×

সারাদেশ

ঝিকরগাছায় কিশোরী ধর্ষণে আটক ১

Icon

প্রকাশ: ১১ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

আতাউর রহমান জসি, ঝিকরগাছা (যশোর) থেকে : ঝিকরগাছা উপজেলার শংকরপুর ইউনিয়নের কুমড়ি গ্রামের কুলবাড়িয়া বিকেএস মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ১৪ বছর বয়সি শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের ঘটনা গটে। এতে স্থানীয়ভাবে গ্রাম্য মাতববরদের সালিশির মাধ্যমে ৩০ হাজার টাকায় মিমাংসার চেষ্টা করেও রেহায় পায়নি ধর্ষক মিজানুর রহমান (৪০)। ঝিকরগাছা থানার ওসি বিএম কামাল হোসেন ভূঁইয়ার নেতৃত্বে বাঁকড়া তদন্ত কেন্দ্রের এসআই জিয়াউর ররহমানসহ একটি টিম রবিবার রাতের শেষাংশে ও সোমবার দিনের প্রথম প্রহরে অভিযান পরিচালানা করে ধর্ষক মিজানুর রহমানকে আটক করেন। সে কুমড়ি গ্রামের আব্দুল গফুর মোড়লের ছেলে। মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, আসামি মিজানুর রহমান ও বাদীর বাড়ি পাশাপাশি এবং গ্রাম্য চাচা শ্বশুর। বাদীর ১৪ বছরের কিশোরী স্কুলের যাওয়া আশার সময় আসামি বিভিন্ন সময় ইয়ারকির ছলে কটু কথা বলত। গত বৃহস্পতিবার বাদীর মেয়ে ও তার চাচাতো বোন আনুমানিক দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে আসামির পুকুরে গোসল করতে যায়।

কিশোরীকে তার ঘর ঝাড়ু দিয়ে দেয়ার কথা বলে ডেকে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে এবং ছুরি দেখিয়ে কাউকে কোনো কিছু না বলার জন্য ভয়ভীতি দেখায়। বাদীর মেয়ে দুপুর দেড়টার দিকে গোসল না করেই কান্না করিতে করিতে বাড়িতে গিয়ে পরিবারকে জানায়। ঘটনার বিষয়ে বাদির শ্বশুর-শাশুড়ি আসামীর স্ত্রীকে জানালে বাদিদের চুপথাকার জন্য অনুরোধ করেন। বাদীসহ বাদীর পরিবারের লোকজন মেয়ের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে চুপ থাকে। বিষয়টি নিয়ে দুপরিবারের মধ্যে কানাঘুষির একপর্যায়ে গ্রামের কিছু লোকের মধ্যে জানাজানি হলে গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সমন্বয়ে শালিস বৈঠকে বসে। আসামী তার দোষ স্বীকার করে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা দিতে সম্মতি হয়, যা বাদীরা মেনে নিতে পারে না। এ ঘটনায় ভিকটিমের মাতা বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

থানার ওস বিএম কামাল হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ঘটনার বিষয়ে আমি জানতে পেরে তাৎক্ষণিক আমিসহ আমার টিম অভিযান পরিচালনা করে ভিকটিমকে উদ্ধার করে ও আসামিকে আটক করে থানায় নিয়ে আসি। আসামির বিরুদ্ধে ৯(১) ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন সংশোধনী ২০০৩; জোর পূর্বক ধর্ষণ করার অপরাধে মামলা রুজি করে বিচারের জন্য বিজ্ঞ আদালতে পাঠানো হয়েছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App