাংশ বিনিয়োগকারী লোকসানের কবলে পড়ে চরম আর্থিক ক্ষতির মুখে রয়েছে। প্রস্তাবিত বাজেটে ৫০ লাখের অধিক মূলধন লাভের ওপর করারোপের সঙ্গে বিদ্যমান মূলধনি লোকসানের জের বহন কিংবা সমন্বয় করার অনুমতি দিলে বিনিয়োগকারীদের পুঁজি ধরে রাখতে এবং বাজারের ক্রমবর্ধমান উন্নয়নে বাজারসহ সংশ্লিষ্ট সব অংশীজন লাভবান হবে। ফলে বিনিয়োগকারী আর্থিকভাবে শক্তিশালী হয়ে বাজারকে সমৃদ্ধশালী করতে সক্ষম হবে এবং এর ফলে সরকারের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পাবে।

ডিবিএ সভাপতি বলেন, গত ১ দশকে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন এন্টারপ্রাইজ পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির ক্ষেত্রে খুব বেশি অগ্রগতি হয়নি। আমরা পুঁজিবাজারে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সংস্থাগুলোকে তালিকাভুক্ত করার জন্য একটি রোডম্যাপ প্রণয়ন করার অনুরোধ করছি। এ ব্যাপারে একটি পরিষ্কার রোডম্যাপ দেয়া হলে বাজার মানসম্পন্ন রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন এন্টারপ্রাইজে প্রতিযোগিতামূলক ভালো ব্যবসা তৈরিতে উৎসাহিত হবে।

তিনি বলেন, এরই মধ্যে প্রধানমন্ত্রী পুঁজিবাজারে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন এন্টারপ্রাইজ তালিকাভুক্তির নির্দেশনা প্রদান করেছেন। রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন এন্টারপাইজ তালিকাভুক্তির ব্যাপারে আমরা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা আশু বাস্তবায়নে সরকার ও বাজার সংশ্লিষ্টদের কার্যকর ভূমিকা প্রত্যাশা করছি। আমরা বিশ্বাস করি, পুঁজিবাজারে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন এন্টারপ্রাইজ তালিকাভুক্তির ফলে বাজারে তারল্য প্রবাহ বৃদ্ধি পেয়ে ব্যবসা সম্প্রসারণের মাধ্যমে বাজারের প্রসার হবে এবং সরকারের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পাবে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App