×

সারাদেশ

কলাপাড়ায় খানাখন্দে ভরা ৮৮ কিলোমিটার সড়ক

Icon

প্রকাশ: ১৬ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

 কলাপাড়ায় খানাখন্দে ভরা ৮৮ কিলোমিটার সড়ক
কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি : কলাপাড়া উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের ৮৮ কিলোমিটার পাকা সড়ক এখন মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। খানাখন্দকে ভরা সড়কের অবস্থা বর্তমানে বেহাল। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) নির্মিত বিটুমিনাস কার্পেটিং এ সড়কের অধিকাংশ সিলকোট উঠে গেছে। বর্ষায় পানি জমে একাকার হয়ে যায়। অধিকাংশ সড়কের কার্পেটিংয়ের অস্তিত্ব নেই। বালু, কাদামাটি, খোয়া বেরিয়ে গেছে। পাকা এ সড়কগুলো এখন যান চলাচলের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়ে যানবাহনে চলাচল করতে হচ্ছে। অনেক সময় যানবাহন উল্টে ঘটছে দুর্ঘটনা। দীর্ঘদিন মেরামত না করায় সড়কগুলোর এমন অবস্থা হয়েছে। ছয় চাকার অবৈধ দৈত্যাকৃতির যান, হামজা কিংবা ট্রলি অতিরিক্ত মালামাল বোঝাই করে চলাচলের কারণে শুধু পাকা সড়ক নয়, আরো শত কিলোমিটার কাঁচা ও কয়েক কিলোমিটার হেরিংবন্ড রাস্তা ভেঙে গেছে। এলজিইডির তথ্যমতে জানা যায়, তিন মিটার প্রস্থ ও এক কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে সড়ক পাকাকরণে ৮০ লাখ থেকে সর্বোচ্চ এক কোটি টাকা ব্যয় হয়। অথচ অবৈধ ছয় চাকার দৈত্যাকৃতির ওই যানের (ট্রলি-হামজা) চাকায় (নির্মাণের ৩-৬ মাসেই) পিষ্ট হয়ে রাস্তাঘাট নষ্ট হয়ে গেছে। ফলে সরকারের শত শত কোটি টাকার পাকা সড়ক ছাড়াও আরও ৫০ কোটি টাকার কাঁচা মাটি কিংবা ইটের সড়ক সর্বনাশ হয়েছে। অবৈধ এ যান রোধে নেই কোনো পদক্ষেপ। ফলে সরকারের গ্রামীণ যোগাযোগের উন্নয়ন চিত্র বিবর্ণ হয়ে গেছে। সড়ক ধ্বংসের এই ধারা অব্যাহত রয়েছে। এলজিইডি সূত্রে জানা গেছে, কলাপাড়া উপজেলায় এলজিইডি নির্মিত পাকা-কাঁচা মোট সড়ক রয়েছে এক হাজার ৯৬৮ কিলোমিটার। এর মধ্যে উপজেলা সংযোগ সড়ক রয়েছে ১০টি, যার দৈর্ঘ্য ১২০ কিলোমিটার। ইউনিয়ন সংযোগ সড়ক রয়েছে ২৩টি। যার দৈর্ঘ্য ২২৯ কিলোমিটার। গ্রামীণ গুরুত্বপূর্ণ সড়ক (এ-টাইপ) রয়েছে ৫১টি। যার দৈর্ঘ্য ২৪২ কিলোমিটার। গ্রামীণ কম গুরুত্বপুর্ণ (বি-টাইপ) প্রত্যন্ত এলাকার সড়ক রয়েছে ৪৪৫টি। যার দৈর্ঘ্য ১৩৪৫ কিলোমিটার। এর মধ্য চার শ্রেণির সড়কের মধ্যে বিটুমিনাস কার্পেটিং (পাকা) সড়ক রয়েছে ৩০৪ কিলোমিটার। একশ সাত কিলোমিটার সড়ক রয়েছে এইচবিবি। আরসিসি ও সিসি সড়ক রয়েছে প্রায় দুই কিলোমিটার। এছাড়া কাঁচা মাটির সড়ক রয়েছে এক হাজার ৫৫৪ দশমিক ৬১কিলোমিটার। কলাপাড়া উপজেলার ১২টি ইউনিয়নর হিসাব এটি। ইউনিয়ন পরিষদর চেয়ারম্যানদের দেয়া তথ্যমতে, ১২টি ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ ৮৮ কিলামিটার পাকা বিটুমিনাস কার্পেটিং সড়ক খুব খারাপ হয়ে গেছে। যা যান চলাচলের অনুপযোগী। এর মধ্যে টিয়াখালী ইউনিয়নের প্রায় ৭ কিলোমিটার, চাকামইয়া ৭ কিলোমিটার, ধানখালী ৮ কিলোমিটার, চম্পাপুর দেড় কিলোমিটার, লালুয়া ১২ কিলোমিটার, বালিয়াতলী ১০ কিলোমিটার, ধুলাসার ৯ কিলোমিটার, মিঠাগঞ্জ ৯ কিলোমিটার, নীলগঞ্জ ১৫ কিলোমিটার, মহিপুর ২ কিলোমিটার, লতাচাপলী ৭ কিলোমিটার এবং ডালবুগঞ্জ ইউনিয়নে দেড় কিলোমিটার পাকা সড়ক ব্যবহার অনুপযাগী হয়ে গেছে। এর মধ্যে হেরিংবন্ড ছাড়াও কাঁচা আরো একশ কিলোমিটার সড়কের বেহাল দশা রয়েছে। বর্ষকালে হাঁটু সমান কাঁদা হয়ে যায়। লালুয়ার অধিকাংশ সড়ক লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে। এসব সড়ক পাকা না মাটির তা পর্যন্ত বোঝার উপায় নেই বলে জানান ইউপি চেয়ারম্যান শওকত হোসন তপন বিশ্বাস। মানুষের চরম দুর্ভোগ হচ্ছে যোগাযোগের ক্ষেত্রে। তারা জনস্বার্থে জীর্ণদশার এই সড়কগুলো দ্রুত মেরামতের দাবি জানান। কলাপাড়া এলজিইডির উপসহকারী প্রকৌশলী আবুল হাসান জানান, আট কিলোমিটার সড়ক মেরামতের কাজ চলমান রয়েছে, যা শেষ পর্যায়। ২০২৩-২০২৪ অর্থবছর আরো প্রায় ১৫ কিলোমিটার সড়ক মেরামতের দরপত্র কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তিনি আরো জানান, পর্যায়ক্রমে সড়কগুলো পাকাকরণ করার পাশাপাশি মেরামত করা হবে। এছাড়া সড়ক যেন নষ্ট করতে না পারে সেজন্য ছয় চাকার দৈত্যাকৃতির ওই যান হামজা কিংবা ট্রলি চলাচল বন্ধে তারা কলাপাড়া এবং মহিপুর থানার ওসিদের অনেক আগই চিঠি দেয়া হয়েছে। যা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App