অধ্যাপক সাইদা হত্যা : গ্রেপ্তার আনারুলের ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

আগের সংবাদ

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আওয়ামী লীগের সংলাপ : নির্বাচন কমিশন গঠনে ৪ প্রস্তাব

পরের সংবাদ

ঘাট ও ফেরি সংকট : পদ্মার দুই পাড়ে আটকা শত শত যানবাহন

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৭, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১৭, ২০২২ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

সুরেশ চন্দ্র রায়, শিবালয় (মানিকগঞ্জ) থেকে : শিবালয় উপজেলার আমেরিকায় ফেরিঘাট সংকট ও ফেরি স্বল্পতার কারণে মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া এবং আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটের স্বাভাবিক ফেরি সার্ভিস। ফলে এসব ঘাটগুলোতে ফেরি পারের অপেক্ষায় রয়েছে শত শত যানবাহন। ঘাট এলাকার উভয় পাড়ের মহাসড়কে ২-৩ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে যানবাহনের দীর্ঘ লাইন রয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলা এবং পাবনা-ঈশ্বরদীসহ উত্তরাঞ্চলের ১৬টি জেলার মানুষের। ফেরি পারাপারের জন্য ঘাটে এসে তাদের ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে।
বিশেষ করে পণ্যবাহী ট্রাকগুলো ফেরি পারাপার হতে সময় লাগছে ২-৩ দিন করে। এসব যানবাহন শ্রমিকরাও দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন। এ পরিস্থিতি অব্যাহত থাকলে যে কোনো সময় আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটের ফেরি সার্ভিস বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন যানবাহন শ্রমিকরা। অতিদ্রুত এসব সমস্যা সমাধানের অনুরোধ জানিয়েছেন তারা। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা আঞ্চলিক কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ফেরি লোড-আনলোডের জন্য পদ্মা নদীর এপারে মানিকগঞ্জের পাটুরিয়াতে ৫টি ঘাটের মধ্যে ৩, ৪ ও ৫নং ঘাট সচল রয়েছে। বাকি ১ ও ২নং ঘাটের কাছে পানি কম এবং লঞ্চঘাটের কারণে এ ২টি ঘাট ব্যবহার করা যাচ্ছে না। নদীর ওপারে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়াতে ৭টি ঘাটের মধ্যে ২, ৩, ৪, ৫ ও ৭নংসহ ৫টি ঘাট সচল রয়েছে। এর মধ্যে পন্টুন না থাকায় ১নং ঘাটটি দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহার করা সম্ভব হচ্ছে না এবং ঘাটের কাছে পানি কমে যাওয়ায় প্রায় ১ মাস আগে ৬নং ঘাট বন্ধ রয়েছে। ঘাট সংকটের কারণে ফেরি লোড-আনলোডে সময় বেশি লাগছে বলে জানিয়েছেন ফেরি পরিচালকরা। পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে রোগ (বড়) ১২টি, ইউটিলিটি (ছোট) ৭টি এবং কে-টাইপ (মাঝারি) আকারের ২টিসহ মোট ২১টি ফেরি চলাচল করছিল। হঠাৎ করে গত ২৭ অক্টোবর পাটুরিয়া ঘাটের কাছে আমানত শাহ নামের একটি ফেরি দুর্ঘটনায় ডুবে যায়। এরপর কয়েক দফায় উক্ত নৌরুট থেকে রুহুল আমিন, শাহ আলী ও কেরামত আলী নামের ৩টি ফেরি মেরামতের জন্য নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ডে পাঠানো হয়েছে। এ নৌবহর থেকে ৪টি ফেরি কমে গিয়ে বর্তমানে মোট ১৬টি ফেরি চলাচল করছে। ফলে চাহিদার তুলনায় ফেরি সংকট রয়েছে।
এদিকে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি যমুনার এপারে মানিকগঞ্জের একটি এবং ওপারে পাবনার কাজিরহাটে একটিমাত্র ঘাট নির্মাণ করে এবং ২টি ফেরি দিয়ে আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটের ফেরি সার্ভিস চালু করা হয়েছে। এখান দিয়ে পাবনা-ঈশ্বরদীসহ উত্তরাঞ্চলের মানুষের যাতায়াতের খরচ কম ও সহজ হওয়ায় এসব অঞ্চলের লোকজন এ রুটটি ব্যবহার করছেন। ফেরি সার্ভিস চালু হওয়ার পর থেকেই যানবাহন এবং যাত্রীর সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে উক্ত এ রুটটি। কিন্তু আজ পর্যন্ত এখানে ফেরি এবং ঘাটের সংখ্যা বাড়ানো হয়নি। গত এক সপ্তাহ ধরে একটিমাত্র মাঝারি আকারের ফেরি দিয়ে কোনো রকম চালু রাখা হয়েছে আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে ফেরি সার্ভিস। মাঝেমধ্যে দুয়েকটি ফেরি যোগ করা হলেও তা আবার এখান থেকে অন্যত্র নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ফলে এ নৌরুটে ঘাট ও ফেরি সংকট প্রবল আকার ধারণ করেছে।
গত শনিবার আরিচা-পাটুরিয়া ঘাট এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, পণ্যবাহী ট্রাক পাটুরিয়া ঘাটের টার্মিনালে পারের অপেক্ষায় রয়েছে আর ফেরিঘাটের টার্মিনাল এলাকা থেকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের থানার মোড়ের (বিআইডব্লিউটিএ) গেট পর্যন্ত পণ্যবাহী ট্রাকের দীর্ঘলাইন দেখা গেছে।
শুক্রবার রাতে আসা ট্রাকগুলো ঘাট এলাকায় আর টার্মিনালে যেসব ট্রাক দেখা গেছে সেগুলো আরো দুই দিন আগে এসেছে ফেরি পারের উদ্দেশ্যে।
ট্রাক ড্রাইভার রজ্জব আলী জানান, ঢাকা থেকে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পাটুরিয়া ঘাটে আসি ফেরি পারের উদ্দেশ্যে। এর মধ্যে একদিন রাস্তায় কাটে। পরের দিন শুক্রবার পাটুরিয়া ট্রাক টার্মিনাল অতিবাহিত করি। শনিবার দুপুর আড়াইটায়ও ফেরি পার হতে পারিনি। কখন পার হবে তাও বলতে পারছি না।
বিআইডব্লিউটিএর উপসহকারী প্রকৌশলী মো. শহিদুল ইসলাম জানান, দৌলতদিয়া ঘাটে পানি কম থাকায় ২টি ঘাট বন্ধ রয়েছে। আর পাটুরিয়া ঘাটের একই অবস্থা। আর কাজিরহাটে জায়গা সমস্যার কারণে নতুন করে ঘাট বানানো সম্ভব হচ্ছে না বলেও জানান তিনি।
বিআইডব্লিউটিসির আরিচা ঘাটের ম্যানেজার আবু আব্দুল্লাহ রনি জানান, এখানে শুরু থেকেই ফেরি ও ঘাটের সংকট রয়েছে। এ ব্যাপারে আমরা আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানিয়েছি। আশা করছি, খুব তাড়াতাড়ি এ সমস্যার সমাধান হবে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়