×

অর্থ শিল্প বাণিজ্য

ব্র্যাক ব্যাংক রিডিং ক্যাফেতে সাহিত্য নিয়ে আলোচনা

Icon

প্রকাশ: ১১ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকা ও চট্টগ্রামের ব্র্যাক ব্যাংক রিডিং ক্যাফের সাহিত্যানুরাগী ব্যাংকাররা এবার আলোচনা করেছেন প্রখ্যাত উর্দু লেখক সাদাত হাসান মান্টো এবং প্রখ্যাত বাংলাদেশি লেখক ফারুক মঈনউদ্দীনের রচিত সাহিত্যকর্ম নিয়ে। ঢাকায় সাদাত হাসান মান্টোর মর্মস্পর্শী গল্পগুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়। গত ৬ মে এ সাহিত্য আড্ডায় উপস্থিত ছিলেন উর্দু সাহিত্যের অনুবাদক হাইকেল হাশমি, যিনি অত্যন্ত সুনিপুণভাবে গল্পগুলো বাংলায় অনুবাদ করেছেন। আলোচনায় সমাজের ‘ট্যাবু’ বিষয়গুলোর প্রেক্ষাপট, বিশেষ করে ভারত বিভাজন, সাবলীলভাবে মানুষের কাছে তুলে ধরার অনন্য ক্ষমতা নিয়ে লেখক মান্টোর তুমুল প্রশংসা করা হয়। তার লেখা গল্প ‘টোবাটেক সিং’ এবং ‘ঠাণ্ডা গোশত’ নিয়ে সাহিত্যানুরাগীদের মধ্যে ব্যাপক আলোচনা হয়, যেখানে আলোচকরা গল্পবলায় তার সরলতা এবং লেখনশৈলী নিয়েও নিজেদের মুগ্ধতা প্রকাশ করেন। হাইকেল হাশমি মনে করেন, মান্টোর সাহিত্যকর্ম সময় এবং স্থানের সীমানা পেরিয়ে বিশ্বমঞ্চে তাকে একজন বিশ্বসাহিত্যিক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছে। অন্যদিকে গত ৫ মে চট্টগ্রাম রিডিং ক্যাফের সদস্যরা আলোচনা করেছেন ফারুক মঈনউদ্দীনের লেখা জনপ্রিয় সাহিত্য-সংকলন ‘সেই সব শেয়ালেরা’ নিয়ে। মানুষের ব্যক্তিজীবনের অভিজ্ঞতা এবং সামাজিক জটিলতার উজ্জ্বল চিত্রায়নের জন্য সুপরিচিত ফারুক মঈনুদ্দীনের সাহিত্যিক বর্ণনা আলোচকদের ব্যাপকভাবে বিমোহিত করেছে। ঢাকায় ব্র্যাক ব্যাংক রিডিং ক্যাফের সদস্যরা তাদের মে মাসের সাহিত্য সভায় লেখক মোজাফফর হোসেনের বাংলা ছোটগল্পের সংকলন ‘মানুষের মাংসের রেস্তোরাঁ’ নিয়ে আলোচনা করবেন। প্রতিষ্ঠানজুড়ে এ রকম সাহিত্য আড্ডার আয়োজন সহকর্মীদের মধ্যে সাহিত্য এবং বইপড়ার সংস্কৃতি গড়ে তোলা নিয়ে ব্র্যাক ব্যাংকের প্রতিশ্রæতি পুনর্ব্যক্ত করে। এ সাহিত্য সভাগুলো সহকর্মীদের মধ্যে গল্পবলার ক্ষমতা বিকাশের মাধ্যমে পারস্পরিক বোঝাপড়া এবং সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। বিজ্ঞপ্তি

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App