×

সারাদেশ

তাহিরপুর

প্রার্থীরা মানছে না নির্বাচনী বিধি, সংঘাতের আশঙ্কা

Icon

প্রকাশ: ১৬ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

সুনামগঞ্জ ও তাহিরপুর প্রতিনিধি : উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে নির্বাচনী আচরণ বিধি মানছেন না প্রার্থীরা। ফলে যে কোনো সময় বড় ধরনের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। জানা যায়, তাহিরপুর উপজেলার অন্যতম জনবহুল ব্যবসাকেন্দ্র বাদাঘাট বাজার। এ বাজারটি উপজেলার বাদাঘাট ও বড়দল উত্তর দুটি ইউনিয়নের লোকজনে সরগরম থাকে সব সময়। আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বাজারের প্রধান সড়কে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি হাজি আবুল হোসেন খানের নির্বাচনী কার্যলায় এবং অপর চেয়ারম্যান প্রার্থী বাদাঘাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আফতাব উদ্দিনের অফিস মার্কেটে। সেই সুবাধে এ দুই প্রার্থীর দুটি মাইক সকাল থেকে রাত দশটা পর্যন্ত চলে উচ্চস্বরে। এতে বাজারের সাধারণ ব্যবসায়ী ও বাজারে আসা লোকজন অতিষ্ট হয়ে পড়েছেন। এছাড়া অপর চেয়ারম্যান প্রার্থী উপজেলা বিএনপির বহিষ্কৃত সহসভাপতি আবুল কাসেমের লোকজনও নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় মানছেন না আচরণবিধি। এ নিয়ে বাজারের ব্যবসায়ী ও সাধারণ লোকজনের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে। তারা বলছেন, তিন প্রার্থীই যেভাবে শোডাউন, পাল্টা শোডাউন করছেন এতে যে কোনো সময় বড় ধরনের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কায় রয়েছেন তারা। তবে তিন হেভিওয়েট প্রার্থী প্রভাবশালী হওয়ায় তারা কেউই মুখ খুলছেন না। বাদাঘাট বাজার মেইন রোডের একজন ফল বিক্রেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, আমরা আর কী বলব। আপনারাই তো দেখছেন। এখানে তিন প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরাই কেউ কাউকে ছাড় দিতে রাজি নন। এক প্রার্থী মিছিল কিংবা শোডাউন করলে সঙ্গে সঙ্গে অপর প্রার্থীরাও বেড়িয়ে পড়ছেন মিছিল কিংবা শোডাউনে। বাদাঘাট বাজারে আশা পার্শ্ববর্তী ইউনিয়ন বড়দল দক্ষিণের কাউকান্দি গ্রামের হোসাইন আহমদ বলেন, নির্বাচন আসার পর উপজেলার অনেক জায়গায় গিয়েছি কোথাও এমন ভয়ানক পরিস্থিতি চোখে পড়েনি। মনে হচ্ছে শুধু এ বাজারেই নির্বাচন, আর কোথায় নেই। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার সময় সরজমিন দেখা যায়, বাজারে চেয়ারম্যান প্রার্থী আফতাব উদ্দিন (আনারস) এবং চেয়ারম্যান প্রার্থী আবুল কাসেম (মোটরসাইকেল) প্রতীকের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হলে তৎক্ষণাৎ বাদাঘাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এসআই নাজমুল হকের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল বাজারে এসে দ্রুত সবাইকে বাজার ত্যাগ করতে মাইকিং করছেন। তারপরেও ঘণ্টাব্যাপী বাজারে টহল দিয়েও লোকজনকে বাজার ত্যাগ করাতে হিমশিম খেতে হয়েছে পুলিশকে। গতকাল বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা সালমা পারভীনের সরকারি মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করলেও তিনি তা রিসিভ করেননি। তাহিরপুর থানার ওসি মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন জানিয়েছেন, মঙ্গলবার রাতের বিষয়টি তিনি জেনেছেন। তিনি আরো জানান, বাদাঘাটের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি শান্ত রাখতে পুলিশ তৎপর রয়েছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App