লজিক প্রকল্প : রৌমারীতে সোলার পাম্প স্থাপন শুরু

আগের সংবাদ

চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় কী প্রস্তুতি : বিভিন্ন দেশের সঙ্গে অগ্রাধিকার ও মুক্তবাণিজ্য চুক্তি হবে > ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে

পরের সংবাদ

সংসদে আলোচনা : দেশে জামায়াতের পুনরুত্থানের শঙ্কা মেননের

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৬, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২৬, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও ঢাকা-৮ আসনের সংসদ সদস্য রাশেদ খান মেনন বলেছেন, আজ ধর্মভিত্তিক রাজনীতির সঙ্গে আপস বাংলাদেশে জামায়াতের পুনরুত্থান ঘটাবে কিনা বলা যায় না। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন বাংলাদেশ কোনো ধর্মভিত্তিক রাষ্ট্র হবে না। হবে অসা¤প্রদায়িক রাষ্ট্র। কিন্তু দক্ষিণ এশিয়ার সাম্প্রতিক ঘটনাবলি সেখানে সংশয় সৃষ্টি করছে। রাইফেলের নল কখন ঘুরে যাবে জানি না। গতকাল বৃহস্পতিবার একাদশ জাতীয় সংসদের পঞ্চদশ অধিবেশনে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে জাতীয় সংসদে বিশেষ আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ আশঙ্কা প্রকাশ করেন।
মেনন বলেন, স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছরে গণতান্ত্রিক আকাক্সক্ষা যেমনি পর্যুদস্ত হয়েছে তেমনি গণতান্ত্রিক আন্দোলনের বিজয়ও হয়েছে। এ সময়ে দেখেছি যুদ্ধাপরাধীদের রাজনৈতিক পুনর্বাসন এবং একইসঙ্গে পরবর্তী সময়ে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার। জিয়াউর রহমানের সামরিক শাসন ধর্মনিরপেক্ষতাকে উড়িয়ে দিয়েছিল। ফিরিয়ে এনেছিল ধর্মভিত্তিক রাজনীতি। ইসলামকে রাষ্ট্রধর্ম ঘোষণা করেন সামরিক শাসক এরশাদ। আমাদের দুর্ভাগ্য যে ইসলাম আমাদের দেশের মানুষের প্রাণের ধর্ম কিন্তু সেই ধর্মকে ব্যবহার করা হয় রাজনৈতিক প্রয়োজনে। তারা রাষ্ট্রকে চ্যালেঞ্জ করছে, সংবিধানকে চ্যালেঞ্জ করছে। জাতীয় সংগীত, জাতীয় পতাকাকে চ্যালেঞ্জ করছে। তাই দেশে জামায়াতের পুনরুত্থান ঘটবে কিনা বলা যায় না। ধর্মকে ইস্যু বানিয়ে দেশকে অস্থিতিশীল না করার আহ্বান জানিয়ে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, বাংলাদেশ ধর্মীয় স¤প্রীতি ও নিরপেক্ষতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। এটাকে ইস্যু করে এই সমাজকে অস্থিতিশীল করবেন না। ধর্মকে যারা ইস্যু করছেন, তারা দেশের জন্য কাজ করছেন না। দেশকে অস্থিতিশীল করছেন। এটা সবার জন্য অমঙ্গল বয়ে আনবে। গতকাল বৃহস্পতিবার স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে জাতীয় সংসদে বিশেষ আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।
সাবেক এ মন্ত্রী বলেন, যারা ধর্মীয় স¤প্রীতি নষ্ট করে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিন। কারণ কিছু মানুষের কুকীর্তির জন্য সমস্ত জাতি তার গøানি বহন করতে পারে না। চট্টগ্রামের হাটহাজারী এলাকা থেকে নির্বাচিত এই এমপি বলেন, হাটহাজারী নিয়ে অনেক কথা বলা হয়। হেফাজত নিয়ে অনেক কথা হয়। সেই হাটহাজারীতে কালীমন্দির ও হাটহাজারী মাদ্রাসা দুটি পাশাপাশি অবস্থিত। মাঝে একটি দেয়াল। গত ১০০ বছরেও এখানে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। তিনি বলেন, গণতন্ত্রের মূল হচ্ছে নির্বাচন। সেই নির্বাচনকে সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ করতে হবে। এর জন্য যে প্রতিষ্ঠানগুলোকে শক্তিশালী করা দরকার সেগুলো শক্তিশালী করতে হবে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়