×

সারাদেশ

গ্রাহকদের কোটি টাকা হাতিয়ে উধাও এনজিও

Icon

প্রকাশ: ০৫ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক, ল²ীপুর : ল²ীপুরের রায়পুরে প্রায় ৪০০ গ্রাহকের কোটি টাকা হাতিয়ে উধাও হয়েছে এমপিএল রিসোর্স ইনস্টিটিউট নামের একটি এনজিও। ওই এলাকার সবজি বিক্রেতা, গৃহকর্মী, রিকশাচালক ও মেঘনার পাড়ের জেলে পল্লীর বাসিন্দাসহ দরিদ্র গ্রাহকদের কাছ থেকে এ টাকা হাতিয়ে নেয়া হয়। টাকা ফেরত পাওয়ার দাবিতে গত সোমবার বিকালে উত্তর চরবংশী এলাকায় ওই এনজিওর ভাড়া করা ভবনের গেটে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছেন ক্ষুব্ধ গ্রাহকরা।

০১৮০৫৬ রেজিস্ট্রেশন নম্বার ও ১৬৮ কোড নম্বরের এনজিও এমপিএল রিসোর্স ইনস্টিটিউটের প্রধান কার্যালয় ঢাকার মতিঝিলে। রায়পুরের উত্তর চরবংশী ইউনিয়নে ছিল অস্থায়ী কার্যালয়। উত্তর চরবংশী ইউনিয়নের গ্রাহকরা জানান, ২০, ২৫ ও ৩০ হাজার টাকা সঞ্চয় রাখা এবং শেয়ার হিসেবে ১ থেকে ৪ লাখ টাকা ঋণ দেয়ার নামে গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রায় কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে ওই প্রতারক চক্র। জেলে বাবুল মাঝি বলেন, সোমবার আমাদের ঋণ দেয়ার কথা ছিল। বেলা ২টায় খাসেরহাট বাজারের পাশে ওই অফিসে এসে দেখি কেউ নেই। তালা মারা। সঞ্চয় জমা দেয়ার নামে সবার কাছ থেকে ১৫ থেকে ৩৫ হাজার টাকা করে নিয়েছে। বহু কষ্ট করে নদীতে মাছ ধরে সংসার চালাই। ভাবলাম, সমিতিতে টাকা রেখে ঋণ নিয়ে একটা দোকান দিয়ে বসব। নাজমা, মমতাজ, মারিফা, জাকিয়া, বাকের মাঝি ও বাবুল মাঝির মতো পুরো উত্তর চরবংশী ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার এসব দরিদ্র গ্রাহকের সঙ্গে প্রতারণা করেছে এমপিএল রিসোর্স ইনস্টিটিউট। ওই ঋণদান সংস্থার বিরুদ্ধে থানায় মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন গ্রাহকরা। স্থানীয় খাসেরহাট বাজারের মসজিদের পেছনে ভবনের মালিক সৌদি প্রবাসী আতিকের ভাই সৌরভ বলেন, কোম্পানির কর্মকর্তা হাবিবুর রহমানের সঙ্গে ৮ হাজার টাকা মাসিক চুক্তিতে ভাড়া দিই। তারা গত এক মাস আগে বাসা ভাড়া নেয়। কিন্তু এভাবে তালা মেরে পালিয়ে যাবে জানা ছিল না। রায়পুর থানা পুলিশ আমাদের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে গেছে। রায়পুর থানার ওসি ইয়াসিন ফারুখ মজুমদার বলেন, এ ঘটনা জানতে পেরে তাৎক্ষণিকভাবে দুজন এসআইকে ঘটনাস্থল পাঠিয়ে উত্তেজিত গ্রাহকদের শান্তনা দেয়া হয়েছে। তারা যদি মামলা করেন, তা তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। রায়পুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইমরান খান বলেন, এ বিষয়ে কেউ জানাননি। এনজিও সভায় সবাইকে সতর্ক থাকতে বলা হবে। খোঁজখবর নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App