টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সফল পাঁচ অধিনায়ক : তাইফ রহমান রাফি

আগের সংবাদ

সড়কে নেই ‘ডিজিটাল’ ছোঁয়া

পরের সংবাদ

পাক-ভারত দ্বৈরথ

প্রকাশিত: অক্টোবর ২৪, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ২৪, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কাগজ ডেস্ক : ক্রিকেটের দুই চিরপ্রতিদ্ব›দ্বী ভারত ও পাকিস্তান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি লড়াইয়ে মাঠে নামছে। ওল্ড ট্রাফোর্ডের ওয়ানডে বিশ্বকাপের পর প্রায় আড়াই বছর পর দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে আজ বাংলাদেশ সময় রাত ৮ টায় মাঠে নামবে দুই দল। দীর্ঘ সময় দুই দল মাঠের লড়াইয়ে না থাকলেও মেতেছিল বাকযুদ্ধে। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) প্রধান কোহলিদের এগিয়ে রেখে বিশ্বকাপ শিরোপা জয়ীর রূপে দেখছেন। অন্যদিকে ভারতকে হারালে পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের পুরস্কৃত করবেন বলে জানিয়েছেন দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। এর আগে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দুই দলের মুখোমুখি পাঁচ লড়াইয়ের একটিতেও জিততে পারেনি পাকিস্তান। শুধু সংক্ষিপ্ত সংস্করণে নয়, ওয়ানডে বিশ্বকাপেও ভারতে বিপক্ষে জয়ের মুখ দেখেনি পাকিস্তান।
বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে স্মৃতির সবটায় বিষাদে ভরা পাকিস্তানের। কারণ ওয়ানডে কিংবা টি-টোয়েন্টি কোনো বিশ্বকাপেই চিরপ্রতিদ্ব›দ্বী ভারতকে হারাতে পারেনি ইমরান খানের দেশ। রাজনৈতিক দ্ব›েদ্ব দুই দলের মধ্য দীর্ঘদিন হচ্ছে না দ্বিপক্ষীয় সিরিজও। তবে বিশ্বকাপে না চাইলেও পরস্পরের মুখোমুখি হতে হয় দুই দলকে। শেষ বার দুই দলের দেখা হয়েছিল ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ওয়ানডে বিশ্বকাপে। সে ম্যাচে ভারত জয় পেয়েছিল ৮৯ রানে। আর টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দুই প্রতিদ্ব›দ্বীর শেষ দেখা ২০১৬ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ষষ্ঠ আসরে। সেই ম্যাচে পাকিস্তানকে ভারত কলকাতার ইডেন গার্ডেন মাঠে হারায় ৬ উইকেটের ব্যবধানে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দুই দলের প্রথম দেখা অবশ্য প্রথম আসরেই। দক্ষিণ আফ্রিকায় ২০০৭ সালে ফাইনাল ম্যাচে দুই প্রতিদ্ব›দ্বীর লড়াইয়ে শিরোপা জিতে নেয় ভারত। তবে ওই আসরে ফাইনালে যাওয়ার আগে দুই দলের দেখা হয়েছিল গ্রুপ পর্বের ম্যাচে। তবে সে ম্যাচটি জিততে পারেনি কোনো দল। দুই দল রান সমতায় ম্যাচ শেষ করেন। বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বাকি দুইটি হার ২০১২ সালে শ্রীলঙ্কার মাটিতে ও ২০১৪ সালে বাংলাদেশের মাটিতে। তবে আইসিসির বড় আসরে ভারতের বিপক্ষে যে পাকিস্তান একেবারে ব্যর্থ তাও নয়। ২০১৭ সালে ইংল্যান্ডের মাটিতে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে ভারতে ১৮০ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়ে শিরোপা জিতে নেয় পাকিস্তান। তবে এবার বাবর আজমদের সামনে একমাত্র লক্ষ্য টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ভারতকে হারিয়ে দীর্ঘদিনের বিষাদ ভরা গল্পের সমাপ্তি টানা। আর কোহলিরা চাইবে পাকিস্তানের বিপক্ষে বিশ্বকাপে অপরাজিত থাকার রেকর্ড জিঁইয়ে রাখতে।
এদিকে ভারতকে হারাতে পারলেই বড় অঙ্কের বোনাস দেয়ার কথা জানিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। যদি বাবররা ভারতকে হারায়, তাহলে তাদের ম্যাচ ফির ৫০ শতাংশ বোনাস দেয়া হবে। কেন্দ্রীয় চুক্তির একটি শর্ত অনুযায়ী ১ লাখ ৭০ হাজার রুপি। একজন খেলোয়াড়ের বর্তমান ম্যাচ ফি ৩ লাখ ৩৮ হাজার ২৫০ রুপি। ভারতকে হারাতে পারলে তারা পাবে ৫ লাখের বেশি রুপি। অন্যদিকে ২০০৯ সালের পর দ্বিতীয় বার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ট্রফি হাতে নিলে ম্যাচ ফির ৩০০ শতাংশ বোনাস দেয়া হবে। এবারের শিরোপা জয়ী দলকে ১৬ লাখ ডলার পুরস্কার দেয়ার ঘোষণা করেছে আইসিসি। স্কোয়াডের প্রত্যেক খেলোয়াড়কে ভাগ করে দেয়া হবে এই অর্থ।
এদিকে বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলির মতে, এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিতবে তার দেশ। এক ক্রিকেট টক শোতে আলাপকালে গাঙ্গুলি বলেন, ‘ভারত এবার খুব শক্তিশালী দল। আমাদের অনেক প্রতিভাবান ক্রিকেটার আছে বলে বিশ্বকাপের দাবিদার আমরা। হ্যাঁ, প্রতিবার বিশ্বকাপ জেতা সম্ভব নয়। কিন্তু এবার আমাদের সম্ভাবনা আছে প্রথম আসরের মতো।’ পাকিস্তানের বিপক্ষে হাইভোল্টেজ ম্যাচ নিয়ে বিসিসিআই সভাপতি বলেন, ‘আইসিসি টুর্নামেন্টে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ভারত-পাকিস্তান একে অপরের মুখোমুখি আগেও হয়েছে। তবে এ দুটি দলের ম্যাচ আয়োজন করা চাট্টিখানি কথা নয়।’ নিজের অভিজ্ঞতার জানাতে গিয়ে সৌরভ বলছিলেন, ‘২০১৬ সালে আমি যখন ক্রিকেট এসোসিয়েশন অব বেঙ্গলের (ক্যাব) সভাপতি ছিলাম, তখন ইডেনে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ আমরা আয়োজন করেছিলাম। ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে টিকেটের চাহিদা থাকে প্রচুর।’
অন্যদিকে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে শুধু সম্প্রচার স্বত্ব বিক্রয় থেকে হাজার কোটি টাকা লাভের আশা করছেন সম্প্রচারের অনুমতি পাওয়া ব্রডকাস্ট চ্যানেলগুলো। সবচেয়ে উত্তেজনা আর রোমাঞ্চে ভরপুর এই ম্যাচের সাক্ষী হতে টিকেটের পেছনে লাখ টাকা দিতেও কার্পণ্য করছেন না অনেকে। এই ম্যাচকে কেন্দ্র করে বিজ্ঞাপনের বাজারদরও আকাশচুম্বী। স্টার স্পোর্টস এই ম্যাচের স¤প্রচারকারী। সংস্থার পক্ষ থেকে বিজ্ঞাপনের যে দর ঠিক করা হয়েছে তা অতীতের সব রেকর্ড ভাঙতে চলেছে। ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ চলাকালে বিজ্ঞাপনের জন্য প্রতি ১০ সেকেন্ডে ২৫ থেকে ৩০ লাখ টাকা ধার্য করেছে স¤প্রচারকারী সংস্থা। তাতে করে এই দিনে বিজ্ঞাপনের জন্য ৯০০ কোটি টাকা লাভের মুখ দেখার আশা স¤প্রচারকারী সংস্থার। তালিকায় আরো রয়েছে ব্রডকাস্টার ও আইসিসির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ স্পন্সররাও। অনলাইন প্ল্যাটফর্মে লাইভ স্ট্রিমিংয়ে বিজ্ঞাপনের জন্য ২৭৫ কোটি টাকা লাভ হচ্ছে সংস্থার। এছাড়া কো প্রেজেন্টিং স্পন্সরশিপ বিক্রি হয়েছে ৬০ থেকে ৭০ কোটি টাকায়। আর এসোসিয়েট স্পন্সরশিপের জন্য ৩০ থেকে ৩৫ কোটি টাকার প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। মানে বিজ্ঞাপন থেকে যে আয় হবে তা নিশ্চিতভাবে ভেঙে দেবে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের যাবতীয় রেকর্ড।
এদিকে ভারতকে হারানোর মিশনে চূড়ান্ত করা হয়েছে ১২ জনের দল। পিসিবি তাদের টুইটার অ্যাকাউন্টে এই সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করেন। পাকিস্তানের স্কোয়াড : বাবর আজম (অধিনায়ক), শাদাব খান (সহঅধিনায়ক), আসিফ আলী, ফখর জামান, হায়দার আলী, হারিস রউফ, হাসান আলী, ইমাদ ওয়াসিম, মোহাম্মদ হাফিজ, মোহাম্মদ রিজওয়ান, শাহীন শাহ আফ্রিদি, শোয়েব মালিক।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়