জাবির ভর্তি পরীক্ষা : প্রক্সি দিতে গিয়ে বুয়েট শিক্ষার্থী কারাগারে

আগের সংবাদ

এশিয়ান আর্চারিতে পদক খরা ঘোচাল বাংলাদেশ

পরের সংবাদ

জামালদের বিদায় করে ফাইনালে শ্রীলঙ্কা

প্রকাশিত: নভেম্বর ১৭, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ১৭, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : শ্রীলঙ্কায় চার জাতি ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনালে ওঠা হলো না বাংলাদেশের। গতকাল রাতে কলম্বোর রেসকোর্স মাঠে স্বাগতিকদের বিপক্ষে ২-১ গোলে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিয়েছেন লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। চার জাতির মাহিন্দ্র রাজাপাকসে ট্রফির ফাইনাল খেলতে বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ড্র। শেষ মুহূর্তের গোলে ২-১ ব্যবধানে হারায় বাংলাদেশকে বিদায় নিতে হয়েছে। টুর্নামেন্টের অন্য ফাইনালিস্ট সিশেলস। শুক্রবার ফাইনালে মুখোমুখি হবে দল দুটি। ভারি বর্ষণে রেসকোর্স মাঠ এমনিতেই ভারী। এর ওপর দ্বিতীয় ম্যাচ হওয়ায় অত্যন্ত কঠিন অবস্থা মাঠের। সেই মাঠে বাংলাদেশের বিপক্ষে শুরুতে আক্রমণ করতে থাকে শ্রীলঙ্কা। কয়েকটি গোলের সুযোগ তৈরি করে। ২৬ মিনিটে ওয়াসেক রাজিক বক্সে জটলার মধ্যে প্লেসিং করেন। ভারী মাঠে বলের গতিপ্রকৃতি বুঝতে পারেননি গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকো।
পিছিয়ে পড়ার পর বাংলাদেশ ম্যাচে ফেরার দারুণ সুযোগ পায়। ম্যাচ শুরুর ৩ মিনিটে বাংলাদেশ প্রথম সুযোগ পায়। কিন্তু রহমতের লম্বা থ্রো-ইন থেকে তপুর হেড লঙ্কান গোলকিপার ঝাঁপিয়ে পড়ে তালুবন্দি করলে এগিয়ে যেতে পারেননি লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। কিন্তু এরপর থেকে বাংলাদেশ যেন নিজেরাই চাপ নিয়ে নেয়। সেই সুযোগে স্বাগতিকরা কিছুটা তেড়েফুঁড়ে খেলতে থাকে।
পঞ্চম মিনিটে স্বাগতিকরা সুযোগ পেয়েছিল। কিন্তু সাসাঙ্গা দিলহারার প্রচেষ্টা দূরের পোস্ট দিয়ে যায়। ২৩ মিনিটে আহমেদ ওয়াসিম রাজিক ডান প্রান্ত দিয়ে বক্সে ঢুকে লক্ষ্যে শট নিলেও ক্রসবারের ওপর দিয়ে গেলে স্বাগতিক দর্শকদের হতাশ হতে হয়। তবে এর ২ মিনিট পর তারা ঠিকই লিড নেয়। বক্সের বেশ বাইরে থেকে শ্রীলঙ্কার এক খেলোয়াড়ের শট জিকো ঝাঁপিয়ে পড়ে ফেরালেও গøাভসে জমাতে পারেননি। সামনে থাকা ফরোয়ার্ড ওয়াসিম রাজিক কিছুটা স্লাইড শটে জাল খুঁজে নেন। এ নিয়ে জার্মান প্রবাসী ফরোয়ার্ডের গোলসংখ্যা ৬টি।
এক গোলে পিছিয়ে পড়া ৪-৩-৩ ফরমেশনে নামা বাংলাদেশ কিছুটা খোলস থেকে বেরিয়ে এসে খেলার চেষ্টা করে। ১০ জনের শ্রীলঙ্কার ওপর চড়াও হয়ে খেলতে থাকে বাংলাদেশ। কিন্তু সমতায় ফিরতে পারেনি। প্রথমার্ধের শেষের দিকে সতীর্থের কর্নার থেকে তপুর হেড গোলকিপার সুজন পেরেরা কোনোমতে প্রতিহত করে দলকে ম্যাচে রাখেন। জামাল ভূঁইয়ার কর্নার থেকে বাংলাদেশের আক্রমণ লঙ্কান ডিফেন্ডার গোললাইন থেকে সেভ করতে গিয়ে হ্যান্ডবল করেন। রেফারি পেনাল্টির পাশাপাশি লাল কার্ড দেখান। বাংলাদেশ দলের পেনাল্টি স্পেশালিস্ট তপু বর্মণের নেয়া পেনাল্টি শট পোস্টের অনেক উপর দিয়ে যায়।
ভারী মাঠে শ্রীলঙ্কান ফুটবলাররা কয়েকবার আহত হয়েছেন। লঙ্কান দুই ফুটবলার মাঠ ছেড়েছেন আহত হয়ে। বাংলাদেশের ফুটবলাররাও নিজেদের ভারসাম্য রাখতে হিমশিম খেয়েছেন। ৩ ম্যাচের ১টিতে জিতে ও ২টিতে ড্র করে ৫ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে রয়েছে সিশেলস। সমান ম্যাচ থেকে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার পয়েন্ট ৪। কিন্তু হেড টু হেডে বাংলাদেশকে পেছনে ফেলে স্বাগতিকরা নাম লেখায় ফাইনালে।
অবশ্য স্বাগতিকদের বিপক্ষে ম্যাচের ৯০ মিনিট পর্যন্ত ১-১ গোলের সমতা নিয়ে ফাইনালে যাওয়ার স্বপ্ন বাঁচিয়ে রেখেছিল জামাল-সাদরা। কিন্তু ৯০ মিনিটে বক্সের মধ্যে হ্যান্ডবল হওয়ায় পেনাল্টি পায় শ্রীলঙ্কা। পেনাল্টি থেকে গোল করে শ্রীলঙ্কাকে ফাইনালে পৌঁছে দেন ওয়াসিম রাজিক। এর ফলে বাংলাদেশের বিদায় নিশ্চিত হয়ে যায়।
এর আগে লঙ্কানদের বিপক্ষে বাংলাদেশ ম্যাচের ২৫ মিনিটেই পিছিয়ে পড়ে। এ সময় শ্রীলঙ্কার ওয়াসিম রাজিক গোল করে এগিয়ে নেন দলকে। তার গোলে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় স্বাগতিকরা।
বিরতির পর ৭১ মিনিটে সমতা ফেরান বাংলাদেশের জুয়েল রানা। এরপর শেষ মুহূর্তে পেনাল্টি থেকে গোল করে শ্রীলঙ্কাকে ফাইনালের টিকিট পাইয়ে দেন রাজিক।
বাংলাদেশ একাদশ : আনিসুর রহমান জিকো, সুশান্ত ত্রিপুরা, টুটুল হোসেন বাদশা, তপু বর্মণ, রহমত মিয়া, জামাল ভূঁইয়া, আতিকুর রহমান ফাহাদ, মোহাম্মদ হৃদয়, মোহাম্মদ ইব্রাহিম, রাকিব হোসেন ও সুমন রেজা।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়