করোনা দূরে যাক স্বামীরা মুক্তি পাক

মঙ্গলবার, ২৮ এপ্রিল ২০২০

জাহান পন্না কিমি

সেহেরি খাওয়া শেষ করলাম। আলহামদুলিল্লাহ। বেসিনে থালা বাসন রাখতে গিয়ে একটা বিষয় মাথায় এলো। এই করোনাকালে ফেসবুকে বাংলাদেশের স্বামীরা ঘরের কাজ করার প্যারা নিয়ে এ যাবৎকালে যত স্ট্যাটাস দিয়েছে, আর কোনো পারিবারিক ইস্যুতে এমন একাট্টা তাদের কোনো দিনও হতে দেখিনি।

আসুন মিলিয়ে নেই, কতটুকু করছেন তারা?

ঘর মোছা? তাও আপনাকে ঝাড়ু দিয়ে দিতে হবে। মোছা বলতে তো জীবাণুনাশক মিশ্রিত পানিতে (তাও রেডি করে দিতে হবে) মফ ভিজিয়ে ঠেলে নেয়া। কোনা কানছির ময়লা যেমনটা তেমনই। রান্না শেষ করে আপনি বালতি নিয়ে নামবেন বাকিটা সাফ করতে।

থালা-বাসন মাজা? নিজের প্লেট, মগ, চামচসহ তাৎক্ষণিক প্রয়োজনীয় বাসন এই তো! রান্নার বড় বড় হাঁড়ি, পোড়া লাগা কড়াই, দুধের পোড়া পাতিল সে তো কল ছেড়ে ভিজিয়ে রেখে এসেই খালাস। আপনি আছেন না!

কাপড় ধোয়া? আলাদা রঙের কাপড় আলাদা পাত্রে ভিজিয়ে দেবেন। হালকা কেচে সাবানটা ছাড়িয়ে না চেপেই তাওয়াল রোলে গুঁজে রাখাই তো! পানি ঝরানো, নেড়ে দেয়ার ধারে কাছেও নেই। আপনিতো একটু পরে গোসলে গেলে দেখবেনই এবং বাকি কাজটাও করে নেবেন নিশ্চয়ই!

বাথরুম ক্লিনিং? ফ্লোর ক্লিনার ছড়িয়ে দিন। হারপিক ব্রাশ করে রেখে আসুন। তিনি এবার একটু ব্রাশ ঘষে ফ্লাশ মারবেন। আর ফ্লোরে মফ মেরে পানি ঢেলে দিবেন। ব্যস হয়ে গেল! এবার আপনি ওডোনিল রাখুন, এয়ার ফ্রেসনার স্প্রে করুন, টিস্যু রাখুন, সোপ কেস থেকে শুরু করে প্রতিটি সারফেস ক্লিন করুন, গুছিয়ে রাখুন। এগুলো তিনি ছোঁবেনও না। আগে এবং পরে বৌতো আছেই…!

এবার আসুন রান্নায় সহযোগিতা। ধরুন সবজি কাটতে দিলেন। দেখবেন সব সবজি গোল্লা গোল্লা চোখ করে আপনার দিকে তাকিয়ে আছে। শাক বাছতে দিলেন। ধুতে গিয়ে দেখবেন আধা হাত লম্বা চার খানা চুল। বলবেন কিছু? আপনার ইজ্জত নিয়ে টান দিবে, বলবে ওটা বৌয়েরই চুল। ঘাস, লতা, পাতা, কেঁচো থাকাটাও অস্বাভাবিক না।

পেঁয়াজ কাটতে দিলেন। চপার বোর্ডের ওপর খোসাসহ চার টুকরা করে ফেলে রাখবে। কাটাকাটিতে যখন ফেইল; বললেন- মাছ ভাজাটা উল্টাও। নন স্টিক প্যানেও মাছ লেগে যাবে। যখন ফিরে তাকাবেন দেখবেন দশ পিস মাছের মধ্যে চার পিস ভাঙা। বিরক্ত হয়ে বললেন- থাক রাখো, যাও দেড় পট চাল ধুয়ে দাও। বলক উঠতে উঠতে দেখবেন তিন পট চালের ভাত ধরে এমন পাতিলও দেড় পট ভাতে উপচে পড়ছে। আপনি যা বোঝার বুঝে যাবেন। পাতিল বদলে বড়টায় ঢালবেন। আর ওভেনে গরম করে দুই দিন ধরে বাসি ভাত খাবেন।

এ রকম হাজার অত্যাচারে আপনি যখন নিজের চুল ছিঁড়বেন তখন সরকার সাধারণ ছুটি বাড়ানোর ঘোষণা দিলে দলবেঁধে স্বামীরা পোস্ট দেবেন-

‘স্ত্রীর কারাগার থেকে স্বামীদের মুক্তি মেলেনি, পরবর্তী শুনানি ৫ মে।’

ওহে স্বামীরা, একবার ভাবুন তো এসব স্ত্রী ঘরের চার দেয়ালের ভেতরের সব কাজ সামলে, বাচ্চাদের স্কুল-কোচিং-টিচার-আর্ট-গান সামলে, বাজার করে, ইউটিলিটি মিটিয়ে, আত্মীয়ের খবর রেখে, বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরে, আড্ডার ছবি ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে, এক্স বয় ফ্রেন্ডের কাছে আপনার অবহেলার জ্বালাময় করুণ বকবকানি সেরে, আপনার ভাই-ভাবীদের সঙ্গে তেলেসমাতিতে জিতে, আপনারই মাকে পাশ কাটিয়ে, নিজের মাকে নিয়ে বিদেশ ঘুরতে যাওয়ার আগের দিনও জিটিভিতে কাহানি ঘর ঘরকা দেখতে ভোলে না।

বলি, লাগতে না এসে এদের পেছন থেকে (সামনে থেকে করতে তো আবার লাজ পাবেন) স্যালুট করুন। আমি নিশ্চিত, এই মহামারিতে বৌ আক্রান্ত হলে আপনি তাকে বাবার বাড়ি পাঠালেও আপনি আক্রান্ত হলে বৌ আপনাকে ছেড়ে পালাবে না।

করোনা দূরে যাক। স্বামীরা মুক্তি পাক। বৌদের প্রাণ জুড়াক।

:: মোহাম্মদপুর, ঢাকা

পাঠক ফোরাম'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj