×

অর্থ শিল্প বাণিজ্য

ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক

ডাল সার ও গ্যাস কিনবে সরকার

Icon

প্রকাশ: ০৫ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : ডাল, গ্যাস ও সার কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) জন্য ৬ হাজার টন মসুর ডাল দেশীয় প্রতিষ্ঠান থেকে ক্রয় করা হবে। গ্যাস আমদানি করা হবে সিঙ্গাপুর থেকে। আর কাতার, মরক্কো ও সৌদি আরব থেকে আসবে সার।

এছাড়া রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) জন্য ১২ তলা ভবন নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। গতকাল মঙ্গলবার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এসব অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব জাহেদা পারভীন সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।

এ সময় জাহেদা পারভীন জানান, টিসিবির জন্য স্থানীয়ভাবে উন্মুক্ত দরপত্র (জাতীয়) পদ্ধতিতে বগুড়ার রায় অ্যাগ্রো ফুড প্রোডাক্টস লিমিটেডের কাছ থেকে ৬ হাজার টন মসুর ডাল (৫০ কেজির বস্তায়) ক্রয়ের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ৬০ কোটি ৪৭ লাখ ৪০ হাজার টাকা। প্রতি কেজি মসুর ডালের দাম ১০০ টাকা ৭৯ পয়সা, যা আগে ছিল ১০১ টাকা ৩৩ পয়সা। এদিকে রাষ্ট্রীয় চুক্তির মাধ্যমে কাতার, মরক্কো ও সৌদি আরব থেকে এক লাখ টন সার কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এতে মোট ব্যয় হবে ৩৯৭ কোটি ৯৫ লাখ ৬৩ হাজার টাকা। এর মধ্যে ৩০ হাজার টন বাল্ক গ্র্যানুলার (অপশনাল) ইউরিয়া সার, ৩০ হাজার টন টিএসপি সার এবং ৪০ হাজার টন ডিএপি সার রয়েছে।

সচিব জাহেদা জানান, ২০২৩-২৪ অর্থবছরের জন্য রাষ্ট্রীয় চুক্তির মাধ্যমে কাতারের কাতার কেমিক্যাল অ্যান্ড পেট্রো কেমিক্যাল মার্কেটিং অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (মুনাজাত) থেকে ১৪তম লটে ৩০ হাজার টন বাল্ক গ্র্যানুলার (অপশনাল) ইউরিয়া সার আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ১৮ কোটি ৭৮ লাখ ৪০ হাজার টাকা।

প্রতি টন সারের দাম পড়বে ২৮০ ডলার- যা আগে ছিল ২৭৯ দশমিক ৬৭ মার্কিন ডলার। রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে ওসিপি এস এ মরক্কো এবং বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনের (বিএডিসি) মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তির আওতায় ওসিপি এস এ মরক্কোর কাছ থেকে ৩০ হাজার টন টিএসপি সার আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন হয়েছে। সৌদি আরব এবং বিএডিসির মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তির আওতায় সৌদি আরবের মা’আদেনের কাছ থেকে ৪০ হাজার টন ডিএপি সার আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা কমিটি।

এ বৈঠকে ১৫৬ কোটি ৬০ লাখ ৯২ হাজার টাকা ইপিবি জন্য ১২ তলা ভবন নির্মাণের সিদ্ধান্ত অনুমোদন হয়েছে। গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে এ অর্থ ব্যয়ের অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। একই সঙ্গে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের আরো তিনটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এ তিন প্রস্তাবের বিপরীতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৭৪ কোটি ৭১ লাখ ৫৫ হাজার ৭৫ টাকা। তিনটিই বিভিন্ন কাজের অতিরিক্ত ব্যয়। সচিব জানান, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে টিইসি কর্তৃক সুপারিশকৃত রেসপনসিভ সর্বনিম্ন দরদাতা প্রতিষ্ঠান ইউসিসিএল দ্য ইউনাইটেড কন্সট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেড। প্রকল্পের আওতায় ঢাকার আগারগাঁও এলাকায় রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর জন্য তিনটি বেজমেন্টের ওপর ১২ তলা বিশিষ্ট রপ্তানি উন্নয়ন ভবন নির্মাণ করা হবে বলেও জানান তিনি।

এ সময় সিঙ্গাপুর থেকে এক কার্গো তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আমদানির সিদ্ধান্তও নিয়েছে সরকার। ৬০১ কোটি ৬৪ লাখ ৫ হাজার ১৮৭ টাকা দিয়ে সিঙ্গাপুরের গানভর প্রাইভেট লিমিটেড থেকে এ এলএনজি আমদানি করা হবে। জ¦ালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে সিঙ্গাপুর মেসার্স গানভোর সিঙ্গাপুর প্রাইভেট লিমিটেডের কাছ থেকে এক কার্গো (২০২৪ সালের ২১তম) এলএনজি কেনার প্রস্তাবে অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

এতে ব্যয় হবে ৬০১ কোটি ৬৪ লাখ ৫ হাজার ১৮৭ টাকা। প্রতি এমএমবিটিইউ এলএনজির দাম পড়বে ১২ দশমিক ৯৬৯৭ ডলার- যা আগে ছিল ১০ দশমিক ৩০০০ ডলার।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App