×

অর্থ শিল্প বাণিজ্য

এনবিআরের প্রজ্ঞাপন জারি

অফশোর ব্যাংকিং ব্যবসা পেল কর অব্যাহতি

Icon

প্রকাশ: ২৭ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

 অফশোর ব্যাংকিং ব্যবসা  পেল কর অব্যাহতি
কাগজ ডেস্ক : সুদের ওপর কর অব্যাহতি পেয়েছে অফশোর ব্যাংকিং ব্যবসা। সম্প্রতি এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। দেশে কার্যরত সব ব্যাংককে এ তথ্য জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এখন থেকে দেশে বা বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশি বা বিদেশিরা বাংলাদেশের কোনো ব্যাংকের অফশোর ইউনিটে অর্থ জমা রাখলে প্রাপ্ত সুদের ওপর কোনো কর দিতে হবে না। আবার অফশোর ইউনিটগুলো দেশি বা বিদেশি যে কোনো উৎস থেকে অর্থ ধার নেয়ার পর যে সুদ দেয়, তার জন্যও কর দিতে হবে না। ফলে সুদ বাবদ পাওয়া অর্থের পুরোটাই পাবে অর্থ ধার দেয়া প্রতিষ্ঠানগুলো। অফশোর ব্যাংকিং হলো ব্যাংকের অভ্যন্তরে পৃথক এক ব্যাংকিং ব্যবস্থা। বিদেশি কোম্পানিকে ঋণ প্রদান এবং বিদেশি উৎস থেকে আমানত সংগ্রহের মাধ্যমে ব্যবসা হয় অফশোর ব্যাংকিংয়ে। অফশোর ইউনিটের ব্যবসার পুরোটাই হয়ে থাকে বৈদেশিক মুদ্রায়। ব্যাংকের প্রচলিত কোনো নিয়ম বা নীতিমালা অফশোর ব্যাংকিংয়ে প্রয়োগ হয় না। কেবল মুনাফা ও লোকসানের হিসাব যোগ হয় ব্যাংকের মূল হিসাবে। দেশে বৈধ পথে ডলারের সরবরাহ বাড়াতে অফশোর ব্যাংকিং আইন প্রণয়নসহ নানা শর্ত শিথিল করেছে সরকার। তারই ধারাবাহিকতায় এবার মুনাফা বা সুদের ওপর থেকে কর তুলে নেয়া হয়েছে। বর্তমানে ডলার-সংকট ও বিদেশি ব্যাংকগুলোর তহবিল দিতে অনীহার কারণে ব্যাংকগুলোর অফশোর ইউনিটের ব্যবসা অনেকটা থমকে গেছে। এরপরও বেড়েছে অফশোর ব্যাংকিংয়ে কিছু ব্যাংকের ঋণ। জানা গেছে, ২০২১ সালের জুনে ব্যাংকগুলোর অফশোর ইউনিটের দেয়া ঋণের পরিমাণ ছিল ৭৩ হাজার ৩৮৭ কোটি টাকা। তখন খেলাপি ছিল মাত্র ১ হাজার ৪০ কোটি টাকা, যা মোট ঋণের ১ শতাংশের কিছুটা বেশি। ২০২৩ সালের সেপ্টেম্বরে অফশোর ইউনিটগুলোর ঋণ বেড়ে দাঁড়ায় ৮৩ হাজার ৮২৬ কোটি টাকা। আর খেলাপি ঋণ বেড়ে ১ হাজার ৭৫৫ কোটি টাকায় ওঠে, যা মোট ঋণের ২ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ। অফশোর ইউনিটের ঋণের ২২ শতাংশই ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশের।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App