র‌্যাব মহাপরিচালক : নাশকতার তথ্য নেই তবুও সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রয়েছি

আগের সংবাদ

বাংলাদেশের গর্ব, বিশ্বের বিস্ময় : জাতীয়-আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে যেভাবে ডানা মেলল স্বপ্নের পদ্মা

পরের সংবাদ

সিংড়ায় নিম্নমানের খোয়া দিয়ে রাস্তা সংস্কার : এলাকাবাসীর মানববন্ধন

প্রকাশিত: জুন ২৪, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জুন ২৪, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

সিংড়া (নাটোর) প্রতিনিধি : সিংড়া উপজেলার চৌগ্রাম-কালিগঞ্জ সড়কের সাড়ে চার কিলোমিটার রাস্তা সংস্কার কাজে নি¤œমানের উপকরণ ব্যবহার করা হচ্ছে। এছাড়া নির্ধারিত সময়ে শেষ হয়নি কাজ। নির্মাণকাজে নি¤œমানের খোয়া ব্যবহারের প্রমাণ পেয়ে উপজেলা প্রকৌশলী কাজ বা বিল সংক্রান্ত জটিলতা সৃষ্টি হলে কোনো দায়ভার নেবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন।
উপজেলা এলজিইডি কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ২০২১-২২ অর্থবছরে উপজেলার চৌগ্রাম-কালিগঞ্জ পাকা সড়কের নাটোর-বগুড়া মহাসড়কের চৌগ্রাম থেকে নিমাকদমা পর্যন্ত সাড়ে ৪ কিলোমিটার রাস্তা ২ কোটি ৭০ লাখ ৭৫ হাজার ৮৭০ টাকা ব্যয়ে সংস্কারের কার্যাদেশ পায় নাটোর সদরের মেসার্স সিনথিয়া এন্টারপ্রাইজ। এই কাজের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের মালিক জামিল হোসেন মিলন। কার্যাদেশ অনুযায়ী গত ৫ জুন কাজটি শেষ হওয়ার কথা থাকলেও যথাসময়ে শুরু না হওয়ায় সমাপ্ত হয়নি। আর কাজ শুরুর পর থেকেই নিয়মহীনভাবে তা করা হচ্ছে। সংস্কার কাজে ব্যবহার করা অধিকাংশ খোয়া অত্যন্ত নি¤œমানের ও মাটিযুক্ত।
এদিকে রাস্তা সংস্কারে নি¤œমানের মাটিযুক্ত খোয়া ব্যবহারের সত্যতা পেয়ে গত ১২ জুন কাজের আর কোনো দায়ভার বা পরবর্তী সময়ে বিল সংক্রান্ত কোনো জটিলতা হলে তার দায়ভার নেবেন না মর্মে লিখিত চিঠি দিয়েছেন এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশনী। তারপরও নি¤œমানের খোয়া দিয়ে সংস্কার কাজ চলছে।
উপজেলা প্রকৌশলী মো. হাসান আলী বলেন, তার দপ্তরের নির্দেশনা অমান্য করে খেয়ালখুশি মতো কাজ করায় সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কাজের কোনো দায়ভার অত্র দপ্তর নেবে না মর্মে লিখিত চিঠি দেয়া হয়েছে। আর ওই কাজের দায়দায়িত্ব তার দপ্তরের নেই।
এদিকে কাজে অনিয়মের প্রতিকার চেয়ে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টায় নিমাকদমা বাজার এলাকায় এ কর্মসূচি পালন করেন এলাকার শতাধিক মানুষ। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি আব্দুর রাজ্জাক খানের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন চৌগ্রাম ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বারিক, সহসভাপতি রায়হান সরদার, যুগ্ম সম্পাদক আবু বকর সিদ্দিক, ৪নং ওয়ার্ড সদস্য সাইফুল ইসলাম, শুকদেব, জর্জ মিয়া, মনোজ লাহিরী প্রমুখ। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী জামিল হোসেন মিলন দাবি করেছেন, তিনি লোকসানে কাজটি করছেন। তারপরও খারাপ জায়গাগুলো থেকে খারাপ খোয়া তুলে নিয়ে যাচ্ছেন। নাটোর এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মোহা. শহিদুল ইসলাম বলেন, কাজের মান নিয়ে আমরা তদারকি করছি। আর আপাতত সব ধরনের বিল উত্তোলন থেকে ঠিকাদারকে বিরত রাখা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়