লজিক প্রকল্প : রৌমারীতে সোলার পাম্প স্থাপন শুরু

আগের সংবাদ

চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় কী প্রস্তুতি : বিভিন্ন দেশের সঙ্গে অগ্রাধিকার ও মুক্তবাণিজ্য চুক্তি হবে > ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে

পরের সংবাদ

শারীরিক অবস্থার অবনতি : জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম এভারকেয়ারে

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৬, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২৬, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটেছে। নিউমোনিয়ার সমস্যা বেড়ে যাওয়ায় তার শ্বাসকষ্ট হচ্ছে। ফলে তাকে হাই ডিপেন্ডেন্সি ইউনিটে (এইচডিইউ) স্থানান্তর করা হয়েছে। তার ছেলে বর্ষণ ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, তার বাবা বর্তমানে রাজধানীর বসুন্ধরার এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। বর্তমানে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।
চিকিৎসকরা ভ্যান্টিলেশন দিতে চেয়েছিলেন, তবে পরিবারের সদস্যরা রাজি হননি। পরে রফিকুল ইসলামকে অ্যান্টিবায়োটিক দিয়েছেন চিকিৎসকরা। এখন অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়েছে।
বর্ষণ ইসলাম আরো জানান, গত শনিবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) থেকে একটি টেস্ট করাতে এভারকেয়ার হাসপাতালে নেয়া হলে বেশি সমস্যা দেখা দেয়। ভালো করতে গিয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে। নিউমোনিয়ার অবস্থাও এখন ক্রিটিক্যাল। চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেয়া হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, দিল্লি যেতে রাজি নন তিনি। এভারকেয়ারেও আসতে চাননি। বিএসএমএমইউ হাসপাতালেই চিকিৎসা নিতে চেয়েছিলেন বাবা।
এর আগে গত ৭ অক্টোবর রাজধানীর বিএসএমএমইউ ভর্তি হন জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তার ফুসফুসে পানি ধরা পড়ে। তখন থেকে তিনি সেখানেই বক্ষব্যাধি (রেসপিরেটরি মেডিসিন) বিভাগের অধ্যাপক ডা. এ কে এম মোশাররফ হোসেনের অধীনে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন।
উল্লেখ্য, ৮৭ বছর বয়সি এই ভাষা বিজ্ঞানী ও লেখক ভাষা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছেন। সেই সময়ের দুর্লভ আলোকচিত্রও ধারণ করেন তিনি। বাঙালির মুক্তির সংগ্রামের এই প্রত্যক্ষ সাক্ষী সেসব ইতিহাস গ্রন্থিত করেছেন তার লেখায়। শহীদ বুদ্ধিজীবীদের নিয়ে প্রথম গ্রন্থ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষের ইতিহাসের প্রথম গ্রন্থটিসহ প্রায় ৩০টি বই তার হাত দিয়ে এসেছে। ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টসের সাবেক উপাচার্য রফিকুল ইসলাম এক সময় বাংলা একাডেমির মহাপরিচালকের দায়িত্ব পালন করেছেন।
নজরুল গবেষক অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রথম নজরুল অধ্যাপক এবং নজরুল গবেষণা কেন্দ্রের প্রথম পরিচালক ছিলেন।
২০১৮ সালে সরকার তাকে জাতীয় অধ্যাপক করে। স্বাধীনতা ও একুশে পদকপ্রাপ্ত শিক্ষাবিদ, গবেষক ও লেখক ড. রফিকুল ইসলাম বেশ কয়েকটি শীর্ষ প্রতিষ্ঠানে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০২১ সালের ১৮ মে সরকার তাকে তিন বছরের জন্য বাংলা একাডেমির সভাপতির দায়িত্ব দেয়।
এ বছর মাতৃভাষা সংরক্ষণ, পুনরুজ্জীবন, বিকাশ, চর্চা, প্রচার-প্রসারে অবদান রাখায় ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা পদক’ পান তিনি।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়