×

সারাদেশ

আশাশুনি

জনবলের অভাবে নষ্ট হচ্ছে কোটি টাকার সম্পদ

Icon

প্রকাশ: ০৪ জুলাই ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

এস কে হাসান, আশাশুনি (সাতক্ষীরা) থেকে : আশাশুনিতে দক্ষ জনবলের অভাবে অযতেœ নষ্ট হচ্ছে এতিম ও প্রতিবন্ধী ছেলেমেয়েদের জন্য নির্মিত কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের মূল্যবান যন্ত্রপাতি। শুধু দক্ষ প্রশিক্ষকের অভাবে এসব মেশিনের কার্যক্রম ও প্রশিক্ষণ প্রদান করা সম্ভব হচ্ছে না।

সরজমিন ও অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় এতিম ও প্রতিবন্ধী ছেলেমেয়েদের জন্য নির্মিত কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের জন্য সরকারের কোটি টাকায় কেনা মেশিনগুলো অকেজো হয়ে পড়ে আছে। ২০১৪ সালে ওই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের জন্য মেশিনগুলো পাঠানো হলেও এখন পর্যন্ত নিয়োগ দেয়া হয়নি কোনো দক্ষ প্রশিক্ষক। ফলে অযতেœ অবহেলায় নষ্ট হয়ে যাচ্ছে সরকারি কোটি কোটি টাকার সম্পদ।

এতিম ও প্রতিবন্ধী ছেলেমেয়েদের জন্য কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে চারটি সেক্টরে শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। এর মধ্যে উড ওয়ার্কস ও উড কার্ভিং সেক্টরে প্রশিক্ষক হিসেবে নিয়োজিত রয়েছেন একজন। ড্রেস মেকিং ও টেইলারিং সেক্টরে রয়েছেন একজন প্রশিক্ষক।

পশু ও হাঁস-মুরগি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে প্রশিক্ষক হিসেবে নিয়োজিত আছেন একজন। তবে দীর্ঘ ১০ বছর ধরে ক্রাফট প্রশিক্ষণ মেশিনারিজ পদটি শূন্য রয়েছে। এতে ওয়ার্কশপ প্রশিক্ষণ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এ এলাকার এতিম ও প্রতিবন্ধী ছেলেমেয়েরা।

এ ব্যাপারে কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের সহকারী জেনারেল ম্যানেজার (সহকারী পরিচালক) ফারুক হোসেন বলেন, ২০১৪ সাল থেকে ক্রাফট প্রশিক্ষণ মেশিনারিজ পদটি শূন্য রয়েছে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরকে একাধিকবার চাহিদাপত্র প্রেরণ করলেও কোনো সুফল মেলেনি।

তিনি আরো বলেন, মেশিনগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে দেখে আমরা স্থানীয় টেকনিশিয়ানদের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা বলেছে, মেশিনগুলো আমরা চালু করতে পারব। তাদের দিয়ে আমরা কাজগুলো করে নেব, এতে এলাকার মানুষও উপকৃত হবে।

জেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তরের উপপরিচালক সন্তোষ কুমার নাথের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, মূলত আশাশুনিতে অবস্থিত প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে পাঁচটি শাখায় প্রশিক্ষণ দেয়ার ব্যবস্থা থাকলেও চারটি চলমান আছে। বাকি একটি জনবলের অভাবে বন্ধ আছে দীর্ঘদিন। উপর মহলকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। আশা করি, লোক নিয়োগ হলে আমাদের এখানে পোস্টিং দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App