×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

তথ্যপ্রযুক্তি

এক মাসে সর্বোচ্চ গুজব শনাক্তের রেকর্ড রিউমর স্ক্যানারের

Icon

কাগজ ডেস্ক

প্রকাশ: ১০ জুন ২০২৪, ০১:১৭ পিএম

এক মাসে সর্বোচ্চ গুজব শনাক্তের রেকর্ড রিউমর স্ক্যানারের

রিউমর স্ক্যানার

বাংলাদেশের ফ্যাক্টচেকিং প্রতিষ্ঠান রিউমর স্ক্যানার গত মে মাসে সর্বোচ্চ ২৩৪টি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে, যা কিনা বাংলাদেশের যে কোনো ফ্যাক্টচেকিং প্রতিষ্ঠানের ইতিহাসে একক মাসে সর্বোচ্চ ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশের রেকর্ড বলে বিবেচিত হচ্ছে। এর আগে চলতি বছরের জানুয়ারিতে ২২৩টি ফ্যাক্টচেক প্রকাশ করেছিল আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট চেকিং নেটওয়ার্ক (আইএফসিএন) স্বীকৃত এই প্রতিষ্ঠানটি। 

রিউমার স্ক্যানের সহ-প্রতিষ্ঠাতা মো. ছাকিউজ্জামান জানান, মে মাসে সর্বোচ্চ ৩৮টি ফ্যাক্টচেক প্রকাশিত হয়েছে প্রতারণা বিষয়ে।   এই সময়ে একক প্লাটফর্ম হিসেবে ফেসবুক ছড়িয়েছে এমন শনাক্তকৃত গুজবের সংখ্যা ১৮৭টি। একই সময়ে টিকটকে ৪৯টি, ইউটিউবে ৩৫টি এবং এক্স (সাবেক টুইটার) থেকে ৪টি গুজব শনাক্ত করা হয়েছে। 

গেল মাসে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিষয়ে প্রচারিত ১৪টি গুজব শনাক্ত করা হয়েছে, যা একক ব্যক্তি হিসেবে গত মাসে সর্বোচ্চ। তালিকায় এরপরেই আছেন ক্রিকেটার ও সংসদ সদস্য সাকিব আল হাসান (১৩টি)। 

সাম্প্রতিক সময়ে সাম্প্রদায়িক গুজব ছড়ানোর প্রবণতা বেড়েছে, যা স্পষ্ট গত মাসে প্রকাশিত এ সংক্রান্ত ১১টি ফ্যাক্টচেক থেকে। একই সময়ে ভুয়া নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি নিয়ে ১৬টি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। একই সময়ে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং ডিপফেক প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রকাশিত ১৬টি গুজব শনাক্ত করা হয়েছে। 

নিয়মিত ঘটনাপ্রবাহের বাইরে গত মাসে তিনটি ঘটনা বেশ আলোচনায় ছিল। ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় মৃত্যু, বাংলাদেশের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীমের ভারতে গিয়ে খুন হওয়া এবং মাসের শেষদিকে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় রেমালের আঘাত হানার ঘটনাগুলোতেও গুজব ছড়িয়েছে সমানতালে।

মো. ছাকিউজ্জামান আরো জানান, গণমাধ্যমের ফটোকার্ড, লোগো এবং পুরোনো ফুটেজ ব্যবহার করে গেল বছর থেকেই ভুল তথ্য ছড়ানোর প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এ বছরের মে মাসে এমন ২০টি ফ্যাক্টচেকেও (নকল ও ভুয়া ফটোকার্ড ১৩টি, গণমাধ্যমের নাম ও লোগো ব্যবহারে ০৫টি, গণমাধ্যমের ফুটেজ ব্যবহার করে ০৬টি) গণমাধ্যমকে জড়িয়ে ভুল তথ্য ছড়ানোর প্রমাণ পেয়েছে রিউমর স্ক্যানার। এই পদ্ধতিগুলো ব্যবহার করে ভুল তথ্য প্রচারে সময় টিভি, আরটিভি এবং যমুনা টিভির নাম সবচেয়ে বেশি (চার বার করে) ব্যবহার করা হয়েছে।

রিউমর স্ক্যানার গত মাস থেকে সাপ্তাহিক নিউজলেটার চালু করেছে। এর মাধ্যমে প্রতি সপ্তাহের রবিবারে পাঠকের ইমেইলে পৌঁছে যাচ্ছে বিশেষ অনুসন্ধানী এবং সপ্তাহের আলোচিত সব ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন। রিউমর স্ক্যানার একটি ফ্যাক্ট-চেকিং বা তথ্য-যাচাইয়ের স্বাধীন উদ্যোগ, যার প্রধান লক্ষ্য দেশের চলমান গুজব ও ভুয়া খবর নির্মূল করা এবং সঠিক তথ্য জনগণের কাছে পৌঁছে দেয়া। ২০২০ সালের ১৭ মার্চ যাত্রা শুরুর পর পরের বছরের (২০২১) ২৮ জুলাই আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট-চেকিং নেটওয়ার্ক (আইএফসিএন) এর সদস্যপদ লাভ করে রিউমর স্ক্যানার।

আরো পড়ুন:

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App