রবীন্দ্র-প্রতিভার পরিচয়

হাবিবুর রহমান স্বপন রবীন্দ্র-প্রতিভার সামগ্রিক পরিচয় দেয়া প্রায় অসম্ভব ব্যাপার। রবীন্দ্রনাথ ছিলেন সৃষ্টিশীল মহৎ ব্যক্তি। বাঙালি কবি, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর আমাদের বাঙালি সংস্কৃতির বিশাল রূপান্তর বা পরিবর্তন, পরিমার্জন, সংযোজন ও বিয়োজন করেছেন।... বিস্তারিত

প্রফেসর অনুপম সেন : মানুষের অধিকার আদায়ের অগ্রসৈনিক

ড. আতিউর রহমান বিশিষ্ট সমাজবিজ্ঞানী প্রফেসর ড. অনুপম সেন বর্তমান সময়ের এক বিরল মেধাবী শিক্ষক, গবেষক এবং সমাজ পরিবর্তনের সক্রিয় পণ্ডিত ব্যক্তি। ব্যক্তিগতভাবে আমি প্রফেসর সেনকে খুব ঘনিষ্ঠভাবে জানি এ দাবি আমি... বিস্তারিত

মনে ও নদীতে

সৈয়দ নূরুল আলম দেহ মন শীতল করতে, বর্ষা চাইতে চাইতে ঠিকই এক সময় বর্ষা আসে কিন্তু শীতল হয় না, কঠিন পুরুষ কঠিনই থেকে যায় প্রেমরস শুষে নেয়, গ্রীষ্মে শুষ্ক-মৃত প্রায় দোআঁশ মাটি... বিস্তারিত

পড়শি

এস এম তিতুমীর পড়শি আমার মাছ ধরে, ধীবর। পদ্মার জলে ডিঙি চালায় চর পেরিয়ে কাশ বনে যায়। ময়দা-মোয়ার টোপ কোয়াতে ঠোঁট গলিয়ে মন্তর দেয়। মাছরাঙারা আয় পাশে আয়- আদর করে কোলে বসায়... বিস্তারিত

রবীন্দ্রনাথের প্রাসঙ্গিকতা ও ভাবনার নির্মিতি

লিটন মহন্ত আজো রবীন্দ্রনাথ আমাদোর জীবনে সমানভাবে প্রাসঙ্গিক; এই কথা সহজেই অনুমেয় এবং বিবেচ্য কারণ তাঁকে বাদ নিয়ে কেউ সম্পূর্ণ রূপে বাঙালি হয়ে উঠতে পারে না। আমাদের প্রকৃত বাঙালি হয়ে উঠতে গেলে... বিস্তারিত

দুঃস্বপ্ন অথবা নীলচোখের মেয়েটি

মঈন মুরসালিন বোশেখের অশান্ত বাতাসের ঝাপটা বারবার আছড়ে পড়ছে চোখেমুখে, জানালার রঙিন পর্দাটাও পত্পত্ করে উড়ছে। বোশেখের শেষ দিকে ক্লান্ত দুপুরে বিছানায় গড়াগড়ি আর বুকে জড়ানো শাদা কোল বালিশ নিয়ে এপাশ-ওপাশ করছি।... বিস্তারিত

ছায়াগাছ

সোহরাব পাশা তুমি ক্লান্তিহীন আলো ছায়া নীল ঘড়ি সকল বলার শেষে হেসে ওঠে তোমার কথার ক্ষিপ্র নদী কিনারা পায় না খুঁজে জল, ঢেউ তোলে ভাঙে পাড়ের ভেতর তোমার ভূমিকা পাঠ আঁধারে জ্যোৎ¯œায়... বিস্তারিত

অমরতার প্রত্যাশা

শাহাজাদা বসুনিয়া অবশেষে খুঁজে পেয়েছি আসল ঠিকানা, এই ঠিকানায় পুরস্কার-শাস্তি থাকে এই ঠিকানা ছাদহীন-মায়াহীন-আনন্দঘন এখানেই থাকতে হবে চিরকাল এই ঠিকানা অন্তরীণ এখানে শক্তি থাকে না, জ্ঞান উধাও হয় সীমাহীন। আসল ঠিকানায় শুয়ে... বিস্তারিত

কবিতা তাঁর প্রাণে কবিতা তাঁর ধ্যানে

রাহাত রাব্বানী আধুনিক বাংলা কাব্য সাহিত্যের জীবন্ত কিংবদন্তি কবি মহাদেব সাহা। কৈশোরের ঊষালগ্নে লেখালেখির হাতেখড়ি তাঁর। প্রেম-বিরহ, আনন্দ-বেদনা, মানুষের আশা-নিরাশা, স্বপ্ন, স্বদেশ ভাবনা, নিসর্গসহ জাগতিক জীবনের যারতীয় অনুষঙ্গকে উপজীব্য করে কবি মহাদেব... বিস্তারিত

মহাদেব সাহার কবিতা : সুতীব্র জীবনবোধ

সাইফুজ্জামান বাংলা কবিতায় কবি মহাদেব সাহা স্বতন্ত্র ধারার এক কণ্ঠস্বর। তার কবিতায় অনুভূতি, আবেগ ও জীবনের কলস্বর তীব্র। প্রেম ও প্রকৃতি যুগল বন্দি করে তিনি দীর্ঘ পথ অতিক্রম করেছেন। বেঁচে থাকার আকুলতা,... বিস্তারিত

মহাদেব সাহাকে নিবেদিত

** তোমার নাম দিলাম ** জোবায়ের মিলন তোমার নাম দিলাম ‘অঝর শ্রাবণ’ তোমার নাম দিলাম ‘বিষণœ আষাঢ়’ তোমার নাম দিলাম ‘পড়ন্ত বিকাল’ তোমার নাম দিলাম ‘একাকী মাঝরাত’- এ ছাড়া তোমাকে আর কোন... বিস্তারিত

প্রণয়সিন্ধু মন্থনের কবি মহাদেব সাহা

ফরিদ আহমদ দুলাল বাংলাদেশের কাব্যাঙ্গনে ষাটের একজন অগ্রগণ্য কবির নাম মহাদেব সাহা। কাব্যমহলে মহাদেব সাহার নামে একটা বদনাম শোনা যায়; তাঁর পরবর্তী প্রজন্মের ঠোঁটকাটা কেউ কেউ মহাদেব সাহার প্রসঙ্গ উঠলে কবির বন্ধুদের... বিস্তারিত

স্বভাবে লাজুক প্রেমাঙ্গনে সাহসী

মাকিদ হায়দার কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায় তাঁর একটি কবিতায় স্মৃতি এবং মর্মবেদনার কথা জানিয়েছেন অগণিত পাঠকদের, কবিতাটি পাঠান্তে যে কোনো পাঠকই মুহূর্তের ভেতরেই ফিরে যেতে পারেন তাঁর অতীতের কাছে। ‘চোখ বন্ধ করলে যেন... বিস্তারিত

একজন শুদ্ধ শিল্পী

মো. জাকারিয়া হোসেন বাংলা কবিতায় মহাদেব সাহার (জ. ১৯৪৪) প্রতিষ্ঠা যদিও স্বাধীনতা-উত্তরকালে তবে ষাটের দশকেই কবি হিসেবে তাঁর আবির্ভাব। ষাটের দশকে বাংলা কবিতার উর্বরতার সেই মহাজাগরণে রফিক আজাদ, নির্মলেন্দু গুণ, আব্দুল মান্নœান... বিস্তারিত

সাক্ষাৎকার > কী করে কবিতা হয় কেউ জানে না : মহাদেব সাহা

বাংলা ভাষার অন্যতম প্রধান কবি মহাদেব সাহা। বাংলাদেশের মাটি, জল আর প্রকৃতি তাঁকে কবি হতে উৎসাহিত করেছে। রক্ত মাংস, শিরা উপশিরা, হৃদয় এবং হৃৎপিণ্ড থেকে উৎসারিত নানা সৌরভে ভরপুর মহাদেব সাহার সব... বিস্তারিত

মহাদেব সাহার কবিতা

** জলের জীবন ** কত জলের জীবন জানা হলো, কত ভূগোলের বই ভাবতে ভাবতে চলেছি কোথায়; এই ভাঙাবোটে বসে চাঁদ দেখি, দেখি মেঘ কখন যে বৃষ্টি এসে তছনছ করে দেবে জলনৃত্য, মাঠ... বিস্তারিত

মহাদেব সাহার বঙ্গবন্ধু

বিভূতি ভূষণ মণ্ডল পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন জাতির ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, ওই জাতির ক্রান্তিকালে জাতিকে সংকট থেকে মুক্তির দিশা দেখিয়ে উত্তরণের পথে নিয়ে যাওয়ার জন্য ঈশ্বরের আশীর্বাদের মতো দেবদূতসদৃশ মহামানব... বিস্তারিত

মহাদেব সাহার কবিতায় চরিতচর্চা

তানিয়া তহমিনা সরকার কবিতায় চরিতচর্চা নতুন কোনো বিষয় নয়। মধ্যযুগের বেশির ভাগ আখ্যান যেমন ‘ইউসুফ-জুলেখা’, ‘শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্য’ বা বিভিন্ন মঙ্গলকাব্য বিভিন্ন চরিত্রকে নিয়েই রচিত হয়েছে। তবে এইসব কাব্যের মূল চরিত্র দেবতা বা... বিস্তারিত

দিকচিহ্ন

গোলাম কিবরিয়া পিনু তুমি যদি দুর্বল হতে থাকো, নড়াচড়া না করো, তাহলে দাঁতাল লোকেরা তোমাকে বুনোপথে টেনে নিয়ে ঝোপঝাড়ে ফেলবে। খানিক দূরের সমুদ্রও দেখতে পারবে না, যে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি পাচ্ছে! রসদ... বিস্তারিত

দূরত্বের ঘ্রাণ

শেলী সেনগুপ্তা দূরত্ব কোনো গুরুত্ব রাখে না স্পর্শ এবং অস্পর্শের মধ্যে, দৃষ্টির সামনে কিংবা অন্তরালে যেখানেই থাকো ছুঁয়ে দিতে পারি, ছোঁয়া এবং না ছোঁয়ার স্বরচিত গল্পটা একান্ত আমাদের, শুরু ও শেষ যেন... বিস্তারিত

Bhorerkagoj