সারাদেশে পূজামণ্ডপে হামলা : চাঁদপুরে সংঘর্ষে নিহত ৩

আগের সংবাদ

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের টার্গেট কী? প্রথম ম্যাচে মাহমুদউল্লাহ-সাকিবের মাঠে নামা নিয়ে দোটানা

পরের সংবাদ

সিরাজগঞ্জে মহাসড়কে ৩০ কিলোমিটার যানজট : ভোগান্তিতে যাত্রী ও চালকরা

প্রকাশিত: অক্টোবর ১৫, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ১৫, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

হেলাল উদ্দিন, সিরাজগঞ্জ থেকে : সিরাজগঞ্জের বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম সংযোগ মহাসড়কসহ হাটিকুমরুল গোলচত্বর থেকে ৩টি রুটে প্রায় ৩০ কিলোমিটার জুড়ে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে। বিকল্প সড়ক হিসেবে সিরাজগঞ্জ শহরে প্রবেশের বিভিন্ন সড়কেও যানবাহন ঢুকে পড়ায় চরম দুর্ভোগ সৃষ্টি হচ্ছে।
স্থানীয় সূত্র জানায়, মঙ্গলবার বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে জরাজীর্ণ নলকা সেতুর সংস্কারকাজ শুরু করলে যানজটের তীব্রতা বাড়তে থাকে। দিনভর থেমে থেমে যানজট থাকলেও বিকালে তা বেড়ে যায়।
গতকাল বুধবার দিনগত রাতে যানজটের তীব্রতা আরো বাড়ে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম মহাসড়কের সয়দাবাদ থেকে হাটিকুমরুল গোলচত্বর পর্যন্ত ২৫ কিলোমিটার, হাটিকুমরুল গোলচত্বর থেকে ভূঁইয়াগাতী পর্যন্ত ১০ কিলোমিটার ও হাটিকুমরুল গোলচত্বর থেকে রাজশাহী রুটের নাঈমুড়ী বাজার পর্যন্ত ১০ কিলোমিটার যানজট ছড়িয়ে পড়ে।
সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ কার্যালয় এবং স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ১৯৮৮ সালে সিরাজগঞ্জ-বগুড়া আঞ্চলিক সড়কের ফুলজোড় নদীর ওপর নলকা সেতু নির্মাণ করা হয়। ১৯৯৮ সালে আঞ্চলিক এ সড়ক মহাসড়কে পরিণত হলেও এ সেতুটির কোনো পরিবর্তন বা পরিবর্ধন করা হয়নি। ১৯৯৮ সালে বঙ্গবন্ধু সেতু উদ্বোধনের পর থেকে এ সেতু দিয়েই উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের ২৩ জেলার যানবাহন চলাচল করছে। এ কারণে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে সেতুটি একেবারেই জরাজীর্ণ হয়ে পড়ায় সংস্কারকাজ শুরু করা হয়। এ কাজ চলায় সেতুর এক পাশ দিয়ে যানবাহন চলাচল করছে। একই সঙ্গে মহাসড়কটিতে উন্নয়ন কাজ চলমান থাকায় যানবাহনের ধীরগতির কারণে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে।
যানজটে আটকে পড়া যাত্রী সবুজ ইসলাম বলেন, আমার ৫০ বছর বয়সে এত যানজট আগে কখনো দেখি নাই। বাসে বসে থাকতে থাকতে জীবন শেষ হয়ে যাচ্ছে। ঢাকায় ডাক্তার দেখাতে যাচ্ছি। ঢাকায় যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে বের হয়েছিলাম।
হাটিকুমরুল হাইওয়ে পুলিশের ট্রাফিক পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম বলেন, নলকা সেতুটির অবস্থা খুবই খারাপ। সেতুর দুই পাশে বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। সেতুর উপরেও রয়েছে খানাখন্দ। তাই এই সেতুটি সংস্কারকাজ চলতে থাকায় একমুখী যান চলাচলের কারণে মহাসড়কে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। এছাড়া মহাসড়কে উন্নয়ন কাজ চলমান থাকায় বেশ কিছুদিন ধরে যানজট চলছে।
হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ট্রাফিক সার্জেন্ট ফয়সাল আহমেদ বলেন, নলকা সেতুর কারণে চরম দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে যাত্রীদের। হাটিকুমরুল গোলচত্বর ছাড়িয়ে যানজট ভূঁইয়াগাতী বাজার পর্যন্ত ছড়িয়ে গেছে। আমরা যানজট দূর করার চেষ্টা করছি।
সিরাজগঞ্জ জেলা ট্রাফিক পরিদর্শক সালেকুজ্জামান সালেক বলেন, নলকা সেতুতে সংস্কারকাজ শুরু করেছে সড়ক বিভাগ। এ কারণেও যানজটের তীব্রতা বাড়ছে। তবে যানজট নিরসনে ট্রাফিক পুলিশ কাজ করছে।
সিরাজগঞ্জ সওজ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী দিদারুল আলম জানান, সংস্কারকাজ শুরু হওয়ার পর সেতুটির মাঝামাঝি পশ্চিমাংশের উপরে বেশ কিছু গর্ত পাওয়া গেছে। যে কারণে এসব স্থানে স্টিলের পাটাতন দিয়ে সেতুর সংস্কারকাজ শুরু করা হয়েছে। ইতোমধ্যে অনেকটাই শেষ করে আনা হয়েছে। সেতুটির সংস্কার কাজ শেষ করে আশপাশের সড়ক মেরামত করতে আরো ২-৩ দিন সময় লাগবে। তিনি আরো বলেন, বর্তমানে ঝুঁকিপূর্ণ নলকা সেতুর উপরের কার্পেটিংয়ের কাজ শেষ হয়েছে। এখন মহাসড়কের বেশ কিছু স্থানে গর্তগুলোর কাজ চলছে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়