চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা : চালকের সহকারী শাহীরুল এখন কোটিপতি

আগের সংবাদ

তিস্তার তাণ্ডবে লালমনিরহাটে পথে বসেছে হাজারো পরিবার

পরের সংবাদ

কবি খালেদ হোসাইন : শামসুর রাহমানের কবিতায় ভাস্বর জীবন ও জনতা

প্রকাশিত: অক্টোবর ২৫, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ২৫, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : জীবন ও জনতা শামসুর রাহমানের কবিতায় নমিত এবং সোচ্চার ভাষাবিন্যাসে ভাস্বর হয়েছে উল্লেখ করে কবি খালেদ হোসাইন বলেন, শামসুর রাহমান তার কাব্যিক ঊন্মেষলগ্ন থেকেই সমসাময়িকদের মধ্যে ছিলেন স্বতন্ত্র। হৃদয়ের আকুতির সঙ্গে পরিপার্শ্বের কোলাহল তার কবিতায় অপরূপ ব্যঞ্জনা লাভ করেছে। একান্ত পাঠ-উপযোগিতার পাশাপাশি তার কবিতা হয়ে উঠেছে সর্বত্রগামী।
বাংলা সাহিত্যের অন্যতম প্রধান কবি শামসুর রহমানের ৯৩তম জন্মদিন উদযাপন উপলক্ষে গতকাল রবিবার সকালে একাডেমির কবি শামসুর রাহমান সেমিনার কক্ষে বাংলা একাডেমি আয়োজিত একক বক্তৃতা অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট গবেষক ও কবি অধ্যাপক খালেদ হোসাইন এসব কথা বলেন। বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি মুহম্মদ নূরুল হুদার সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে শামসুর রাহমানের কবিতা থেকে পাঠ করেন বাচিকশিল্পী ডালিয়া আহমেদ। স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলা একাডেমির সচিব এ এইচ এম লোকমান।
অনুষ্ঠানের একক বক্তা আরো বলেন, দেশীয় এবং পাশ্চাত্য পুরাণের অনন্য ব্যবহারে কবিতাকে তিনি বৈচিত্র্যপূর্ণ করে তুলেছেন। একই সঙ্গে অসম সাহসে ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ এবং শোষণমুক্ত সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে দশকের পর দশক তিনি কাব্যিক লড়াই চালিয়ে গেছেন। কবিতাকে তিনি জনমানুষের হৃদয়ের প্রিয় বিষয়ে পরিণত করেছেন এবং প্রতিরোধের নন্দন কলায় সব অসুন্দরের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর প্রেরণা দিয়ে চলেছেন। সভাপতির বক্তব্যে কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা বলেন, শামসুর রাহমান আমৃত্যু পঙ্কে পদ্ম ফোটানোর সাধনা করেছেন। তার কবিতা বাঙালি জাতিসত্তার কাব্যিক ভাষ্য নির্মাণে ভূমিকা রেখেছেন। পাকিস্তান আমল থেকে বাংলা ভাষা, বাঙালি জাতিসত্তা ও সংস্কৃতির বিরুদ্ধে সব ষড়যন্ত্রকে তিনি তার কাব্যিক হাতিয়ার দিয়ে মোকাবিলা করেছেন। বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং এরপর এ দেশের সব গণতান্ত্রিক সংগ্রামে তার কবিতা আমাদের মধ্যে উজ্জীবক-অস্ত্র হিসেবে কাজ করেছে।
তিনি বলেন, কবি শামসুর রাহমান গেরিলা পদ্ধতিতে আজীবন বাংলা, বাঙালিত্ব এবং মানবতার সংগ্রামে নিজেকে যুক্ত রেখেছেন এবং

ক্রমশ হয়ে উঠেছেন চিরজীবিত স্বাধীনতার কবি। স্বাগত বক্তব্যে এ এইচ এম লোকমান বলেন, শামসুর রাহমান ছিলেন বর্ণাঢ্য কবিজীবনের অধিকারী। তিনি এবং তার প্রজন্ম আমাদের কবিতাকে আধুনিকতার গভীর ধারার সঙ্গে যুক্ত করেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বাংলা একাডেমির সহপরিচালক কাজী রোমানা আহমেদ সোমা।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়