×

সারাদেশ

অকেজো হয়ে পড়ে আছে ১০টি

জামালপুরের সাত হাসপাতালে ভেঙে পড়েছে অ্যাম্বুলেন্স সেবা

Icon

প্রকাশ: ০৮ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

 জামালপুরের সাত হাসপাতালে ভেঙে পড়েছে অ্যাম্বুলেন্স সেবা
সাইমুম সাব্বির শোভন, জামালপুর থেকে : জেলার বকশীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নিজস্ব কোনো অ্যাম্বুলেন্স না থাকায় পাশের উপজেলা থেকে আনা হয়েছে একটি অ্যাম্বুলেন্স। এছাড়া জামালপুর জেনারেল হাসপাতাল ও মাদারগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একাধিক অ্যাম্বুলেন্স থাকলেও রয়েছে চালক সংকট। আর ইসলামপুরে ২টি এবং মেলান্দহ, সরিষাবাড়ী ও দেওয়ানগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রয়েছে একটি করে অ্যাম্বুলেন্স। এছাড়া জেলার সাত হাসপাতালে অকেজো হয়ে পড়ে আছে কমপক্ষে ১০টি অ্যাম্বুলেন্স। স্থানীয়রা জানায়, জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে চালক সংকট থাকায় কয়েক বছর অব্যবহৃত হয়ে পড়ে আছে ভারত সরকারের উপহারের অ্যাম্বুলেন্স। এছাড়া সাত হাসপাতালে যেসব অ্যাম্বুলেন্স রয়েছে, সেগুলোর অবস্থাও নাজুক। আর রোগীর চাপ বেশি থাকায় মাঝে মাঝে অ্যাম্বুলেন্স সংকটে পড়তে হয় উপজেলার রোগীদের। বকশীগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা রফিকুল ইসলাম বলেন, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অ্যাম্বুলেন্সটি ভাঙাচোরা। এতে রোগী বহনের সময় রোগী কোমরে ও শরীরে ব্যথা পায়। ফলে রোগীর অবস্থা আরো খারাপ হয়ে যায়। একই উপজেলার আরেক বাসিন্দা রাশেদুল ইসলাম রনি বলেন, যদি এই অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে ময়মনসিংহ যায়, তাহলে পরবর্তী সময়ে অন্য কোনো রোগী এলে অ্যাম্বুলেন্স পায় না। ফলে বাইরে থেকে দালালের মাধ্যমে অধিক মূল্যে অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া নিয়ে চিকিৎসা করাতে হয় এবং অনেক সময় রোগী মারাও যায়। মেলান্দহ উপজেলার বাসিন্দা সাকিব আল হাসান নাহিদ বলেন, উপজেলায় অনেক রোগী হওয়ায় একটা অ্যাম্বুলেন্স দিয়ে রোগী সেবা দেয়া সম্ভব না। সরকার যদি একটা ড্রাইভার নিয়োগ দিত, দুইটা অ্যাম্বুলেন্স চললে আমাদের উপজেলায় যে রোগী ছিল, তারা সহজেই জামালপুর-ময়মনসিংহ মেডিকেলে যাওয়ার সুবিদা পেত। এদিকে সরকারি হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্সের এমন অবস্থার সুযোগ নিচ্ছে বেসরকারি অ্যাম্বুলেন্স ব্যবসায়ীরা। অতিরিক্ত ভাড়া নেয়াসহ নানা অভিযোগ তাদের বিরুদ্ধে। তাই সরকারি হাসপাতালগুলোতে অ্যাম্বুলেন্স সেবা স্বাভাবিক রাখার দাবি স্থানীয়দের। জামালপুর শহরের বাসিন্দা সাজ্জাদ হোসেন বলেন, বাইরে থেকে অ্যাম্বুলেন্স নিলে অনেক টাকা লাগে। সরকার যদি আমাদের অ্যাম্বুলেন্স দিত, তাহলে রোগীরা সহজেই জামালপুর-ময়মনসিংহ-ঢাকায় যাওয়ার সুবিধা পেত। তাই সরকারের কাছে আবেদন, আমাদের আরো কয়েকটা অ্যাম্বুলেন্স দিলে ভালো হতো। জামালপুর জেনারেল হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য জাহাঙ্গীর সেলিম বলেন, এটা কর্তৃপক্ষের অবহেলা হতে পারে অথবা অসাধু অ্যাম্বুলেন্স ব্যবসায়ীদের কারসাজি এবং যোগসাজশে সরকারি অ্যাম্বুলেন্সগুলোকে অকেজো করে রাখা হয়েছে। আমরা সাধারণ মানুষ তাই ভেবে নেব। এ ব্যাপারে জামালপুরের সিভিল সার্জন ডা. ফজলুল হক বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমরা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলব। যেন আমরা জেলার অ্যাম্বুলেন্স সেবাকে আরো উন্নত, জেলাবাসীর আরো সেবা করতে পারি।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App