×

সারাদেশ

অবৈধ সম্পদ অর্জন

ইউপি চেয়ারম্যান ও স্ত্রীর বিরুদ্ধে দদুকের মমলা

Icon

প্রকাশ: ১৪ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

চাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধি : পাবনার চাটমোহর উপজেলার হরিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মকবুল হোসেন ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুটি মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। সম্পদ অর্জনের তথ্য গোপন এবং জ্ঞাত আয়ের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ সম্পদ অর্জন ও ভোগদখলের অভিযোগে এ মামলা দায়ের করা হয়। গত রবিবার বিকালে দুর্নীতি দমন কমিশন, সমন্বিত জেলা কার্যালয়, পাবনার উপসহকারী পরিচালক ফেরদৌস রায়হান বকসী বাদী হয়ে এ মামলা দুটি করেন। দুদক পাবনা কার্যালয়ে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয় পাবনার উপপরিচালক খায়রুল হক মামলা দায়েরের তথ্য নিশ্চিত করেছেন। অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান মকবুল হোসেন চাটমোহর উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের ধুলাউড়ি গ্রামের মৃত কফিল উদ্দিনের ছেলে। বর্তমানে চাটমোহর পৌর সদরের ৬ নম্বর ওয়ার্ডে বসবাস করেন। তার স্ত্রীর নাম কামরুন্নাহার লাকী। মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, জ্ঞাত আয়ের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপনের অভিযোগ, প্রাথমিক অনুসন্ধানে সত্যতা পাওয়ায় গত বছরের ৩০ জুলাই মকবুল হোসেন ও তার স্ত্রী কামরুন্নাহার লাকীকে সম্পদ বিবরণী দাখিলের আদেশ জারি করা হয়। কিন্তু তাদের দেয়া তথ্য বিবরণীর সঙ্গে কোটি টাকার সম্পদের তথ্য গরমিল হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে এই মামলা করা হয়। দুদক তার অনুসন্ধান পর্যবেক্ষণে আরো উল্লেখ করেছে, কামরুন্নাহার একজন গৃৃৃহিণী। তার স্বামী মকবুল হরিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে ২০০৬ সাল থেকে এখন পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করছেন। কামরুন্নাহারের নিজস্ব কোনো আয় না থাকলেও, তার স্বামী মকবুল ঘুষ ও দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত সম্পদ বৈধ করার অসৎ উদ্দেশ্যে তার নামে আয়কর নথি খুলে বিভিন্ন আয় প্রদর্শন করেছেন। আয় দ্বারা সম্পদ অর্জন দেখিয়েছেন। স্ত্রীর বিরুদ্ধে এই মামলায় মকবুলকে দুই নম্বর আসামিী করা হয়েছে। এ ব্যাপারে দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয় পাবনার উপপরিচালক খায়রুল হক বলেন, দুদক পাবনা কার্যালয়ে মামলা ২টি দায়ের করা হয়েছে। দুদকই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করে তদন্ত করবে। তদন্ত শেষে চূড়ান্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করা হবে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App