×

সারাদেশ

মৌসুম শুরু হলেও পদ্মা-মেঘনায় মিলছে না কাক্সিক্ষত ইলিশ

Icon

প্রকাশ: ২৩ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

মনিরুল ইসলাম মনির, মতলব উত্তর (চাঁদপুর) থেকে : মৌসুম শুরু হলেও চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনা নদীতে মিলছে না কাক্সিক্ষত ইলিশ। দিন-রাত নদীতে জাল ফেললেও যে পরিমাণ মাছ ধরা পড়ছে, তা বিক্রি করে জ্বালানি খরচও উঠছে না বলে দাবি জেলেদের। ইলিশের সরবরাহ না থাকায় অধিকাংশ আড়তে ব্যবসাবাণিজ্য প্রায় বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। ঈদুল আজহা পরবর্তী সময়ে জেলা সদরের মেঘনা উপকূলীয় বিভিন্ন জেলেপল্লী ও আড়ত ঘুরে এবং জেলেদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে। তবে মৎস্য বিভাগ বলছে, আর কিছুদিন পর ভরা মৌসুম শুরু হবে। তখন পুরোদমে ইলিশ মিলবে বলে আশা করা হচ্ছে।

জেলা মৎস্য বিভাগের দেয়া তথ্যে জানা গেছে, পদ্মা-মেঘনা নদীর চাঁদপুর নৌসীমানার মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল থেকে হাইমচর উপজেলার চরভৈরবী পর্যন্ত ৪৪ হাজার জেলে ইলিশসহ অন্যান্য মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করেন। বছরে দুটি সময়, অর্থাৎ জাটকা ও মা ইলিশ সংরক্ষণের সময়ে এসব জেলেকে সরকারিভাবে দেয়া হয় প্রণোদনা। এছাড়া বিকল্প কর্মসংস্থান তৈরির লক্ষ্যে প্রকল্পের মাধ্যমে জেলেদের মধ্যে বিভিন্ন উপকরণ বিতরণ করা হচ্ছে।

সদর উপজেলার হরিণা ও আখনেরহাট মাছ ঘাটে গিয়ে দেখা গেছে, অধিকাংশ ইলিশের আড়ত বন্ধ। ইলিশের আমদানি না থাকায় অনেক আড়তে ব্যবসায়ীরা অবসর সময় কাটাচ্ছেন। আবার কেউ কেউ আড়তেই ঘুমিয়ে আছেন। হরিণা মাছঘাটের ব্যবসায়ী নেছার সৈয়াল বলেন, নদীতে এখন মাছ কম। যে কারণে ব্যবসায়ীরা অনেকেই অবসর সময় কাটাচ্ছেন। তবে নদীতে পানি বাড়লে ইলিশ পাওয়ার সম্ভাবনা আছে।

সম্প্রতি কথা হয় সদর উপজেলার হানারচর ইউনিয়নের গোবিন্দিয়া গ্রামের জেলে জাকির হোসেনের সঙ্গে। তিনি জানান, তার নৌকায় তিনিসহ পাঁচজন জেলে। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত মেঘনায় ইলিশ ধরতে জাল ফেলেন। দুপুরে ফিরেছেন হরিণাঘাট আড়তে। ছোট-বড় ছয়টি ইলিশ বিক্রি করে পেয়েছেন এক হাজার টাকা। এতে তাাদের নৌকার জ্বালানি খরচও ওঠে না।

চাঁদপুর সদর উপজেলার জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা তানজিমুল ইসলাম বলেন, ইলিশ উৎপাদন বৃদ্ধিতে পদ্মা-মেঘনা নদীতে বছরজুড়ে কাজ করছি। বিশেষ করে জাটকা সংরক্ষণ ও মা ইলিশ রক্ষায় জেলেদের সচেতন করে আসছি। এ বছর জাটকা সংরক্ষণ সফল হয়েছে। আগামী মৌসুমে এর সুফল পাবেন জেলেরা। নদীতে চর জেগে ওঠা, পানিদূষণ ও ইলিশের খাদ্য হ্রাস পাওয়ায় মিঠাপানিতে ইলিশের বিচরণ কম। তবে ভরা মৌসুমে ইলিশ পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App