চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা : চালকের সহকারী শাহীরুল এখন কোটিপতি

আগের সংবাদ

তিস্তার তাণ্ডবে লালমনিরহাটে পথে বসেছে হাজারো পরিবার

পরের সংবাদ

দেশে এসে লন্ডনের রাস্তা দেখবেন প্রবাসীরা > দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে চায় কুচক্রী মহল : প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত: অক্টোবর ২৫, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ২৫, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : দেশব্যাপী একটি শক্তিশালী যোগাযোগ নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠায় আওয়ামী লীগ সরকার কাজ করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু কুচক্রী মহল ইচ্ছাকৃতভাবে কিছু ঘটনা ঘটিয়ে বহির্বিশ্বে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে চায়। তাই এদের সম্পর্কে দেশবাসীকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন সরকারপ্রধান। গতকাল রবিবার গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে পটুয়াখালীর পায়রা সেতু উদ্বোধন এবং ঢাকা-সিলেট-তামাবিল মহাসড়ক ৬ লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, যোগাযোগ ব্যবস্থার আধুনিকায়নের মাধ্যমেই আর্থ-সামাজিক পরিবর্তন ত্বরান্বিত করা সম্ভব। এ সময় দেশবাসীকে সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, একটি মহল সুপরিকল্পিতভাবে অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা ঘটিয়ে অপপ্রচার করে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে। বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, যোগাযোগের নেটওয়ার্ক শক্তিশালী করার মাধ্যমে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে এবং বাংলাদেশকে আর কেউ পেছনে টানতে পারবে না। এর মাঝেই কিছু কিছু ঘটনা মাঝে মাঝে ঘটছে, ইচ্ছাকৃতভাবে ঘটনানো হচ্ছে সেটা আপনারা নিজেরাও টের পান। যাতে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়। সেই সঙ্গে প্রচারও চালানো হয়। আমরা যতই উন্নতি করি, ভালো কাজ করি একটা শ্রেণিই আছে বাংলাদেশের বদনাম করতেই তারা ব্যস্ত।
শেখ হাসিনা বলেন, এ দেশের স্বাভাবিক গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকুক তারা কি তা চায় না? একটা অস্বাভাবিক পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে তাদের একটু কদর বাড়ে। সে জন্য উন্নয়নটা তারা দেখে না বরং ধ্বংসই সব সময় করতে চায়, এটাই হচ্ছে বাস্তবতা। এ ব্যাপারে দেশবাসীকে আরো সতর্ক থাকতে হবে।
তিনি বলেন, বরিশাল এবং পটুয়াখালীর সংযোগ সৃষ্টিকারী হবে এই পায়রা সেতু। আর নদীর নামে একটা সেতু হলে নদীটারও একটা পরিচয় পাওয়া যাবে। যে কারণে এই নামটাই আমি পছন্দ করেছি। আর পায়রা শান্তির প্রতীক। কাজেই, এই সেতু হওয়ার পর এই অঞ্চলের মানুষের যে আর্থিক উন্নতি হবে তার ফলে মানুষের মনে একটা শান্তি আসবে এবং মানুষের আর্থসামাজিক উন্নয়নের ফলে তারা ভালোভাবে বাঁচতে পারবে, সেই সুযোগ সৃষ্টি হবে।
শেখ হাসিনা আরো বলেন, খাল, বিল, নদী-নালার এই বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চল জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হতে যাচ্ছে। কাজেই, এই অঞ্চলের আর্থসামাজিক উন্নতি যত দ্রুত আমরা করতে পারি ততই এ অঞ্চলের মানুষের জীবনমান উন্নয়নের সহায়ক হবে। ফলে, এর একটা বিরাট প্রভাব দেশের অর্থনীতিতে পড়বে এবং দেশটাকে আমরা আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে পারব।
সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুর কাদের, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউসসহ সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সময় অনুষ্ঠানের গণভবন প্রান্তে উপস্থিত ছিলেন। লেবুখালী পায়রা সেতুর টোল প্লাজার দক্ষিণ প্রান্তে ভার্চুয়াল উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সংযুক্ত ছিলেন পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক, সংসদ সদস্য মো. শাহজাহান মিয়া, সংসদ সদস্য আ স ম ফিরোজ, সংসদ সদস্য এস এম শাহজাদা, সংসদ সদস্য পংকজ দেবনাথ, সংসদ সদস্য মো. মহিববুর রহমান, সংসদ সদস্য নাসরিন জাহান রতœা, সংসদ সদস্য কাজী কানিজ সুলতানা হেলেন, সংসদ সদস্য এডভোকেট সৈয়দা রুবিনা আক্তার মীরা, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট আফজাল হোসেন, বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ, শেখ হাসিনা সেনানিবাস কমান্ডার জিওসি ও এরিয়া কমান্ডার মেজর জেনারেল আবুল কালাম মো. জিয়াউর রহমান, বিভাগীয় কমিশনার মো. সাইফুল হাসান বাদল, বরিশাল রেঞ্জের ডিআইজি এস এম আক্তারুজ্জামান, সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী মো. আব্দুস সবুর, পবিপ্রবি ভিসি ড. স্বদেশ চন্দ্র সামন্ত, পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. খলিলুর রহমান প্রমুখ।
দেশে এসে লন্ডনের রাস্তা দেখবেন প্রবাসীরা : ঢাকা-সিলেট করিডোর সড়কের উন্নয়ন কাজ ও সিলেট-তামাবিল মহাসড়ক ৬ লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্পের নির্মাণ কাজের

উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, সিলেটকে উন্নত বিভাগ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। আর দেশের অর্থনীতিতে প্রবাসীদের ভূমিকা আমরা সব সময় স্মরণ করি। এ সময় প্রধানমন্ত্রী দেশের আরো বেশ কয়েকটি বড় প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, সারাদেশে যোগাযোগ নেটওয়ার্ক গড়ে তুলছি। সিলেট আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও রেলস্টেশন আমরাই করে দিয়েছি। এবার সিলেট-ঢাকা মহাসড়ক দৃষ্টিনন্দন ও আধুনিক সড়ক সুন্দরভাবে করে দিচ্ছি। প্রবাসীরা দেশে এসে দেখবেন, এটা দেশের রাস্তা, নাকি লন্ডনের রাস্তা। দেশেই লন্ডনের রাস্তা দেখতে পারবেন প্রবাসীরা। যোগাযোগটা হলে দেশ অনেকটা এগিয়ে যাবে বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, বাংলাদেশকে আর কেউ পিছিয়ে রাখতে পারবে না। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে, জাতির পিতার স্বপ্ন আমরা বাস্তবায়ন করব।
সিলেট থেকে সরাসরি অনুষ্ঠানে যুক্ত ছিলেন সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান হাবিব, সংসদ সদস্য মিলাদ গাজি, সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার খলিলুর রহমান, জেলা প্রশাসক এম কাজি এমদাদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন আহমদ, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নাসির উদ্দিন খান, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক জাকির হোসেন প্রমুখ।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়