×

সারাদেশ

ডা. দীন মো. নুরুল হক

স্মার্ট বাংলাদেশের প্যাথলজিস্টরা হবে আরো স্মার্ট

Icon

প্রকাশ: ২৮ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : অভিজ্ঞতা বিনিময় এবং রোগ নির্ণয়ে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি সম্পর্কে ধারণা পেতে দেশি-বিদেশি প্যাথলজিস্টদের অংশগ্রহণে ঢাকায় শুরু হয়েছে প্রথম আন্তর্জাতিক কনফারেন্স ও ৭ম জাতীয় সম্মেলন। গতকাল শনিবার সকালে রাজধানীর একটি হোটেলে দুই দিনব্যাপী এই সম্মেলনের উদ্বোধন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. দীন মো. নুরুল হক। প্যাথলজি চিকিৎসকদের জাতীয় সংগঠন বাংলাদেশ একাডেমি অব প্যাথলজি এই সম্মেলনের আয়োজক। সম্মেলন উদ্বোধনের সময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক ডা. দীন মো. নুরুল হক দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশের প্যাথলজিস্টরা হবে আরো স্মার্ট। তিনি বলেন, বাংলাদেশ অর্থনীতিতে সবচেয়ে পরিবর্তনশীল দেশগুলোর অন্যতম। দেশ যত এগিয়ে যাচ্ছে, স্বাস্থ্য খাতও সমানতালে এগিয়ে যাচ্ছে। স্বাস্থ্যবিষয়ক বেশ কিছু বিষয়েও বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে গেছে। আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানে হিস্টোপ্যাথলজি, সাইটোপ্যাথলজির মতো যে কয়টি বিষয়ে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে সেগুলো নিয়েও কাজ চলছে। সারাদেশে আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানের নতুন নতুন বিষয় ছড়িয়ে দিতে কাজ করা হবে। এই আন্তর্জাতিক সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ভারত, সিঙ্গাপুর থেকে আসা প্যাথলজিস্টসহ প্রায় সাড়ে তিনশ দেশি-বিদেশি প্যাথলজিস্ট বিভিন্ন সেশনে অংশ নিয়ে অভিজ্ঞতা ও অত্যাধুনিক প্রযুক্তি সম্পর্কে ধারণা বিনিময় করবেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক (ডিজি) ও এই কনফারেন্সের অভ্যর্থনা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডাক্তার শাহ মনির হোসেন। এছাড়াও অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আয়োজক সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক ডা. মো. গোলাম মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডা. শাহেদ আলী জিন্নাহ প্রমুখ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, যথাযথ চিকিৎসাসেবা দেয়ার জন্য রোগ নির্ণয়ে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকেন প্যাথলজিস্টরা। পরীক্ষা এবং আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ক্যান্সারসহ নানাবিধ জটিল রোগের চিকিৎসা অনেকাংশেই নির্ভর করে একজন দক্ষ প্যাথলজিস্টের সঠিকভাবে রোগ নির্ণয়ের ওপর। বাংলাদেশে প্যাথলজিস্টরা নানাবিধ অপ্রতুলতার মধ্যেও দক্ষতার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছেন। কিন্তু দেশে সরকারি মেডিকেল কলেজে শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়লেও সে হারে বাড়েনি প্যাথলজি শিক্ষকের পদ। হয়নি প্যাথলজি বিভাগের যথাযথ উন্নয়ন ও বিকাশ। বক্তারা আরো বলেন, সঠিকভাবে রোগ নির্ণয়ে প্রশিক্ষিত ডাক্তার তৈরিতে মেডিকেল কলেজে প্যাথলজি শিক্ষা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু বৃহৎ জনগোষ্ঠীকে সেবা দেয়ার জন্য নেই পর্যাপ্তসংখ্যক প্যাথলজিস্ট ও টেকনোলিজস্ট। বিভিন্ন রোগ নির্ণয়, বিশেষ করে ক্যান্সার রোগ নির্ণয়ে সারাদেশে রয়েছে প্রযুক্তির অপ্রতুলতা। ফলে প্রান্তিক পর্যায় থেকে রাজধানী ঢাকা এবং বিদেশমুখী হচ্ছে ক্যান্সার রোগীরা। বাড়ছে চিকিৎসা খরচ ও বিড়ম্বনা। আয়োজক সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক ডা. মো. গোলাম মোস্তফা সারাদেশ থেকে আসা প্যাথলজিস্টদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে প্যাথলজি শিক্ষা, সেবা ও প্রশিক্ষণে একাডেমির ভূমিকার কথা তুলে ধরেন। সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডা. শাহেদ আলী জিন্নাহ জানান, বর্তমানে পাশের দেশের করপোরেট ল্যাবের এক ধরনের কালেকশন সেন্টার চালু হয়েছে বাংলাদেশে। যার মাধ্যমে রোগীদের স্যাম্পল চোরাচালান করে পরীক্ষার জন্য ওই দেশে পাঠানো হচ্ছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App