লজিক প্রকল্প : রৌমারীতে সোলার পাম্প স্থাপন শুরু

আগের সংবাদ

চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় কী প্রস্তুতি : বিভিন্ন দেশের সঙ্গে অগ্রাধিকার ও মুক্তবাণিজ্য চুক্তি হবে > ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে

পরের সংবাদ

চট্টগ্রাম টেস্ট : সাগরিকার পিচ নিয়ে ধোঁয়াশা

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৬, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২৬, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : পাকিস্তানের কাছে টি-টোয়েন্টি সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর আজ সাদা পোশাকের মাঠে নামবে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সকাল ১০টায় শুরু হবে বাংলাদেশ-পাকিস্তান প্রথম টেস্ট ম্যাচটি। চেনা কন্ডিশনে পাকিস্তানকে রুখে দিতে মরিয়া মুমিনুল বাহিনী। তারুণ্য ও অভিজ্ঞতার মিশেলে তৈরি লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা পাকিস্তান বধের যাবতীয় কলাকৌশল রপ্ত করেছেন। টি-টোয়েন্টি সিরিজে পাকিস্তানের বিপক্ষে কোনো প্রতিরোধ গড়তে পারেনি টাইগাররা। টেস্টে যে বাংলাদেশ দল সহজে ছাড় দেবে না, তা পাকিস্তান ভালো করেই জানে। টেস্টে পাকিস্তানকে বাংলাদেশ কঠিন পরীক্ষায় ফেলতে পারবে কিনা? এ প্রশ্নের জবাবে গতকাল বাবর আজম বলেন, কন্ডিশনটা পার্থক্য গড়েছে। এটা তাদের ঘরের মাঠ। তাদের (বাংলাদেশ) কখনো হালকাভাবে দেখার সুযোগ নেই। আসলে কোনো দলকেই হালকাভাবে দেখার সুযোগ নেই। (বাংলাদেশ) নিয়মিত দলটা না পেলেও তাদের তরুণেরা তো আছে। তারা কিন্তু এই কন্ডিশনেই খেলে উঠে এসেছে। এখানকার কন্ডিশনটা কঠিন। মানিয়ে নিতে একটু সময় লাগে। উইকেটে গিয়ে সময় কাটাতে হয়। আমার মতে, অবশ্যই কঠিন পরীক্ষায় ফেলতে পারে।
চট্টগ্রামের উইকেটের ব্যাপারে বাবরের ধোঁয়াশার কারণ জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের উইকেটের ঘাস। একদিন আগেই চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের উইকেট ছিল সবুজে মোড়ানো। আউটফিল্ড থেকে উইকেট আলাদা করা কঠিনই ছিল। গতকাল ঘাস কিছুটা ছেঁটে ফেলা হয়েছে। আজ চট্টগ্রাম টেস্ট শুরুর আগেও হয়তো আরেক দফা ছাঁটাই হবে মাঠের ঘাস। তাতে উইকেটের চরিত্র ব্যাটিং সহায়কই হওয়ার কথা। গতকাল বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক বলেন, কোনো সন্দেহ নেই যে সিরিজটি চ্যালেঞ্জিং হবে। তবে আমাদের দক্ষতায় আমরা ভালো করার ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী।
দলের সেরা তিন খেলোয়াড় না থাকায় নতুন রূপে মাঠে নামছে বাংলাদেশ। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাওয়া হ্যামস্ট্রিং ইনজুরি থেকে সুস্থ হতে না পারায় প্রথম টেস্টের দলে নেই সাকিব আল হাসান। ইনজুরির কারণে দলের বাইরে তামিম ইকবালও। আর আনুষ্ঠানিকভাবে টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।
পাকিস্তানের বিপক্ষে এ পর্যন্ত ১০টি টেস্ট খেলেছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে একটি ড্র বাদে সবগুলোই জিতেছে পাকিস্তান। সর্বশেষ ২০১৫ সালে বাংলাদেশ সফরে দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলতে আসা সিরিজে টেস্টটি ড্র হয়েছিল। ড্র হওয়া টেস্টে ২০৬ রান করেছিলেন তামিম। যা টেস্টে বাংলাদেশের জন্য সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংস। এছাড়া ওই ম্যাচে ১৫০ রান করেছিলেন ইমরুল কায়েস। উদ্বোধনী জুটিতে ৩১২ রানের রেকর্ড জুটি গড়েন তামিম ও ইমরুল।
পাকিস্তানের বিপক্ষে শেষ টি-টোয়েন্টিতে অভিষেক হওয়া শহীদুল ইসলামকে শেষ মুহূর্তে টেস্ট স্কোয়াডে যুক্ত করা হয়েছে। তার সঙ্গে আরো এক পেসার খালেদ আহমেদকেও দলভুক্ত করেছে টিম ম্যানেজমেন্ট।
পাকিস্তানের বিপক্ষে শুরুতে ১৬ জনের স্কোয়াড ঘোষণা করেছিল বাংলাদেশ। পুরোপুরি ফিট না হওয়ায় সাকিব আল হাসান ছিটকে যান। তার জায়গায় নতুন কাউকে নেয়া হয়নি। পেসার খালেদ ও শহীদুল স্কোয়াডে না থাকলেও শুরু থেকে দলের সঙ্গে ছিলেন। নিয়মিত অনুশীলন করছেন। নেটে বোলিং করছেন। গতকাল তারা চূড়ান্তভাবে স্কোয়াডে যুক্ত হলেন।
ফলে চট্টগ্রাম টেস্টে বাংলাদেশের স্কোয়াড হলো ১৭ জনের। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বলেছেন, ‘আমাদের দলে পেসারের ইনজুরি নিয়ে শঙ্কা আছে। তাসকিন ও শরিফুল ইনজুরির কারণে নেই। তাদের জায়গায় অন্য কাউকে লাগবে। খালেদ ও শহীদুল খেলার জন্য পুরোপুরি তৈরি।’
নিজেদের শেষ আটটি ম্যাচেই হেরেছে বাংলাদেশ। স্বাভাবিকভাবেই মাঠের বাইরের সমালোচনায় বিদ্ধ লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। খোদ বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নাজমুল হাসান পাপনও খোলামেলা সমালোচনা করেছেন দলের ক্রিকেটারদের। তবে এসবে কান দিতে নারাজ টেস্ট দলের অধিনায়ক মুমিনুল হক। তার মতে, এর আগেও এমন পরিস্থিতি দেখেছে বাংলাদেশের ক্রিকেট। যেখান থেকে বের হয়ে আসারও নজির রয়েছে। তাই বাইরের কথায় কান না দিয়ে নিজেদের কাজে মনোযোগ দেয়াই শ্রেয় মুমিনুলের কাছে। কেননা মানুষের মুখ বন্ধ করার এখতিয়ার তার নেই। এই সময়টায় মানুষ মানসিকভাবে দুর্বল হয়ে থাকে। কারণ এই সময়টায় আমরা বাইরের কথা বেশি শুনি। আমি চেষ্টা করছি যে, সবাই যেন বাইরের কথায় কান না দিয়ে নিজের কাজের প্রতি বেশি মনোযোগ দেয়। আল্টিমেটলি নিজেদের ব্যাক করার জন্য নিজেদের কাজেই মন দেয়া উচিত।
প্রথম টেস্টে বাংলাদেশ স্কোয়াড : মুমিনুল হক (অধিনায়ক), সাদমান ইসলাম, সাইফ হাসান, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুশফিকুর রহিম, লিটন কুমার দাস, নুরুল হাসান সোহান, মেহেদি হাসান মিরাজ, নাইম হাসান, তাইজুল ইসলাম, এবাদত হোসেন চৌধুরী, আবু জায়েদ রাহি, ইয়াসির আলি রাব্বি, মাহমুদুল হাসান জয়, রেজাউর রহমান রাজা, সৈয়দ খালেদ আহমেদ ও শহিদুল ইসলাম।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়