×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

সারাদেশ

আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায়

আবেদন করেই সেই টাকা নিতে পারবেন ইউনিপের গ্রাহকরা

Icon

প্রকাশ: ২৪ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : ব্র্যাক ব্যাংকের রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোড শাখায় জমা থাকা মাল্টিলেভেল মার্কেটিং কোম্পানি (এমএলএম) ‘ইউনিপে টু ইউ’র গ্রাহকদের ৪২০ কোটি টাকা সরকারের কোষাগারে স্থানান্তরের নির্দেশ দিয়েছিলেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। এ টাকা ইউনিপের গ্রাহকরা সরকারের কাছে আবেদন করে নিতে পারবেন বলেও আদেশে বলা হয়েছিল। ইউনিপের গ্রাহকদের ৪২০ কোটি টাকা সরকারের কোষাগারে স্থানান্তরের নির্দেশ দিয়ে ঘোষিত রায়টির পূর্ণাঙ্গ কপি প্রকাশ করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

পূর্ণাঙ্গ রায়ে বলা হয়েছে, আদালত কর্তৃক সরকারের কোষাগারে স্থানান্তর করা এই অর্থ/সম্পত্তির প্রতি যদি কারো দাবি বা আগ্রহ থাকে, তাহলে তারা (গ্রাহকরা) প্রতিকারের জন্য উপযুক্ত আদালতে যেতে পারেন। তাৎক্ষণিকভাবে তারা পাওনা আদায়ের জন্য হাইকোর্ট ডিভিশনের কাছে যেতে পারবেন। কারণ রায়ে দেনাদারদের ব্যাংক হিসাব বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। এখন হাইকোর্ট বিভাগ আইন অনুযায়ী বিষয়টি নিষ্পত্তির এখতিয়ার পেয়েছেন। রায়ে আরো বলা হয়েছে, তাৎক্ষণিক ক্ষেত্রে, এটি স্বীকার করা হয় যে দুদক আজ পর্যন্ত আইন অনুসারে বাজেয়াপ্ত সম্পত্তির একটিও বাজেয়াপ্ত করেনি। রায়ে দুদককে এই রায় প্রাপ্তির তারিখ থেকে ৩০ (ত্রিশ) দিনের মধ্যে বাজেয়াপ্ত সম্পত্তির বিষয়ে দৈনিক পত্রিকায় নোটিস প্রকাশ করতে এবং বিবাদী, ডিক্রিধারক, বাদী বা অন্য দাবিদারের সঙ্গে যোগাযোগ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

গত ৫ মার্চ প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের চার সদস্যের বিচারপতির বেঞ্চ এ রায় দেন। আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম রায়টি লিখেছেন। সম্প্রতি ১২ পৃষ্ঠার রায়ের অনুলিপি প্রকাশ করা হয়েছে। রায়ের বিষয়ে রিটকারীর আইনজীবী রাফসান আলভী বলেন, আপিল বিভাগের এই রায় ‘ইউনিপে টু ইউ’র গ্রাহকদের পাশাপাশি ডেসটিনি, ইভ্যালির মতো প্রতিষ্ঠানের প্রতারিত গ্রাহকদের পাওনা আদায়ে গাইড লাইন হিসেবে কাজ করবে।

গ্রাহকদের আইনজীবী ব্যারিস্টার অনিক আর হক বলেন, আপিল বিভাগে ‘ইউনিপে টু ইউ’র মামলার শুনানি হয়েছে। ব্র্যাক ব্যাংক এলিফ্যান্ট রোড শাখায় যে ৪২০ কোটি টাকা পাওয়া গেছে, আপিল বিভাগ সেটিকে সরকারি কোষাগারে স্থানান্তর করার নির্দেশ দিয়েছেন। সে সঙ্গে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেয়ার কথা বলা আছে, সেটাও দেবে। এরপর ইউনিপের গ্রাহক যারা আছেন তারা ৩০ দিনের মধ্যে আবেদন করবেন। তারপর তাদের আবেদন যাচাই-বাছাই করে তারা সিদ্ধান্ত দেবেন। গ্রাহকেরা টাকা কীভাবে ফেরত পাবেন? এ প্রশ্নের জবাবে অনিক আর হক বলেন, টাকাগুলো রাষ্ট্রীয় কোষাগারে যাওয়ার পর নির্দিষ্টভাবে আবেদন করতে হবে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App