এবার রাজধানীতে গাড়িচাপায় সাইকেল আরোহী নিহত

আগের সংবাদ

প্রতিকারহীন মৃত্যুর মিছিল!

পরের সংবাদ

করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন : শ্রমিকদের রক্ষায় পোশাক কারখানায় নতুন নির্দেশনা

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৫, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ৫, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : মহামারি করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’ থেকে শ্রমিকদের রক্ষায় পৃথক শিফটের ব্যবস্থা, কর্মক্ষেত্রে সার্বক্ষণিক মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করাসহ ১৭টি নির্দেশনা দিয়েছে তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ। সম্প্রতি এ নির্দেশনা দেয়া হয়।
বিজিএমইএর সচিব মো. ফয়জুর রহমান স্বাক্ষরিত নির্দেশনায় বলা হয়, কর্মক্ষেত্রে শ্রমিক-কর্মচারীদের সার্বক্ষণিক মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করতে সদস্য কারখানাগুলোকে বলা হয়েছে। এছাড়া সব ধরনের সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয় ও অন্যান্য লোকসমাগম এড়িয়ে চলতে শ্রমিকদের পরামর্শ দেয়া হয়েছে।
নির্দেশনায় বলা হয়েছে, পোশাক কারখানায় উৎপাদন শুরু ও ছুটির সময় শ্রমিকদের ভিড় এড়ানোর জন্য ভিন্ন ভিন্ন সময় নির্ধারণে জোর দিতে হবে। তাছাড়া শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাচলের ব্যবস্থা করা দরকার। সম্ভব হলে বিভিন্ন বিভাগের কর্মঘণ্টার জন্য আলাদা শিফটের ব্যবস্থা করা যেতে পারে। কারখানায় প্রবেশের সময় শ্রমিকদের শরীরের তাপমাত্রা পরিমাপ এবং প্রয়োজনে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করতে হবে।
এছাড়া কারখানায় প্রবেশের সময় প্রধান ফটকসংলগ্ন এলাকায় শ্রমিকদের হাত ধোয়ার জন্য পর্যাপ্ত সাবান-পানির ব্যবস্থা এবং কাজের জায়গায় ভিড় এড়িয়ে চলার জন্য শ্রমিকদের উৎসাহিত করতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে নির্দেশনায়। দুপুরের খাবারের সময়সহ অন্যান্য বিরতিতে বিভিন্ন বিভাগের শ্রমিকদের আলাদা আলাদা সময় নির্ধারণ করতেও বলা হয়েছে।
বিজিএমইএর নির্দেশনায় আরো বলা হয়, করোনা সংক্রমণের লক্ষণ থাকলে সংশ্লিষ্ট কর্মীকে আইসোলেশনে রাখতে হবে। তার নমুনা পরীক্ষার জন্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সমন্বয় করে সহায়তা দেয়ার ব্যবস্থা নিতে হবে। পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ হলে রোগীকে আইসোলেশনের পাশাপাশি সংস্পর্শে আসা অন্যদের কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা করতে হবে কারখানা কর্তৃপক্ষকে।
ওই নির্দেশনায় বলা হয়েছে, সম্মিলিত প্রচেষ্টায় তৈরি পোশাকশিল্পে করোনার সংক্রমণের মাত্রা ছিল খুবই সামান্য। সরকারের স্বাস্থ্য সুরক্ষা গাইডলাইন ও হেলথ প্রটোকল যথাযথভাবে অনুসরণ করে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হয়েছিল। আগের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে কার্যকর ব্যবস্থা নিলে করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনও নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হবে।
প্রসঙ্গত, দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত হওয়া করোনার রূপান্তরিত ধরন ওমিক্রন নিয়ে বিশ্ববাসীকে আতঙ্কিত না হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) শীর্ষ বিজ্ঞানী সৌম্য স্বামীনাথান।
পাশাপাশি তিনি বলেছেন, বিশ্ববাসীর উচিত এ ধরনটিকে মোকাবিলার প্রস্তুতি নেয়া।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়