×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

সারাদেশ

কয়েক লাখ মানুষের ভোগান্তি

চার বছরেও শেষ হয়নি ব্রিজের নির্মাণকাজ

Icon

প্রকাশ: ১০ জুলাই ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

চার বছরেও শেষ হয়নি  ব্রিজের নির্মাণকাজ

নুর আলম দুলাল, কুষ্টিয়া থেকে : কুষ্টিয়া সদর উপজেলার বিত্তিপাড়া হাট-জামজামী ভায়া ঝাউদিয়া সড়কে কুমার নদের ওপর গার্ডার ব্রিজটির নির্মাণ কাজ ৪ বছরেও শেষ হয়নি। পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় ৬ কোটি টাকা প্রাক্কলনে ৮১ মিটার দৈর্ঘ্যরে ব্রিজটির কাজ শুরু হয় ২০২১ সালের মার্চ মাসে। নির্ধারিত সময়কাল ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে শেষ হলেও স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পটির ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ ফেলে পালিয়ে যাওয়ায় ঝুলে গেছে প্রকল্পটি। এতে ৪ বছর ধরে সীমাহীন ভোগান্তির শিকার হয়েছে কৃষিপ্রধান অঞ্চলের কয়েক লাখ মানুষ। এছাড়া হরিনাকুন্ডু ও আলমডাঙ্গা উপজেলার সঙ্গে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার একমাত্র সংযোগ সড়টিতে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, এলজিইডি ও ঠিকাদারের গাফিলতি ও অবহেলায় এমন পরিস্থিতি।

ব্রিজ সংলগ্ন স্থানীয় বাসিন্দা জরিনা খাতুন জানান, ৪ বছর আগে শুরু হয়েছে এই কাজ। এখন এটি তাদের গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে। কাজটি যেন তাড়াতাড়ি শেষ করা হয় সেই দাবি জানান তিনি।

উজানগ্রাম এলাকার প্রবীণ কৃষক রব্বানী প্রামাণিক (৬০) বলেন, গ্রামের মানুষের কষ্ট দেখার কেউ নেই। আমরা মাঠঘাটের ফসল আনতে কত কষ্ট করতে হচ্ছে। কষ্টটা তো আমরাই পাচ্ছি। একইভাবে ভ্যানচালক নশের আলী বলেন, অর্ধেক কাজ করে ফেলে রেখে চলে গেছে। আমাদের ভোগান্তি যাচ্ছেই না। ব্রিজটা হয়ে গেলি আমরা বাঁচি। কুষ্টিয়া জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সদস্য হাজি গোলাম মহসিন বলেন, কুষ্টিয়ায় রাস্তাঘাট, ব্রিজ কালভার্ট ও অবকাঠামো নির্মাণ প্রকল্পগুলো নানা অনিয়ম-অবহেলায় অসম্পন্নভাবে ঝুলে আছে দীর্ঘদিন ধরে। প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ সাপেক্ষে সব প্রস্তুতি ও সক্ষমতাসহ প্রকল্প বাস্তবায়নের যাত্রা শুরু হলেও ঝুলে থাকা এসব প্রকল্পে একদিকে বাড়ছে ব্যয় অন্যদিকে স্বাভাবিক চলাচল ব্যাহত হচ্ছে, বাড়ছে ভোগান্তি। এই যদি হয় বাস্তব চিত্র তাহলে মাসে মাসে এসব মিটিং করে আদৌ কি পরিস্থিতির পরিবর্তন হচ্ছে? সচেতন নাগরিক কমিটি সনাক’র সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল আলম টুকু প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, এই পরিস্থিতি সৃষ্টির জন্য প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার দায়িত্বহীনতার প্রমাণ থাকলে অবশ্যই তার জবাবদিহিতাসহ শাস্তি হওয়া উচিত। টেকসই উন্নয়ন অভিযাত্রা বাস্তবায়নে সরকারের অর্থ বরাদ্দ দেয়ার পরও কেন এমন জনভোগান্তি হবে? এতে হয় তাদের অনিয়ম অবহেলা আছে নচেৎ তারা অযোগ্য। তিনি এমন প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন উন্নয়ন সমন্বয় সভায়।

তিনি আরো বলেন, গত উন্নয়ন সমন্বয় সভাতে যোগ দিয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য মাহবুব-উল আলম হানিফ চরম অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। এ বিষয়ে এলজিইডি কুষ্টিয়ার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, উজানগ্রাম-ঝাউদিয়া সড়কের কুমার নদের ওপর নির্মাণাধীন ৮১ মিটার দৈর্ঘ্যরে ব্রিজটির নির্মাণ কাজ কিছু দিন বন্ধ ছিল। তবে খুব দ্রুততম সময়ের মধ্যে শেষ করা হবে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App