×

অর্থ শিল্প বাণিজ্য

দেশের উন্নয়নে শিল্পায়নের বিকল্প নেই

Icon

প্রকাশ: ০৯ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

দেশের উন্নয়নে শিল্পায়নের বিকল্প নেই

কাগজ প্রতিবেদক : শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, অর্থনৈতিক উন্নয়নে শিল্পায়নের বিকল্প নেই। তবে শিল্পায়নের পূর্বশর্ত হচ্ছে উৎপাদনশীলতা। বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলোতে শিল্প ও সেবা খাতে উৎপাদনশীলতা বাড়িয়ে জীবন মানের উন্নয়ন ঘটাতে সক্ষম হয়েছে। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই এনপিও বাংলাদেশের জাতীয় অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন খাত, উপখাত এবং শিল্প ও সেবা প্রতিষ্ঠান খাতে উৎপাদনশীলতা বাড়াতে প্রশিক্ষণ, সেমিনার, কর্মশালা, পরামর্শ সেবা ও কারিগরি সহায়তা দিচ্ছে।

গতকাল রাজধানীর ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে ‘ন্যাশনাল প্রোডাকটিভিটি অ্যান্ড কোয়ালিটি এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড-২০২২’ এবং ‘ইনস্টিটিউশনাল এপ্রিসিয়েশন অ্যাওয়ার্ড-২০২২’ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল প্রোডাকটিভিটি অগনাইজেশন (এনপিও) এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

জাতীয় অর্থনীতিতে শিল্প খাতের অবদানের স্বীকৃতি প্রদান, প্রণোদনা সৃষ্টি এবং সৃজনশীলতাকে উৎসাহিত করা, বেসরকারি খাতে শিল্প স্থাপন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য ৬টি ক্যাটাগরির খাত ও উপখাত ভিত্তিক ২১টি শিল্প ও সেবা প্রতিষ্ঠানকে এবার পুরস্কার দেয়া হয়েছে। শিল্প-প্রতিষ্ঠানের মালিক বা প্রতিনিধিদের হাতে ক্রেস্ট ও সম্মাননা সনদ তুলে দেন প্রধান অতিথি। এনপিওর মহাপরিচালক মুহম্মদ মেসবাহুল আলমের সভাপতিত্বে পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন শিল্প মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব জাকিয়া সুলতানা, এফবিসিসিআইর সভাপতি মাহবুবুল আলম। অনুষ্ঠানে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ সরকারের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ বলে মন্তব্য করে শিল্পমন্ত্রী বলেন, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় নতুন বাজেটে প্রয়োজনীয় কর্মপন্থা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মাধ্যমে মূল্যেস্ফীতির লাগাম টেনে ধরা সম্ভব হবে। এ বছরের শেষে মুদ্রাবাজারে স্থিতিশীলতা ফিরে আসতে বলে প্রত্যাশা তার।

নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন আরো বলেন, শিল্প খাতকে বিশ্ব পর্যায়ে প্রতিযোগিতা সক্ষম করে তোলার লক্ষ্যে প্রযুক্তিভিত্তিক, উচ্চ অগ্রাধিকার শিল্প সৃষ্টি, পরিবেশবান্ধব শিল্পায়ন প্রক্রিয়া, সুসংহত ব্যক্তি খাত গড়ে তোলাসহ পণ্যের গুণগতমান উন্নয়ন, এসএমই খাতের উন্নয়ন ও বাণিজ্য স¤প্রসারণের জন্য মন্ত্রণালয় সুনির্দিষ্ট লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করেছে।

অনুষ্ঠানে সিনিয়র সচিব জাকিয়া সুলতানা বলেন, শিল্প মন্ত্রণালয়ের দপ্তর ন্যাশনাল প্রোডাকটিভিটি অরগনাইজেশন (এনপিও) এশিয়ান প্রোডাক্টিভিটি অরগনাইজেশন (এপিও), টোকিও, জাপানের সহযোগিতায় ন্যাশনাল প্রোডাকটিভিটি মাস্টার প্ল্যান ফর বাংলাদেশ ২০২১-২০৩০ প্রণয়ন করেছে, যা বাস্তবায়িত হলে উৎপাদনশীলতার গড় প্রবৃদ্ধি ৩ দশমিক ৮ শতাংশ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ৫ দশমিক ৬ শতাংশে উন্নীত করতে হবে। উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশের জন্য এ লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব।

এবার ‘ন্যাশনাল প্রোডাকটিভিটি অ্যান্ড কোয়ালিটি এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড-২০২২’ পেয়েছে ছয় ক্যাটাগরির খাত ও উপখাত-ভিত্তিক ২১টি শিল্প ও সেবা প্রতিষ্ঠান। এরই অংশ হিসেবে বৃহৎ শিল্প ক্যাটাগরিতে তৈরি পোশাক উপখাতে ১ম, ২য় ও ৩য় হয়েছে ইকোটেক্স লিমিটেড, ফকির ফ্যাশন লিমিটেড এবং স্কয়ার ফ্যাশন্স লিমিটেড। টেক্সটাইল উপখাতে ১ম, ২য় ও ৩য় হয়েছে গ্রিন টেক্সটাইল লিমিটেড, ফোর এ ইয়ার্ন ডায়িং লিমিটেড এবং মোজাফফর হোসেন স্পিনিং মিলস লিমিটেড। খাদ্য ও পানীয় উপখাতে ইস্পাহানি টি লিমিটেড এবং ওষুধ ও রসায়ন উপখাতে অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে নুভিস্তা ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড।

ইস্পাত, প্রকৌশল ও সেবা শিল্প উপখাতে ১ম ও ২য় হয়েছে যথাক্রমে বঙ্গ বিল্ডিং মেটেরিয়াল লিমিটেড এবং মাল্টিলাইন ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। মাঝারি শিল্প ক্যাটাগরিতে তৈরি পোশাক উপখাতে ১ম ও ২য় হয়েছে যথাক্রমে এফ জি এস ডেনিম ওয়্যার লিমিটেড এবং শান্তা এক্সপ্রেশন্স লিমিটেড, ওষুধ উপখাতে ১ম ও ২য় হয়েছে যথাক্রমে বায়োফার্মা লিমিটেড এবং গেট ওয়েল লিমিটেড। ইস্পাত ও প্রকৌশল উপখাতে অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে বঙ্গ প্লাস্টিক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড।

ক্ষুদ্র শিল্প ক্যাটাগরিতে ১ম, ২য় ও ৩য় হয়েছে শেলটেক হোল্ডিংস লিমিটেড, রংপুর ফাউন্ডি লিমিটেড এবং আদজি ট্রিমস লিমিটেড। মাইক্রো শিল্প, কুটির শিল্প ও রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প ক্যাটাগরিতে অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে মাসকো ডেইরি এন্টারপ্রাইজ, রুপকথা ফ্যাশন এবং কেরু অ্যান্ড কোম্পানি (বাংলাদেশ) লিমিটেড। অন্যদিকে ‘ইনস্টিটিউশনাল এপ্রিসিয়েশন অ্যাওয়ার্ড ২০২২’ পেয়েছে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি।

উল্লেখ্য, দেশের শিল্প ও সেবা ক্ষেত্রে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি ও উৎপাদিত পণ্যের উৎকর্ষতা সাধনের গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে প্রতি বছর ‘ন্যাশনাল প্রোডাকটিভিটি অ্যান্ড কোয়ালিটি এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড-২০২২’ এবং ‘ইনস্টিটিউশনাল এপ্রিসিয়েশন অ্যাওয়ার্ড-২০২২’ দেয়া হয়।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App