×

সারাদেশ

দেওয়ানগঞ্জে কৃষি জমির মাটি বিক্রির মহোৎসব

Icon

প্রকাশ: ০৬ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

দেওয়ানগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি : দেওয়ানগঞ্জে অবৈধভাবে কৃষি জমির মাটি কেটে বিক্রির মহোৎসব চলছে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ভেকু দিয়ে জমির উর্বর মাটি কেটে বসতবাড়ির ভিটা উচুকরণ, মার্কেট তৈরি, গর্ত ভরাট কাজে বিক্রি করছে অসাধু ব্যবসায়ীরা। উপজেলা প্রশাসনের কোনো তদারকি না থাকায় মাটি ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্য বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানান এলাকাবাসী।

জানা গেছে. উপজেলার অধিকাংশ কৃষি জমি তিন ফসলি। এখানে সোনালি আঁশ খ্যাত পাট, পেঁয়াজ ও আমন ধান আবাদ করা হয়। কিন্তু প্রতি বছর এ উপজেলায় বিপুল পরিমাণ জমির মাটি কাটা হচ্ছে। এ কারণে দিন দিন আবাদি জমির পরিমাণ কমে যাচ্ছে। কৃষকদের থেকে মাটি কিনে তা বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করে রাতারাতি আঙুল ফুলে কলাগাছে পরিণত হচ্ছেন মাটি ব্যবসায়ীরা।

স্থানীয়দের অভিযোগ, উপজেলায় কয়েকটি শক্তিশালী মাটি ব্যবসায়ী চক্র গড়ে উঠেছে। এরা দরিদ্র কৃষকদের নানা প্রলোভন দেখিয়ে জমির মাটি কিনে নিচ্ছে। আবার কেউ কেউ প্রয়োজনের তাগিদে নগদ অর্থ পেতে ফসলি জমির মাটি বিক্রি করে দিচ্ছেন। ৮-১০ ফুট গভীর করে মাটি কাটার ফলে অনেক জমি ডোবায় পরিণত হয়েছে। এসব জমিতে ফসল বা মাছ চাষ করা সম্ভব হচ্ছে না। এছাড়া কৃষি জমি থেকে কেটে নেয়া মাটি বিভিন্ন স্থানে সরবরাহের কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে ট্রলি গাড়ি। এসব ট্রলির কারণে কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত গ্রামীণ রাস্তা ঘাটে খানাখন্দ তৈরি হয়ে দ্রুত ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়ছে। এছাড়া ট্রলি চলাচলের কারণে আবাদি জমিও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। গত মঙ্গলবার সরজমিন দেখা গেছে, ডাংধরা, চর আমখাওয়া, পাররামরামপুর, হাতীভাঙ্গা, বাহাদুরাবাদসহ ৪টি ইউনিয়েনর প্রায় ১০টি পয়েন্ট থেকে ভেকু দিয়ে ফসলি জমির মাটি কাটার হিড়িক চলছে। পাথরের চর চেংটিমারী সরকারপাড়া আজিবর রহমান, চর আমখাওয়া ইউনিয়নের লঙ্কার চর সাবেক ইউপি সদস্য মতিউর রহমান, পাররামরামপুর ইউনিয়নের চেংটিমারী এলাকার মিলন মিয়া নামে মাটি ব্যবসায়ীরা ভেকু দিয়ে ফসলি জমির মাটি কাটছেন। কেটে নেয়া মাটি ট্রলিতে করে বিভিন্ন বাড়ি ও মার্কেটে পাঠানো হচ্ছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ জাহিদ হাসান প্রিন্স জানান, ফসলি জমি থেকে অবৈধভাবে মাটি কেটে নেয়া চক্রের বিরুদ্ধে প্রশাসনের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App