×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

সারাদেশ

মনোয়ার হত্যা মামলার মূল আসামি গ্রেপ্তার

Icon

প্রকাশ: ০৩ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক, নাটোর : নাটোরের গুরুদাসপুরের কৃষক মনোয়ার হোসেন হত্যা মামলার মূল আসামি হায়দার আলীকে মেহেরপুর থেকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গতকাল রবিবার ভোরে মেহেরপুর জেলার গাংনী উপজেলার গাংনী উত্তরপাড়া গ্রাম থেকে তাকে গ্রেপ্তার করেন র‌্যাব-৫ এর সদস্যরা।

গ্রেপ্তারকৃত হায়দার আলী গুরুদাসপুর উপজেলার কুমারখালী গ্রামের আশরাফ আলীর ছেলে। গতকাল রবিবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব-৫ নাটোর সিপিসি-২ ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার মেজর হাসান মাহমুদ এ তথ্য জানান। র‌্যাব-৫ নাটোর ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার মেজর হাসান মাহমুদ জানান, গুরুদাসপুর উপজেলার কুমারখালী গ্রামের মৃত খয়ের উদ্দিন মোল্ল্যার ছেলে আব্দুস সালামের সঙ্গে হায়দার আলীর জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। এর জের ধরে গত ২৩ মে বিকালে হায়দার আলী ও তার সহযোগীরা মনোয়ার হোসেনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করেন। এ সময় তাকে বাঁচাতে গেলে মনোয়ারের ফুফাত ভাই রেজাউল করিমকেও কুপিয়ে জখম করা হয়। পরে তাদের চিৎকার শুনে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে রক্তাক্ত অবস্থায় মনোয়ার হোসেন ও রেজাউলকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক মনোয়ার হোসেনকে মৃত ঘোষণা করেন এবং রেজাউল করিমকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসাপাতারে রেফার করেন। এ ঘটনায় পরের দিন মনোয়ার হোসেনের বাবা আব্দুস সালাম বাদী হয়ে গুরুদাসপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলা দায়েরের পর অভিযুক্তরা আত্মগোপনে চলে যান। পরে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আসামীদের গ্রেপ্তারের জন্য র‌্যাবের কাছে আবেদন করেন। এর প্রেক্ষিতে র‌্যাব গোয়েন্দা তথ্য ও তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে অভিযুক্ত হায়দার আলীর অবস্থান সনাক্ত করে তাকে গ্রেপ্তার করে। তাকে গুরুদাসপুর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App