×

সারাদেশ

তীব্র তাপপ্রবাহে বাড়ছে রোগ

মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ধারণক্ষমতার দ্বিগুণ রোগী

Icon

প্রকাশ: ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

  মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ধারণক্ষমতার দ্বিগুণ রোগী
মেহেরপুর প্রতিনিধি : মেহেরপুরে তীব্র তাপপ্রবাহে অতিষ্ঠ জনজীবন। গরমের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে আবহাওয়াজনিত রোগ। বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন শিশু ও বয়স্করা। রোগীর অতিরিক্ত চাপে হিমশিম খাচ্ছেন মেহেরপুর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের ডাক্তার ও সেবিকারা। ধারণ সক্ষমতার দ্বিগুণ রোগী এসে ভিড় করছেন হাসপাতালে। বেডে জায়গা সংকুলন না হওয়ায় বারান্দার মেঝে ও সিঁড়ি ঘরে ঠাঁই নিয়েছেন অনেক রোগী। এ অবস্থায় সবাইকে বাড়তি সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। গত ২২ এপ্রিল মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, জ্বর, ঠাণ্ডা, ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া, টাইফয়েড, হিটস্ট্রোকসহ গরমজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন রোগীরা। সব থেকে বেশি ভিড় শিশু ও ডায়রিয়া ওয়ার্ডে। ২৫০ শয্যার হাসপাতাল হলেও শিশু, মহিলা, পুরুষ, ডায়রিয়া ও গাইনি ওয়ার্ড মিলে প্রায় সাড়ে চারশ রোগী ভর্তি থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এছাড়াও প্রতিদিন প্রায় পাঁচ শতাধিক রোগী আউটডোরে এসে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরছে। কয়েকজন রোগীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অতিরিক্ত গরমে ফ্রিজের ঠাণ্ডা পানি পান করায় অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন তারা। বেড না পেয়ে মেঝেতেই চিকিৎসা নিচ্ছেন তারা। শিশু ওয়ার্ডের একজন শিশুর মা জানান, পরিবারের সবাই অসুস্থ। তারা বাড়িতেই চিকিৎসা নিচ্ছেন। কিন্তু বাচ্চার ঠাণ্ডা-জ¦র সপ্তাহখানেক ধরে আছে। বাধ্য হয়ে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়েছে। মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) সাজ্জাদ হোসেন জানান, তীব্র তাপপ্রবাহের কারণে প্রতিদিনই ঠাণ্ডাজনিত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এছাড়াও আউটডোরে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরছে অনেকে। আমরা রোগীদের চিকিৎসা দেয়ার পাশাপাশি বাড়তি সতর্ক থাকার পরামর্শ দিচ্ছি। প্রচুর পরিমাণে পানি পান করা, তরল খাবার বেশি করে খাওয়া, রোদে বাইরে বের না হওয়া, হলেও ছাতা ব্যবহার করা, অতিরিক্ত ঠাণ্ডা পানি না পান করা, ভাজা-পোড়া না খাওয়া, বেশি বেশি শাক-সবজি খাওয়া ও অসুস্থ হলে দ্রুত হাসপাতালে নেয়ারও পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক জমির মোহাম্মদ হাসিবুস সাত্তার জানান, নতুন ভবনটি চালু হলে রোগীদের আসন সংখ্যা আরো বাড়বে। তাছাড়া অসচেতনতার কারণে আবহাওয়াজনিত রোগ বাড়ছে। ভর্তি থাকা রোগীদের খাবার স্যালাইন ও ওষুধ পর্যাপ্ত পরিমাণে দেয়া হচ্ছে। তবে লোবল সংকটের কারণে কিছুটা হিমশিম খেতে হচ্ছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App