ভিসি এয়ার মার্শাল নজরুল : ওবিই হচ্ছে জ্ঞানগর্ভ ও চিন্তা উদ্দীপক কর্মশালা

আগের সংবাদ

টানা ৪ জয়ে সেমিতে পাকিস্তান

পরের সংবাদ

ডিএমপি কমিশনার : স্মার্টকার্ড লাইসেন্সের প্রাপ্তি স্বীকার রসিদ থাকলে মামলা নয়

প্রকাশিত: নভেম্বর ২, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, স্মার্টকার্ড লাইসেন্সের প্রাপ্তি স্বীকার রসিদ থাকলে গাড়িচালকের বিরুদ্ধে সার্জেন্ট মামলা দিতে পারবে না। এ বিষয়ে ডিএমপির নির্দেশনাও রয়েছে। এরপরও যদি পুলিশ মামলা করে তাহলে অভিযোগের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয়া হবে। গতকাল সোমবার দুপুরে রাজধানীর মিরপুরে বিআরটিএ কার্যালয়ে নিজের লাইসেন্সের বায়োমেট্রিক দিতে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা জানান তিনি।
রাস্তায় ট্রাফিক পুলিশের মামলা ও হয়রানির বিষয়ে অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে ডিএমপি কমিশনার বলেন, লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালানো যাবে না। সেক্ষেত্রে পুলিশ আইনগত ব্যবস্থা নেবে। তবে চালকদের কাছে স্মার্টকার্ড লাইসেন্সের প্রাপ্তি স্বীকার রসিদ থাকলে সার্জেন্ট মামলা দিতে পারবে না। ডিএমপির পক্ষ থেকে এ সংক্রান্ত নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে। তারপরও কোনো ট্রাফিক সার্জেন্ট কাউকে জরিমানা কিংবা মামলা করলে তথ্যপ্রমাণের ভিত্তিতে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
লাইসেন্স না থাকার যে জটিলতা রয়েছে তার দায় বিআরটিএ কর্তৃপক্ষের, চালকদের নয় জানিয়ে তিনি বলেন, চালকদের এ বিষয়ে ছাড় দেয়া হচ্ছে। আর এ সুযোগে কেউ যদি তাকে জরিমানা করে থাকে সেটা অন্যায়। আমরা সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেব। বিআরটিএতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো সদস্য দালালির সঙ্গে জড়িত থাকলে তাকে ‘বাড়ি পাঠিয়ে দেয়া হবে’ বলেও হুঁশিয়ারি দেন কমিশনার।
এদিকে গতকাল আকস্মিক বিআরটিএ কার্যালয় পরিদর্শন করেছেন সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সিনিয়র সচিব নজরুল ইসলাম। তিনি কার্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগ ঘুরে দেখেন। একপর্যায়ে বিআরটিএর রেকর্ড রুমে গেলে মাজেদ নামে এক আনসার সদস্যকে সেখানে দেখতে পান। তার গতিবিধি সন্দেহজনক হওয়ায় তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন সিনিয়র সচিব। মাজেদের অসংলগ্ন কথাবার্তায় দালালির বিষয়টি ধরা পড়ে। সঙ্গে সঙ্গে তাকে ক্লোজ করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বিআরটিএর আনসার কমান্ডার নূর মোহাম্মদকে নির্দেশ দেন সিনিয়র সচিব।
অন্যদিকে দালালদের তৎপরতা প্রতিরোধে বিআরটিএ কার্যালয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতও অভিযান চালিয়েছে। এ অভিযানে একজনকে জেল ও দুজনকে জরিমানা করা হয়েছে। বিআরটিএকে দালালমুক্ত করতে প্রতিনিয়ত অভিযান চালানো হচ্ছে বলে জানিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফখরুল ইসলাম বলেন, দালালিকালে তিনজনকে আটক করা হয়েছে। রাজু ও সোহরাব হোসেন নামে দুজনকে পাঁচ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। অপর একজনকে এক মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। এ সময় দালালদের সহায়তা ছাড়া সেবাগ্রহীতাদের সশরীরে বিআরটিএ কার্যালয়ে এসে নিজেদের কাজ করার আহ্বান জানান তিনি।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়