×

সারাদেশ

মেহেরপুরে পরিবেশবাদী ও স্থানীয়দের ক্ষোভ

ফের দেড় হাজার শতবর্ষী গাছ কাটার তোড়জোড়

Icon

প্রকাশ: ০৭ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

ফের দেড় হাজার শতবর্ষী  গাছ কাটার তোড়জোড়
মর্তুজা ফারুক রুপক, মেহেরপুর থেকে : প্রায় বছরখানেক আগে মেহেরপুর-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কের প্রায় কয়েক হাজার শতবর্ষী গাছ কেটে রাস্তা প্রশস্ত করার উদ্যোগ নেয় মেহেরপুর সড়ক বিভাগ- যা এখনো চলমান। কয়েক হাজার গাছ কাটা হলেও নতুন করে লাগানো হয়নি একটি গাছও। গাছ কাটা নিয়ে পরিবেশবাদী ও সাধারণ মানুষ ব্যাপক ক্ষোভ প্রকাশ করেছিল সে সময়। শতবর্ষী কড়ই, মেহগনি, শিমুল ও নিম গাছগুলো কাটার কারণেই এবার মেহেরপুরে দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে বলে মনে করেন অনেকেই। এবার মেহেরপুর-মুজিবনগর ও মেহেরপুর-চুয়াডাঙ্গা আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে আরো ১ হাজার ৪৪০ গাছ কাটার তোড়জোড় শুরু করেছে মেহেরপুর সড়ক বিভাগ। ইতোমধ্যে মেহেরপুর জেলা পরিষদে চিঠি দিয়ে গাছ কাটার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার অনুরোধ জানিয়েছে সড়ক বিভাগ। জানা গেছে, মেহেরপুর-চুয়াডাঙ্গা সড়কের আমঝুপি পর্যন্ত চার লেনের রাস্তা তৈরির কাজ করা হবে। যাতে প্রধান বাধা হয়ে আছে রাস্তার পাশে ৯৭৬টি ছোট বড় বিভিন্ন বনজ ও ফলজ গাছ। এছাড়াও মুজিবনগর সড়কে দুর্ঘটনা এড়ানোর অজুহাতে কাটা হবে আরো ৪৬৪ গাছ। সরজমিন গিয়ে দেখা যায়, শতবর্ষী কড়ই, মেহগনি, শিমুল ও নিম গাছগুলোকে সড়ক বিভাগ লাল রং করে নাম্বারিং করে রেখেছে। পুনরায় গাছ কাটার তোড়জোড়ে এলাকার মানুষ ভয়ানক ক্ষুব্ধ। তাদের মতে যদি ফের দেড় হাজার শতবর্ষী গাছগুলো কাটা হয়, বড় ধরনের প্রাকৃতিক বিপর্যয় নেমে আসবে। গাছ কাটা প্রসঙ্গে মেহেরপুর সড়ক বিভাগের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মিজানুর রহমান বলেন, গাছগুলো রাস্তার উপরে চলে এসেছে। যে কোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। তাছাড়া এগুলোর কারণে সড়ক সংস্কার বা প্রশস্ত করা যাচ্ছে না। সেজন্য আমরা জেলা পরিষদকে চিঠির দিয়েছি, যাতে বলা হয়েছে, গাছ কাটার ব্যবস্থা নেয়ার জন্য। মেহেরপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আব্দুস সালাম বলেন, আমরা একটি তালিকাসহ চিঠি পেয়েছি। আমাদের সার্বেয়ার (পর্যবেক্ষক) যাবে। তারা যেগুলো কাটা প্রয়োজন বলে মনে করবে সেগুলোই কাটা হবে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App