×

সারাদেশ

সাটুরিয়ায় কুরবানির জন্য প্রস্তুত ২১ হাজার পশু

Icon

প্রকাশ: ০৬ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

সাটুরিয়ায় কুরবানির জন্য প্রস্তুত ২১ হাজার পশু

সাটুরিয়া (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি : আসন্ন ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে সাটুরিয়ায় ২১ হাজার ৭শ ৭৭ টি পশু পালন করা হয়েছে। এ বছর চাহিদার তুলনায় বেশি প্রস্তুত আছে ৭ শত ৬৬টি পশু। তবে ঈদকে সামনে রেখে ভারতীয় পশু অবাধে দেশে আসলে দেশীয় খামারিরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। জানা গেছে, উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের প্রতিটি বাড়িতেই গরু, ছাগল ও ভেড়া লালন পালন কর হয়। বিশেষ করে কুরবানি ঈদকে সামনে রেখে প্রতি বছর এখানকার কৃষকরা গরু মোটাতাজা করে থাকে। আর কয়েক দিন পর থেকে এ উপজেলার পশুর হাটগুলো জমে উঠবে। তবে কুরবানির পশুর হাট জমে না উঠলেও স্থানীয়ভাবে যারা কুরবানি দিবেন, তারা ইতোমধ্যে গ্রামে গ্রামে গিয়ে খোঁজ নিচ্ছেন। পছন্দ হলে আগেই কিনে রাখছেন পশু।

উপজেলার অর্গানিক র‌্যাঞ্চের মালিক সলিমুল্লাহ খান বলেন, এ বছর কুরবানি উপলক্ষে আমার খামারে ৪০টি গরু মোটাতাজা করেছি। আমি গরু হাটে নিয়ে বিক্রি করি না। বিভিন্ন জাত ভেদে ৪৮০- ৫৫০ লাইভ কেজিতে বিক্রি করব। গত বছরও খামার থেকেই সব গরু বিক্রি করেছি। এ ব্যাপারে খলিলাবাদ গ্রামের কৃষক পাখি বলেন, এ বছর পশু পালন করতে খরচ বেশি হয়েছে। সারা বছরই বিভিন্ন ভাইরাসের আক্রমণ হয়েছিল। তাছাড়া প্রতি মাসেই পশু খাদ্যের দাম বেড়েছে কয়েক দফায়। তাই ভালো দাম না পেলে ক্ষতিগ্রস্ত হব। গর্জনা গ্রামের আবুল হোসেন বলেন, এ বছর কুরবানি ঈদকে সামনে রেখে একটি দেশি ষাড় মোটাতাজা করেছি। শুনতাছি ভারত থেকে গরু আয়তাছে। তাহলে আমারা উপযুক্ত দাম পাব না।

বালিয়াটি ইউনিয়নের হাজিপুর গ্রামের কহিনুর বলেন, এ বছর ২টি ষাঁড় পালন করেছি। আমি আশা কারছি ৩ লাখ টাকা বিক্রি করতে পারব। এতে আমার সব খরচ বাদ দিয়ে ৬০- ৭০ হাজার টাকা লাভ হবে।

বরাইদ ইউনিয়নের বড় পয়লা গ্রামের কৃষক নয়া মেকার বলেন, আমাদের ইউনিয়নে প্রায় ৫ শতাধিক পশু কুরবানি ঈদ উপলক্ষে মোটাতাজা করা হয়েছে। প্রতিটি বাড়িতেই গরু, ছাগল ও ভেড়া পালন করা হয়েছে। আমি এ বছর ১৫টি গরু কুরবানি হাটে বিক্রি করার জন্য প্রস্তুত করেছি। আশা করছি ভালো দাম পেলে আমার দুই লাখ টাকা লাভ হবে। সাটুরিয়া উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. ইমরান হোসেন বলেন, কুরবানি ঈদকে সামনে রেখে পশু মোটাতাজা উপলক্ষে আমরা সারা বছর কৃষকদের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ দিয়েছি। কুরবানির পশুর হাট আর কয়েকদিন পরে জমে উঠবে। পশুর হাট ছাড়াও কৃষকের বাড়ি থেকে বিক্রি হবে। তাছাড়া আমাদের অনলাইনেও পশু বিক্রির পরিকল্পনা রয়েছে। তিনি আরো জানান, বিগত ৭-৮ বছর ধরে ঈদ আসলেই সাটুরিয়ার নামটি উঠে আসছে। দেশের সবচেয়ে বেশি ওজনের পশু পালন করার রেকর্ড আছে সাটুরিয়ায়। তবে এ বছর বড় পশু না থাকলেও ঈদকে সামনে রেখে অনেক খামারীরা প্রস্তুত রয়েছে। চলতি বছরে সাটুরিয়ায় কুরবানির জন্য ২১ হাজার ১১টি পশু পালনের লক্ষমাত্রা থাকলেও ৭ শত ৬৬টি পশু বেশি পালন করা হয়েছে। এর মধ্যে ৮ হাজার ৮৫টি গরু, ১২ হাজার ৫শত ৮৭টি ছাগল এবং ১ হাজার ৯৯টি ভেড়া প্রস্তুত হয়েছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App