×

খেলা

সূর্যকুমারের সেই ক্যাচ নিয়ে তুমুল বিতর্ক, ক্রিকেটীয় আইনে আউট নাকি ছক্কা?

Icon

কাগজ ডেস্ক

প্রকাশ: ৩০ জুন ২০২৪, ০৫:৩৫ পিএম

সূর্যকুমারের সেই ক্যাচ নিয়ে তুমুল বিতর্ক, ক্রিকেটীয় আইনে আউট নাকি ছক্কা?

ছবি: সংগৃহীত

সদ্য শেষ হওয়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে মনে হয়েছিলো চোকার্স তকমা গুছিয়েই ফেলবে দক্ষিণ আফ্রিকা। কারণে ভারতের বিপক্ষে ফাইনালে একেবারে সাফল্যের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গিয়েছিলো প্রোটিয়ারা। অনেকে ধরেই নিয়েছিলো যে শিরোপা যাচ্ছে দ. আফ্রিকার ঘরে। কিন্তু সে আর হলো কই, শেষ পর্যন্ত নামের পাশে 'চোকার্স' শব্দটির প্রতি আবারো সুবিচার করলো দলটি।

ম্যাচে জয়ের জন্য শেষ ওভারে ১৬ রান দরকার ছিল তাদের। হার্দিক পান্ডিয়ার করা ২০তম ওভারের প্রথম বলেই লং অফে উড়িয়ে মারেন ডেভিড মিলার। একেবারে সীমানা দড়ির কাছে সূর্যকুমার যাদব সেটিকে তালুবন্দী করেন। কিন্তু সেই আউট নিয়ে তৈরি হয়েছে সংশয়। যা নিয়ে সামাজিক মাধ্যমগুলোতে চলছে সমালোচনাসহ জোর বিতর্ক।

রিপ্লে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ওই ক্যাচের ভিডিও ক্লিপে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে যে ক্যাচ নেয়ার সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সূর্যকুমারকে সীমানার বাইরে চলে যেতে, তবে তার আগেই বল শূন্যে তুলে দিয়ে মাঠে ঢুকে ফের লুফে নেন ক্যাচটি। পরে রিপ্লে পরীক্ষা করে সেটিকে আউট বলে সিদ্ধান্ত দেন টিভি আম্পায়ার রিচার্ড কেটেলবরো। কিন্তু কেন যেন অন্যান্য ম্যাচের মতো সেই আউট দেয়ার আগে সীমানা দড়ির দিক থেকে ক্যামেরার অ্যাঙ্গেল দেখানোসহ পরীক্ষা করা হয়নি। 


বিষয়টি নিয়ে ক্রিকেট বোদ্ধা-বিশ্লেষকসহ ভক্তদের অনেকেই মনে করছেন সেটি দেখানো হলে আর কোনো সংশয় থাকত না। যদিও ভারতীয় ক্রিকেটার ও বিশ্লেষকরা ওই ক্যাচকে আজীবন মনে রাখার মতো বলে প্রশংসায় ভাসাচ্ছেন সূর্যকে।

ফাইনালের ওই ক্রুসিয়াল মোমেন্টে মিলারের ওইকেটটি না পড়লে, সেটি ছয় বলে গণ্য হতো ও ম্যাচের ফলাফল ভিন্ন হলেও হতে পারত। তাই ম্যাচের ফল নির্ধারণকারী মুহূর্ত নিয়ে কেন আম্পায়ার বাড়তি সময় নিলেন না, তা নিয়েই অনেকে প্রশ্ন তুলছেন। এ ছাড়া রিপ্লেতে সীমানা দড়িটিও কিছুটা সরে গেছে বলে দেখা যায়, কারণ ঘাসের ওপর বাউন্ডারি লাইনে সাদা দাগ স্পষ্ট। সেই দাগের ওপরই পা ছিল সূর্যকুমারের, যা সেই বিতর্ক আরো উসকে দিচ্ছে।

আইসিসির আইনে এমন ক্যাচের বিষয়ে কী বলে, আউট নাকি ছয়?

ক্রিকেটীয় আইনে সীমানাদড়ি সরে যাওয়া নিয়ে স্পষ্ট ব্যাখ্যা দেয়া হয়েছে। সেই আইন তুলে ধরেছে ক্রিকেটের অ্যালমানাকখ্যাত উইজডেন। তারা বলছে, আইসিসির প্লেয়িং কন্ডিশন অনুযায়ী ১৯.৩ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘সীমানা চিহ্নিত করতে ব্যবহৃত কোনো কঠিন বস্তু যদি কোনো কারণে বিঘ্নিত (সরে যায়) হয়, তাহলে সীমানাটি তার আসল অবস্থানে আছে বলে বিবেচিত হবে।’

এ ছাড়া ১৯.৩.২ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘সীমানা চিহ্নিত করতে ব্যবহৃত কোনো কঠিন বস্তু যদি কোনো কারণে বিঘ্নিত (সরে যায়) হয়, তাহলে যত দ্রুত সম্ভব তা ঠিক করতে হবে। খেলা চলতে থাকলে বল ডেড হওয়ামাত্রই এ কাজ করতে হবে।’ এমন নীতিমালার স্পষ্ট লঙ্ঘন ঘটেছে ম্যাচটিতে। কারণ সাদা দাগ থেকে সীমানা দড়ি সরে যাওয়ার পরও তা ঠিক করা হয়নি। সুতরাং মিলারের আউট এবং সূর্যের ক্যাচটি নিয়ে যে প্রশ্ন উঠেছে, তাকে অমূলক–ও বলা যাচ্ছে না।

এদিকে, ওই আউটের সিদ্ধান্ত নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে বেন কার্টিস নামে একজন লিখেছেন, ‘এটা নিশ্চিতভাবে একবারের বেশি দেখা উচিৎ ছিল। কথাটা এমনিতেই বলছি। বাউন্ডারির দড়ি মনে হচ্ছে সরে গিয়েছিল।’

প্রায় জিতে যাওয়া ম্যাচ হেরে ক্রন্দন্ররত দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটাররা|| ছবি: ক্রিকইনফো

ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দেয়া ওই ক্যাচটি নিয়ে অনেক ছবি ভাইরাল হয়েছে অনলাইনে। যেখানে কয়েকটি ছবিতে দেখা যায়, সূর্যকুমার ক্যাচ ধরেছেন সাদা দাগে চিহ্নিত অংশ ও সীমানাদড়ির মধ্যখান থেকে। যা উল্লেখ করে আরেক টুইট পোস্টে রোহিত শঙ্কর নামে একজন লিখেছেন, ‘দক্ষিণ আফ্রিকার জন্য দুর্ভাগ্যজনক। দড়িটা মূল সীমানালাইন থেকে সরে গিয়েছিল। এটাই হলো বিষয়।’

উল্লেখ্য, মিলারের আউটের পর শেষ ৫ বলে প্রোটিয়ারা তুলতে পারে ৮ রান, ফলে জয় থেকে ৭ রান দূরত্বেই থামে তাদের বিশ্বকাপ অভিযান। স্বাভাবিকভাবেই ম্যাচ শেষে মিলার-মার্করামদের চোখে জল আর একরাশ হতাশা। অন্যদিকে, ১৩ বছর পর বিশ্বমঞ্চে শিরোপাখরা কাটানোর উল্লাসে মাতোয়ারা রোহিত-কোহলি ও বুমরাহরা।  

টাইমলাইন: টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০২৪

আরো পড়ুন

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App