×

খেলা

লিভারপুলকে রুখে দিল অ্যাস্টন ভিলা

Icon

কাগজ ডেস্ক

প্রকাশ: ১৪ মে ২০২৪, ০৮:৫৮ এএম

লিভারপুলকে রুখে দিল অ্যাস্টন ভিলা

ছবি: ইন্টারনেট

লিভারপুলকে রুখে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের পথে অ্যাস্টন ভিলা। ভিলার মাঠে সোমবার রাতে প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচটি ৩-৩ গোলে ড্র হয়েছে। আত্মঘাতী গোলে পিছিয়ে পড়ার পর সমতা টানেন ইউরি তিয়েলেমান্স। পরে কোডি হাকপো ও জ্যারেল কোয়ানসার গোলে জয়ের সম্ভাবনা জোরাল হয় লিভারপুলের। কিন্তু, শেষ দিকে জোড়া গোলে সবকিছু পাল্টে দেন দুরান। এই ড্রয়ের পর ৩৭ ম্যাচে ২০ জয় ও আট ড্রয়ে ৬৮ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে আছে ভিলা। তাদের চেয়ে ৫ পয়েন্ট কম নিয়ে পাঁচে টটেনহ্যাম হটস্পার।

টটেনহ্যামের (১২) চেয়ে এখন পর্যন্ত গোল পার্থক্যেও বেশ শক্ত অবস্থানে ভিলা (২০); তাই অতি নাটকীয় কিছু না হলে শেষ রাউন্ডে হার এড়ালেই আগামী মৌসুমের চ্যাম্পিয়ন্স লিগের টিকেট পেয়ে যেতে পারে উনাই এমেরির দল। শিরোপা লড়াই থেকে আগেই ছিটকে পড়া লিভারপুলের জন্য এই ম্যাচের ফল অবশ্য তেমন গুরুত্বপূর্ণ কিছু নয়। ৭৯ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে তারা।

ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটে প্রতিপক্ষের প্রথম আক্রমণেই গড়বড় করে ফেলেন ভিলা গোলরক্ষক। মোহামেদ সালাহর সঙ্গে ওয়ান-টু খেলে ডান দিক দিয়ে বক্সে ঢুকে পড়েন হার্ভি এলিয়ট, পাস বাড়ান সতীর্থের উদ্দেশ্যে। কিন্তু মাঝপথে প্রতিপক্ষের একজনের গায়ে লেগে কিছুটা দিক পাল্টে যায়, আর তাতেই অপ্রস্তুত হয়ে পড়েন মার্তিনেস। তার হাত ফসকে বল চলে যায় গোললাইন পেরিয়ে।

ওই ধাক্কা ১০ মিনিটের মধ্যেই সামলে ওঠে ভিলা। বল পায়ে বাঁ দিক দিয়ে দারুণ এক আক্রমণ শাণান ওলি ওয়াটকিন্স, একাধিক খেলোয়াড়ের বাধা এড়িয়ে বাইলাইন থেকে কাটব্যাক করেন ইংলিশ এই ফরোয়ার্ড। আর ১৬ গজ দূর থেকে জোরাল শটে সমতা টানেন বেলজিয়ান মিডফিল্ডার তিয়েলেমান্স।

২৩ তম মিনিটে আবারও এগিয়ে যায় লিভারপুল। লুইস দিয়াসের পাস ধরে কোনাকুনি শট নেন জো গোমেজ। আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ জয়ী গোলরক্ষক মার্তিনেস ঝাঁপিয়ে বলে হাত লাগালেও রুখতে পারেননি, ছুটে এসে অনায়াসে বল গোললাইনের ওপারে পাঠান ডাচ ফরোয়ার্ড হাকপো। দিয়াস অফসাইডে ছিলেন কি-না, ভিএআরে দীর্ঘক্ষণ যাচাইয়ের পর গোলের বাঁশি বাজান রেফারি।

আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে জমে ওঠা লড়াইয়ে ৩৬তম মিনিটে ফের সমতায় ফিরতে পারতো ভিলা। ডান দিক থেকে লেওন বেইলি পাস বাড়ান একবারে গোলমুখে, কিন্তু গোললাইনের এক গজের মধ্যে বল পেয়েও প্রয়োজনীয় ছোঁয়াটা দিতে পারেননি দিয়েগো কার্লোস। ৪৩তম মিনিটে দারুণ এক প্রতি-আক্রমণে গোলরক্ষক আলিসনকে একা পেয়েছিলেন মুসা দিয়াবি। কিন্তু তিনি উড়িয়ে মারলে পিছিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় ভিলা।

দ্বিতীয়ার্ধের তৃতীয় মিনিটে ব্যবধান বাড়িয়ে জয়ের পথে এগিয়ে যায় লিভারপুল। বাঁ দিক থেকে এলিয়টের ফ্রি কিকে ডি-বক্সে হেড করেন কোয়ানসা, বল দূরের পোস্টের ভেতরের দিকে লেগে জালে জড়ায়। প্রিমিয়ার লিগে এই ইংলিশ ডিফেন্ডারের এটাই প্রথম গোল।

৫২তম মিনিটে ওয়াটকিন্স জালে বল পাঠালেও ব্যবধান কমানোর স্বস্তি ফেরেনি ভিলা শিবিরে। মাঝমাঠে আক্রমণের শুরুতে অফসাইডে ছিলেন বেইলি, ভিএআরে মেলেনি গোল। কিছুক্ষণ পর লিভারপুলও ফের জালে বল পাঠায়, তবে এটাও অফসাইডে বাতিল হয়ে যায়।

মাঝে কিছুক্ষণ আক্রমণের ঝড় বইয়ে দেয় ভিলা; কিন্তু শেষটায় বারবার গুলিয়ে ফেলছিল তারা। ৬৯তম মিনিটে ইতালিয়ান মিডফিল্ডার নিকোলো জানিওলো বক্সে দারুণ পজিশনে বল পেয়েও আলিসনের আয়ত্ত্বের বাইরে শট নিতে পারেননি। ৮২তম মিনিটে ট্রেন্ট অ্যালেকজ্যান্ডার-আর্নল্ডের জোরাল উঁচু শট কর্নারের বিনিময়ে ঠেকিয়ে দলকে লড়াইয়ে রাখেন মার্তিনেস।

তিয়েলেমান্সের বদলি নেমেছিলেন জানিওলো, কিন্তু চোটের ধাক্কায় ১৫ মিনিটও মাঠে থাকতে পারেননি তিনি। ৭৯তম মিনিটে তার জায়গায় নামেন দুরান। বদলির বদলি নামা কলম্বিয়ার এই ফরোয়ার্ড তিন মিনিটের মধ্যে দুই গোল করে দলকে উচ্ছ্বাসে ভাসান। ৮৫তম মিনিটে প্রতিপক্ষের একটা ভুলে বল পেয়ে যায় ভিলা। সতীর্থের পাস ধরে একটু আড়াআড়ি এগিয়ে বক্সের বাইরে থেকে জোরাল শট নেন দুরান, বুলেট গতিতে বল খুঁজে নেয় ঠিকানা।

তার পরের গোলটির পুরোটায় বলা যায় সৌভাগ্যের ফলস। দুরানের উদ্দেশ্যে থ্রু পাস বাড়ান দিয়াবি, বল ২০ বছর বয়সী ফরোয়ার্ডে হাঁটুর কাছে লেগে আগুয়ান গোলরক্ষকের ওপর দিয়ে জালে জড়ায়! যোগ করা সময়ের তৃতীয় মিনিটে জয়সূচক গোলও পেতে পারতো ভিলা; কিন্তু দিয়াবির জোরাল শট দারুণ নৈপুণ্যে কর্নারের বিনিময়ে ঠেকিয়ে দেন আলিসন। জয়ের পথ থেকে ছিটকে পড়ে, প্রতিপক্ষের মুহুর্মুহু আক্রমণ সামলে এক পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়ে লিভারপুল।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App