×

সারাদেশ

চমক দেখাতে পারেন তারুণ্যের প্রিয়মুখ আফতাব

তাহিরপুরে লড়াই হবে ২ প্রার্থীর

Icon

প্রকাশ: ২০ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

মো. সাজ্জাদ হোসেন শাহ্/রাহাদ হাসান মুন্না, সুনামগঞ্জ ও তাহিরপুর থেকে : তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে শেষ মুহূর্তে প্রচার-প্রচারণা ও গণসংযোগে ব্যস্ত রয়েছেন প্রার্থীরা। এ উপজেলায় প্রার্থীরা হলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি আবুল হোসেন খান (কাপ পিরিচ), বাদাঘাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আফতাব উদ্দিন (আনারস), তাহিরপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন (দোয়াত-কলম), তাহিরপুর উপজেলা বিএনপির বহিষ্কৃত সহসভাপতি আবুল কাশেম (মোটরসাইকেল), উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আলী মর্তুজা (ঘোড়া), লন্ডন প্রবাসী মিটু রঞ্জন পাল (হেলিকপ্টার)। কাগজে কলমে ৬ জন প্রার্থী থাকলেও ভোটের মাঠ সরগরম করেছেন আবুল হোসেন খান, আফতাব উদ্দিন, বোরহান উদ্দিন, আবুল কাশেম- এ চারজন। উপজেলার সাত ইউনিয়নে কম-বেশি এ চার প্রার্থীরই ভোট রয়েছে। তবে তাদের মধ্যে আসল লড়াই হবে দুই প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি হাজি আবুল হোসেন খান ও বাদাঘাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আফতাব উদ্দিনের মধ্যেই।

এদিকে এবারের নির্বাচনে তরুণ ও নারী ভোটারদের জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছেন বাদাঘাট ইউনিয়নের তিনবারের প্রয়াত চেয়ারম্যন জয়নাল আবেদীনের কনিষ্ঠ ছেলে আফতাব উদ্দিন। এ প্রার্থীকে নিয়ে শুধু তাহিরপুরেই নয় গোটা জেলাজুড়ে চলছে আলোচনা। অন্যদিকে বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজি আবুল হোসেন খানেরও রয়েছে বিশাল ভোট ব্যাংক। প্রবীণ রাজনীতিবিদ হিসেবে তিনিও রয়েছেন ভালো অবস্থানে।

অন্য প্রার্থী উপজেলা বিএনপির বহিষ্কৃত সহসভাপতি আবুল কাসেমের রয়েছে উপজেলাজুড়েই সুখ্যাতি। কাগজে কলমে বিএনপির সহসভাপতি হলেও গত ১৫ বছর ধরে তিনি বিএনপির দলীয় কোনো কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ এমনকি কোনো ধরনের প্রচার-প্রচারণায়ও যোগ দেননি। তারও উপজেলার সাত ইউনিয়নে ভোট রয়েছে।

উপজেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি (বর্তমার্নে আওয়ামী লীগ নেতা) তাহিরপুর সদর ইউনিয়নের দুইবারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিনেরও উপজেলাজুড়ে রয়েছে ভোট। তবে গত দুই বছর আগে হঠাৎ কোনো কারণ ছাড়াই বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে যোগদান করা এবং গেল অর্থবছরে তাহিরপুর ও জামালগঞ্জ উপজেলার আংশিক নিয়ে গঠিত শনিরহাওর জলমহালের ইজারা নেয়ায় তার নিজ নির্বাচনী ইউনিয়ন তাহিরপুরের ভোটারদের কাছেই পড়েছেন বেকায়দায়। বিএনপি ছেড়ে আওয়ামী লীগে যোগদান এবং শনিরহাওর জলমহালের নিয়ন্ত্রণে স্থানীয় জেলে এবং এলাকাবাসীর কাছে অনেকটাই হারিয়েছেন জনপ্রিয়তা। অন্য দুই প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অধ্যক্ষ আলী মর্তুজা এবং যুক্তরাজ্য প্রবাসী মিঠু পাল- এ দুজনের একজনও নেই নির্বাচনের মাঠে। তারা শুধুমাত্র কিছুসংখক পোস্টারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ।

উপজেলায় চার প্রার্থীর প্রচার-প্রচারণা ও গণসংযোগে কেউ কারো চেয়ে পিছিয়ে নেই। তবে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে সরজমিন গিয়ে ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এ উপজেলায় মূল লড়াই হবে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি হাজি আবুল হোসেন খান ও বাদাঘাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আফতাব উদ্দিনের মধ্যেই। তারা আরো বলছেন, যেহেতু তরুণ ও নারী ভোটারদের কাছে বেশি জনপ্রিয় আফতাব উদ্দিন সেহেতু নির্বাচনে চমক দেখাতে পারেন তিনিই।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App