লাইসেন্স ছাড়াই ৭ বছর ট্রাক চালায় জসিম

আগের সংবাদ

ফাইভ-জিতে অনাগ্রহ কেন : তরঙ্গ নিলামের শর্ত ও নীতিমালা চূড়ান্ত হয়নি > ‘বুঝে-শুনে আগে বাড়তে চায় বেসরকারি অপারেটররা

পরের সংবাদ

এক ভেন্যুতেই আইপিএল!

প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৯, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ২৯, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ ডেস্ক : সারা বিশ্বে ফের করোনার প্রকোপ বাড়ছে। এর মধ্যে আইপিএল আয়োজনের কথা ভাবছে বিসিসিআই। গতবারও করোনার মধ্যেই আইপিএল মাঠে গড়িয়েছিল। চেন্নাই, মুম্বাই, আহমেদাবাদ ও দিল্লিতে ছিল ম্যাচ। কিন্তু কিছুদিন যাওয়ার পরই স্থগিত করতে হয় আসরটি। পরে দ্বিতীয়পর্ব হয় আরব আমিরাতে। এবার আর দেশের বাইরে নয় ঘরের মাঠে আইপিএল আয়োজনে বদ্ধপরিকর ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। আগামী ২৭ মার্চ থেকে শুরু হওয়ার কথা বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় এই ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট লিগটি। এবার সব ম্যাচ মুম্বাইয়ে অনুষ্ঠিত হবার কথা। পুরো টুর্নামেন্টই হবে মুম্বাই শহরে। অর্থাৎ ১০ দলের এই টুর্নামেন্ট হবে ওয়াংখেড়ে, ব্র্যাবোর্ন এবং ডিওয়াই পাতিল এই তিনি স্টেডিয়ামে। এই ৩টি স্টেডিয়াম বেছে নেয়া অন্যতম কারণ সেখানে করোনার সংক্রমণ অনেকটাই কমে গেছে। তাছাড়া এই শহরে তিন স্টেডিয়াম পাওয়ায় খেলোয়াড়দের হোটেল পরিবর্তন লাগছে না, যাতায়াতের জন্য বিমান ব্যবহারের প্রয়োজন নেই। এতে খেলোয়াড়দের করোনা আক্রান্তের ঝুঁঁকি কমবে।
প্রয়োজন পড়লে আহমেদাবাদে প্লে-অফের ম্যাচগুলো আয়োজনের পরিকল্পনা রয়েছে বিসিসিআইয়ের।
বিসিসিআইয়ের ধারণা, গত আইপিএল ভারতের ভিন্ন ভিন্ন শহরে হওয়ায় বায়ো বাবল সুরক্ষা সেভাবে দেয়া যায়নি। খেলোয়াড় ও স্টাফদের অনেকে করোনা আক্রান্ত হন। বিভিন্ন শহরে যাতায়াতের কারণেই করোনার আক্রমণে পড়তে হয়েছিল তাদের। এবার তাই এক শহরেই খেলা চালানোর পরিকল্পনা করেছেন আয়োজকরা।
যদিও এখনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি, আগামী ২০ ফেব্রুয়ারির মধ্যেই এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে বিসিসিআই। যদিও আইপিএলের তারিখগুলো এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে নিশ্চিত জানান হয়নি, তবু অনেকেই মনে করছেন সম্ভবত টুর্নামেন্টটি ২৭ মার্চ থেকে মে মাসের শেষ পর্যন্ত চলবে।
ইংল্যান্ড-নিউজিল্যান্ড প্রথম টেস্টের কয়েক দিন আগেই শেষ হতে পারে ১৫তম আইপিএল। বেন স্টোকস এবং ক্রিস ওকস ইতোমধ্যেই টুর্নামেন্ট থেকে নিজেদের নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন এবং বাটলার চোট পেয়েছেন। ক্রিকবাজের রিপোর্ট অনুসারে আইপিএল দলগুলোর কাছে একটি সংকেত রয়েছে। আসন্ন আইপিএলের শেষ পর্বের আগেই ফ্র্যাঞ্চাইজিদের ইংল্যান্ডের টেস্ট খেলোয়াড়দের ছেড়ে যেতে দিতে হবে। সেই কারণে নিলামের আগে এই বিষয়টি সব ফ্র্যাঞ্চাইজির মাথায় রয়েছে। যদিও ইংল্যান্ডের টেস্ট খেলোয়াড়রা ইসিবি থেকে সরকারিভাবে কোনো নির্দেশনা পাননি। খেলোয়াড়দের ঘনিষ্ঠ সূত্রও বলছে, আইপিএলের মাঝ পথ থেকেই খেলোয়াড়দের দেশে ফিরতে হতে পারে।
ইংল্যান্ডের ২২ জন খেলোয়াড় আইপিএলে নাম লিখিয়েছেন। তাদের মধ্যে অনেক টেস্ট খেলোয়াড়ও রয়েছে। জনি বেয়ারস্টো, মার্ক উড, ডেভিড মালান, অলি পোপ, ক্রেগ ওভারটন, স্যাম বিলিংস, ড্যান লরেন্স ইত্যাদির মতো খেলোয়াড়রা অ্যাসেজে খেলেছিলেন এবং এখন আইপিএল নিলামের তালিকায়ও রয়েছেন। এমন অবস্থায় এগুলোর মধ্যে কোন কোন নামের প্রতি ফ্র্যাঞ্চাইজিরা ঝাঁপাবেন সেটাই এখন দেখার। শোনা যাচ্ছে কোনো দলই তাদের সঙ্গে বেশি ইংল্যান্ডের খেলোয়াড়দের রাখতে চায় না, কারণ তারা যে টুর্নামেন্টের মাঝ পথ থেকেই চলে যাবেন ফলে দলের ভারসাম্য নষ্ট হবে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়