×

সারাদেশ

মান্দা

প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্কুলের টিন বিক্রির অভিযোগ

Icon

প্রকাশ: ২৯ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

মান্দা (নওগাঁ) প্রতিনিধি : মান্দায় নিয়মবহির্ভূতভাবে স্কুলের টিন বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে প্রধান শিক্ষকসহ তিনজনের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত হলেন ২৫নং মান্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুরুচী রানী হাওলাদার, সহকারী শিক্ষক খাইরুল আলম ও দপ্তরি সাইফুল ইসলাম। এ ঘটনায় সদর ইউনিয়ন পরিষদের মহিলা সদস্য (মেম্বার) জিন্নাতুন নেছা অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, কয়েক মাস আগে ২৫নং মান্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণের সময় পুরনো ভবন ভেঙে ফেলার কারণে শিক্ষার্থীদের পাঠদানের সুবিধার জন্য ঢেউটিন দিয়ে তিনটি রুম তৈরি করা হয়েছিল। পরে নতুন ভবনের কাজ শেষ হওয়ায় টিনের তৈরি তিনটি কক্ষ পরিত্যক্ত হয়ে পড়ে। এ অবস্থায় অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক পরিত্যক্ত শ্রেণিকক্ষের টিন গোপনে বিক্রি করে দেন। বিষয়টি জানাজানি হলে প্রধান শিক্ষিক নিজেকে বাঁচাতে এবং ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে দেখানোর জন্য রাতারাতি কিছু পুরনো টিন কিনেছেন।

স্কুলের ঢেউটিন ক্রেতা ভাঙাড়ি ব্যবসায়ী মামুন বলেন, শিক্ষক খায়রুলের কাছ থেকে সাড়ে ৩ মণ টিন ৮ হাজার টাকায় কিনেছিলাম। এরপর হঠাৎ আমাকে পুরনো টিন কেনার জন্য খায়রুল মাস্টার ২৫শ টাকা দেন। আমি পুরনো টিন না পেয়ে তাকে টাকা ফেরত দিয়েছি। তাদের জন্য আমি মিথ্যা বলে ঝামেলায় জড়াতে চাই না।

এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক সুরুচী রানী হাওলাদার বলেন, নিয়ম মেনে টিন বেচা হয়েছে এবং সেই টাকা সভাপতির কাছে জমা রাখা হয়েছে।

টিন বিক্রির বিষয়টি স্কুলের সভাপতি শামীম হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ৭-৮ হাজার টাকার টিন বিক্রি করে সেই টাকা ব্যাংকে জমা রাখা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কেউ এ বিষয়ে কিছু জানেন কিনা এমন প্রশ্ন তিনি এড়িয়ে যান। এ ব্যাপারে দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা এডওয়ার্ড সরেন বলেন, টিনগুলো গুছিয়ে রাখতে বলা হয়েছিল। টিন বিক্রিয় করে থাকলে তিনি অপরাধ করেছেন। টিন বিক্রির বিষয়ে আমি অবগত নই। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল বাশার শামসুজ্জামান বলেন, টিন বিক্রির একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App