চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা : চালকের সহকারী শাহীরুল এখন কোটিপতি

আগের সংবাদ

তিস্তার তাণ্ডবে লালমনিরহাটে পথে বসেছে হাজারো পরিবার

পরের সংবাদ

অর্থ পাচার মামলা : রুলের জবাব না পেয়ে অসন্তুষ্ট হাইকোর্ট

প্রকাশিত: অক্টোবর ২৫, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ২৫, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক : দীর্ঘ আট মাসেও ক্যাসিনোকাণ্ডে যুবলীগের বহিষ্কৃত নেতা ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটসহ সাতজনের বিরুদ্ধে অর্থ পাচার মামলায় জারি করা রুলের জবাব না পাওয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। গতকাল রবিবার বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ অসন্তোষ প্রকাশ করেন।
আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী আব্দুল কাইয়ুম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক। এর আগে গত ১৭ অক্টোবর যুবলীগের বহিষ্কৃত নেতা ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট, খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া ও বহিষ্কৃত কমিশনার মোমিনুল হক সাঈদের বিরুদ্ধে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।
গতকাল ওই প্রতিবেদনের ওপর শুনানির শুরুতে হাইকোর্ট এ মামলার বাকি ১৩ বিবাদী জবাব দাখিল না করায় অসন্তোষ প্রকাশ করেন। বিবাদীরা হলেন- অর্থ মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব, অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সচিব, পররাষ্ট্র, স্বরাষ্ট্র ও আইন মন্ত্রণালয় সচিব, দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর, ডেপুটি গভর্নর, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান এবং যৌথ মূলধন কোম্পানি ও ফার্মসমূহের পরিদপ্তরের রেজিস্ট্রার। পরে আদালত আগামী ২১ নভেম্বর রুলের জবাব দাখিলের জন্য দিন ঠিক করে দেন আদালত।
আদালত রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীকে উদ্দেশ করে বলেন, কেন আদালতের আদেশ প্রতিপালন করা হয়নি? শুধু পুলিশ আদেশ প্রতিপালন করেছে, বাকিরা কোথায়? আমরা মামলাটি শুনানির দিন ঠিক করব। এটা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আদালত আরো বলেন, এটা ঠিক নয়; আমরা কোর্ট একটা আদেশ দিলাম। আমরা রুল দিয়েছি গত ২৮ ফেব্রুয়ারি। প্রায় এক বছর হয়ে গেল, রুলের জবাবটাই দাখিল করা হলো না। আর কি বলবো এ নিয়ে- কিছু বলার ভাষা খুঁজে পাচ্ছি না। আদালত বলেন, আমরা সবাই ঘুমিয়ে পড়েছি। এ বিষয়টি নিয়ে আমাদের ভাবতে হবে। শুধু আসলাম-গেলাম, তাতো না। দেশ ও জাতির জন্য কিছু করা দরকার, করতে হবে। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য আপনাকেই করতে হবে। এটা নিয়ে শুধু সরকার করবে তা তো নয়, সরকারকে সহযোগিতা করার দায়িত্ব আমাদের।
এর আগে বিদেশে অর্থ পাচারে জড়িতদের খুঁজে বের করতে নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৭ অক্টোবর পুলিশের আইজির প্রতিবেদনটি হাইকোর্টে আসে। প্রতিবেদন বলা হয়েছে, পাচার হওয়া বিপুল পরিমাণ এ অর্থ উদ্ধারের কাজ করছে বিএফআইইউ।
ঢাকা দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত নেতা ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটসহ সাতজনের বিরুদ্ধে অর্থ পাচারের প্রমাণ পেয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশের গোয়েন্দা সংস্থা সিআইডি। প্রতিবেদনে নাম আসা অন্যরা হলেন- খালিদ মাহমুদ ভূঁইয়া, এনামুল হক আরমান, রাজীব হোসেন রানা, জামাল ভাটারা, মোমিনুল হক সাঈদ ও শাজাহান বাবলু।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়