×

অর্থ শিল্প বাণিজ্য

ভারতীয় চালের দাম তিন মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন

Icon

প্রকাশ: ০৪ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ ডেস্ক : ভারতীয় চালের রপ্তানি মূল্য চলতি সপ্তাহে কমে তিন মাসের সর্বনিম্ন পর্যায়ে নেমেছে। পর্যাপ্ত সরবরাহ ও নিম্নমুখী চাহিদা দাম কমাতে সহায়তা করেছে। তবে ভিয়েতনাম ও থাইল্যান্ডে শস্যটির দাম প্রায় অপরিবর্তিত ছিল বলে জানিয়েছেন খাতসংশ্লিষ্টরা। ভারতীয় ৫ শতাংশ ভাঙা সিদ্ধ চাল চলতি সপ্তাহে টনপ্রতি ৫২৮-৫৩৬ ডলারে রপ্তানি হয়েছে। গত সপ্তাহে দাম ছিল ৫৩৮-৫৪৬ ডলার। গত মাসে প্রতি টনের মূল্য উঠেছিল ৫৬০ ডলারে, যা এ-যাবৎকালের মধ্যে সর্বোচ্চ। অন্ধ্র প্রদেশভিত্তিক রপ্তানিকারকরা জানান, এশিয়া ও আফ্রিকার দেশগুলোয় বর্তমানে চালের চাহিদা অনেক কম। অনেক রপ্তানিকারক রপ্তানির ক্ষেত্রে কম শুল্ক দিচ্ছেন এবং কম দামেই বিদেশি ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করছেন। ২০২৩ সালের আগস্টে সিদ্ধ চাল রপ্তানিতে ২০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করে নয়াদিল্লি। উদ্দেশ্য ছিল স্থানীয় বাজারে শস্যটির দাম নিয়ন্ত্রণে রাখা। এর প্রভাবে তখন বিশ্ববাজারে চালের দাম বেড়ে আকাশচুম্বী হয়ে উঠেছিল। এদিকে ভিয়েতনাম চলতি সপ্তাহে প্রতি টন ৫ শতাংশ ভাঙা চাল ৫৭৫-৫৮০ ডলারে রপ্তানি করছে। গত সপ্তাহেও এ দামেই রপ্তানি করেছে দেশটি। হো চি মিন সিটিভিত্তিক এক ব্যবসায়ী বলেন, টানা পাঁচ দিনের ছুটিকে কেন্দ্র করে বাণিজ্যিক কার্যক্রম কিছুটা ধীর হয়ে এসেছে। এ কারণেই চালের বাজারদরে উত্থান-পতন পরিলক্ষিত হয়নি। অন্যদিকে থাইল্যান্ড চলতি সপ্তাহে প্রতি টন ৫ শতাংশ ভাঙা চাল ৫৮০-৫৮৫ ডলারে রপ্তানি করছে। গত সপ্তাহেও একই দামে রপ্তানি হয়েছিল শস্যটি। ইন্দোনেশিয়া থেকে চাহিদা কমে যাওয়ায় বাজারদর স্থিতিশীল রয়েছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা। এশিয়ায় ২০২৪ সালে চাল উৎপাদন কমার আশঙ্কা করা হয়েছে। এল নিনোর প্রভাবে আবহাওয়ায় শুষ্ক অবস্থা বিরাজ করবে, যা মাটির আর্দ্রতা কমিয়ে দেবে। ফলে এশিয়ার শীর্ষ চাল উৎপাদনকারী দেশগুলোয় ফলন ব্যাহত হবে। এতে খাদ্যপণ্যটির মজুদও কমে আসবে। সব মিলিয়ে বাজারে সরবরাহ স্বল্পতার ফলে খাদ্য মূল্যস্ফীতি দেখা দিতে পারে। বিশ্লেষক ও ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, বিশ্বের বৃহত্তম চাল রপ্তানিকারক ভারত ও দ্বিতীয় শীর্ষ সরবরাহকারী থাইল্যান্ড চলতি বছর চাল উৎপাদন কমে যাওয়ার আশঙ্কা করছে। ইন্দোনেশিয়ায় খরার কারণে ঠিকমতো ধান চাষ করতে পারেননি কৃষকরা। ফলে শীর্ষস্থানীয় আমদানিকারক দেশটি থেকে আমদানি চাহিদা আগের চেয়ে আরো বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তথ্য বলছে, গত বছরের শেষ দিকে আন্তর্জাতিক বাজারে চালের দাম বেড়ে ১৫ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছে। শস্যটির দামে এমন উল্লম্ফনের কারণে আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে খাদ্য মূল্যস্ফীতি। এশিয়া ও আফ্রিকায় অনেক নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশের অর্থনীতিতে বাড়ছে ঝুঁকি। বিশ্ববাজারে চালের সরবরাহ সংকটের পেছনে অনেকগুলো বিষয়কে দায়ী করছেন বিশ্লেষকরা। এল নিনোর কারণে আবহাওয়ার অপ্রত্যাশিত আচরণ খাতসংশ্লিষ্টদের মধ্যে উদ্বেগ বাড়াচ্ছে। কোথাও অতিরিক্ত বৃষ্টিপাত, আবার কোথাও খরা ব্যাহত করছে শস্যটির আবাদ ও উৎপাদন প্রক্রিয়া। ভারত গত বছরের মাঝামাঝি সময় পণ্যটি রপ্তানিতে বিধিনিষেধ আরোপ করতে শুরু করে। ওই সময় বাসমতী ছাড়া সব ধরনের সাদা চাল রপ্তানিতে দেয়া হয় নিষেধাজ্ঞা। স্থানীয় সরবরাহ নিরবচ্ছিন্ন রাখতেই এ রপ্তানি নীতি গ্রহণ করে নয়াদিল্লি। ফলে আন্তর্জাতিক বাজারে শস্যটির সরবরাহ সংকট দেখা দেয়। বিশ্বের কয়েকশ কোটি মানুষের প্রধান খাদ্য চাল। শস্যটির এমন মূল্যবৃদ্ধিতে নাভিশ্বাস উঠছে সাধারণ মানুষের। গৃহস্থালির নিত্যদিনের ব্যয় সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে নিম্ন আয়ের দেশগুলোর অনেক পরিবার। ২০২৩-২৪ মৌসুমে চালের বৈশ্বিক উৎপাদন পূর্বাভাস আগের মতোই অপরিবর্তিত রেখেছে আইজিসি। উৎপাদনের পরিমাণ ধরা হয়েছে ৫১ কোটি ১০ লাখ টন। শস্যটির বাণিজ্য ও ব্যবহার পূর্বাভাসে কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি। এর মধ্যে বাণিজ্য দাঁড়াতে পারে পাঁচ কোটি টনে। আর ব্যবহারের পরিমাণ দাঁড়াতে পারে ৫১ কোটি ৬০ লাখ টনে। মৌসুম শেষে মজুত দাঁড়াতে পারে ১৬ কোটি ৬০ লাখ টনে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App