নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস আজ

আগের সংবাদ

কালো টাকার অবাধ সুযোগ! : বিদেশে পাচার হওয়া অর্থ ফেরাতে বিরল উদ্যোগ, কর দেয়ায় নিরুৎসাহিত হবে সৎ করদাতারা

পরের সংবাদ

ঝিনাইগাতী আ.লীগের কমিটি না হওয়ায় নানা গুঞ্জন

প্রকাশিত: মে ২৯, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: মে ২৯, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

ঝিনাইগাতী (শেরপুর) প্রতিনিধি : ঝিনাইগাতীতে আবারো আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করার ষড়যন্ত্রের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় একটি স্বার্থান্বেষী মহলের বিরুদ্ধে। এ অভিযোগ উপজেলা আওয়ামী লীগের তৃণমূলের নেতাকর্মীদের। উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনকে কেন্দ্র করে স্থানীয় একটি স্বার্থান্বেষী মহল এ তৎপরতা শুরু করেছে বলে দলীয় সূত্রে জানিয়েছে।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, এবারের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে আবারো উপজেলা আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করতে সদ্য বিলুপ্ত উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম আব্দুল্লাহেল ওয়ারেজ নাইমের বিরুদ্ধে শুরু হয়েছে গভীর ষড়যন্ত্র। তবে এবার আর তাকে হত্যা করে নয়, নানা ধরনের অপবাদ দিয়ে তাকে দল থেকে সরানোর গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে ওই স্বার্থান্বেষী মহল। জানা গেছে, ৯ মে উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাকর্মীসহ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাতীয় সংসদের হুইপ বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আতিউর রহমান আতিক এমপি ও সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট চন্দন কুমার পাল পিপি উপস্থিত ছিলেন। সম্মেলনের প্রথম অধিবেশন সমাপ্তি ঘোষণা করেন। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আতিউর রহমান আতিক কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করেন। কিন্তু নতুন করে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সম্পাদকের নাম ঘোষণা না করেই সভার কাজ সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। পরবর্তীতে নেতাকর্মীর সঙ্গে পরামর্শ করে সভাপতি, সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হবে বলে জানানো হয়। কিন্তু এখনো নাম ঘোষণা করা হয়নি।
সূত্র জানায়, ঝিনাইগাতী উপজেলা থেকে বড় কোনো রাজনৈতিক দল এমপি প্রার্থী মনোনয়ন দেয়নি। ফলে যতবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছে শ্রীবরদী উপজেলা থেকে। নাইম ছাড়া এ উপজেলা থেকে আর কোনো যোগ্য প্রার্থীও নেই কোনো রাজনৈতিক দলে বললেই চলে। এ কারণে শ্রীবরদী উপজেলার এমপি প্রার্থীরা চান না নাইম মাথা উঁচু করে দাঁড়াক। এ অভিযোগ উপজেলা আওয়ামী লীগের তৃনমূল নেতাকর্মীদের। এবারের কাউন্সিলে মূল ধারার আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে নাইম ও বিশ্বজিৎ রায়কে প্যানেল দেয়া হয়েছে। সংসদ সদস্য এ কে এম ফজলুল হক চাঁনের অনুসারীদের পক্ষ থেকে প্যানেল দেয়া হয়েছে গোলাম মোস্তফা ও বেলায়েত হোসেনকে দিয়ে।
জানা গেছে, তারা দুজনই জাসদ থেকে আওয়ামী লীগে এসেছেন। এবং দলকে শক্তিশালী করতে ২০০১ সালে শিল্পপতি এস এম আব্দুল্লাহেল ওয়ারেজ নাইমকে দলে আনেন তারাই। এখন তারাই চাইছেন নাইম দল থেকে ছিটকে পড়–ক। সংসদ সদস্য এ কে এম ফজলুল হক চাঁন তার বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়টি অস্বীকার করলেও সম্প্রতি তার অনুসারী গোলাম মোস্তফা ও বেলায়েত হোসেনসহ তারা শেরপুর প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে প্রকাশ্যে আওয়ামী লীগ নেতা এস এম আব্দুল্লাহেল ওয়ারেজ নাইমের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে বক্তব্য রাখেন। এদিকে আওয়ামী লীগ নেতা এস এম আব্দুল্লাহেল ওয়ারেজ নাইমও সংবাদ সম্মেলন করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা মেনে দলের সব কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে আসছি। আমি দলীয় মনোনয়ন চাওয়ায় পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠীরা আমাকে ভালো চোখে দেখছেন না। তারা আমার বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়ে আমাকে সরিয়ে দিয়ে ঝিনাইগাতী উপজেলা আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করতে চান।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়