সারাদেশে পূজামণ্ডপে হামলা : চাঁদপুরে সংঘর্ষে নিহত ৩

আগের সংবাদ

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের টার্গেট কী? প্রথম ম্যাচে মাহমুদউল্লাহ-সাকিবের মাঠে নামা নিয়ে দোটানা

পরের সংবাদ

বরিশাল বিসিকের মূল সড়কের বেহাল দশা

প্রকাশিত: অক্টোবর ১৫, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ১৫, ২০২১ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

এম কে রানা, বরিশাল থেকে : বরিশাল নগরীর শিল্প এলাকা বলা হয় কাউনিয়াকে। আর সেই শিল্পনগরীতে প্রবেশের প্রধান সড়কটির বেহাল দশায় প্রতিনিয়ত নানামুখী সমস্যায় পড়তে হচ্ছে শিল্প কারখানার পণ্য আনা-নেয়ার কাজে ব্যবহৃত যানবাহন এবং পথচারীদের। এছাড়া খানাখন্দে ভরা সড়কটিতে প্রতিদিনই কোনো না কোনো দুর্ঘটনা ঘটছে। দীর্ঘদিন এ সড়কটি মেরামত না হওয়ায় এমন অবস্থা হয়েছে বলে মনে করছেন শিল্পকারখানার মালিক ও স্থানীয়রা।
সূত্রে জানা গেছে, ১৯৬০ সালে বরিশাল নগরীর কাউনিয়ায় ১৩০.৬১ একর জমিতে বিসিক শিল্পনগরী প্রতিষ্ঠিত হয়। দীর্ঘ বছর কেটে গেলেও অপর্যাপ্ত বিদ্যুৎ ব্যবস্থা, বেহাল সড়ক, অবকাঠামোগত অপর্যাপ্ততা, জলাবদ্ধতা, ড্রেনেজ অব্যবস্থাপনা, গ্যাস সংযোগ ব্যবস্থা এবং নিরাপত্তা বেষ্টনী না থাকায় উৎপাদনমুখী শিল্পকারখানা খুব একটা গড়ে ওঠেনি। তবে গত এক দশকে পাল্টাতে থাকে বিসিক শিল্পনগরীর চিত্র। বিশেষ করে পায়রা সমুদ্রবন্দর স্থাপন ও পদ্মা সেতু নির্মাণকে কেন্দ্র করে বহুমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠান শিল্পনগরীতে গড়ে তুলেছেন কারখানা।
বিসিক শিল্পনগরী সূত্রে জানা গেছে, ২০১৪ সালে তৎকালীন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বরিশাল বিসিক নগরী পরিদর্শনে এসে পায়রা বন্দর এবং পদ্মা সেতুর বিষয়ে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। যার ধারাবাহিকতায় ২০১৫ সালে বিসিক শিল্পনগরীর উন্নয়নের জন্য একটি প্রকল্প প্রস্তাবনা দেয়া হয় এবং ২০১৮ সালে বিসিক শিল্পনগরীর উন্নয়নে ৫২ কোটি ২০ লাখ টাকার এক প্রকল্প অনুমোদন হয়। অনুমোদনকৃত অর্থের ৭০ ভাগ অনুন্নত পটের জন্য বরাদ্দকৃত। আর ৩০ ভাগ অবকাঠামোগত উন্নয়ন কাজের জন্য। সে মোতাবেক গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে বিসিকের উন্নয়ন কাজ শুরু হয়। যার মধ্যে রয়েছে ১০ হাজার ৫০০ ফুট সড়ক সংস্কার। যা ১৬ ফুট বিশিষ্ট পিচ ঢালাই হবে। এছাড়া সড়কের দুই পাশে আড়াই ফুট করে ৫ ফুট বিশিষ্ট ১৭ হাজার ৫০০ ফুট ড্রেন নির্মাণ এবং বিসিকের এলাকা জুড়ে নিরাপত্তা বেষ্টনী নির্মাণ। যা এখনো চলমান রয়েছে। এছাড়া অনুন্নত প্লটগুলো বালু ফেলে তা ব্যবহার উপযোগী করে তোলা হয়েছে। যা খুব শিগগিরই আগ্রহী শিল্পোক্তাদের মধ্যে বিধি অনুযায়ী বিতরণ বা হস্তান্তর করা হবে।
তবে বিসিক শিল্পনগরীতে প্রবেশের মূল সড়কটির বেহাল দশা শিল্প মালিকদের চিন্তায় ফেলে দিয়েছে। কেননা উৎপাদনমুখী শিল্প কারখানাগুলোতে প্রতিনিয়ত পণ্য আনা নেয়া করা হয়। কিন্তু খানাখন্দে ভরা সড়কটিতে প্রায়ই দুর্ঘটনায় পড়তে হয় বিভিন্ন যানবাহনকে। এছাড়া এ সড়কটি দিয়ে যাতায়াতকারী সাধারণ মানুষও পড়ছে ভোগান্তিতে। বিশেষ করে ছোট ছোট যানবাহন চলাচল করা দায় হয়ে পড়েছে। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সড়কটি নিয়ে অনেকেই কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হচ্ছেন।
বিসিকের এক শিল্প মালিক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, বরিশাল সিটি করপোরেশনের আওতায় মাত্র আধাকিলোমিটার সড়কটি অবহেলায় অযতেœ ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়ছে। বিসিকের পণ্য আনা নেয়ার কাজে ব্যবহৃত এক পিকআপ চালক জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার তিনি পিকআপ ভর্তি পণ্য নিয়ে বিসিকে যাওয়ার সময় হঠাৎই সড়কে গর্তে আটকে যায় চাকা। পরে স্থানীয় ও পথচারীদের সহায়তায় দীর্ঘ দুই ঘণ্টা পর গাড়িটি উঠাতে সক্ষম হন।
বরিশাল বিসিকের উপ-মহাব্যবস্থাক মো. জালিস মাহমুদ বলেন, বিসিকের উন্নয়নকাজ চলমান রয়েছে। ইতোমধ্যে দেশের নামকরা বিভিন্ন শিল্পপ্রতিষ্ঠান এখানে তাদের কারখানা স্থাপনে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। তাই এ সড়কটি দ্রুত সংস্কার করা প্রয়োজন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়