মৃত্যু পর জানা গেল করোনায় আক্রান্ত ডিএসসিসির কর্মকর্তা

রবিবার, ২৬ এপ্রিল ২০২০

কাগজ প্রতিবেদক : ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রধান উপদেষ্টা খন্দকার মিল্লাতুল ইসলাম মারা যাওয়ার পর জানা গেছে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন তিনি। গত বৃহস্পতিবার বিকালে বনানীর বাসায় হঠাৎ বুকে ব্যথা অনুভব করলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেয়া হয় তাকে। সেখানে ওই দিন রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। এরপর তার নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআর। নমুনা পরীক্ষায় তার শরীরে করোনার সংক্রমণ ধরা পড়ে।

গত শুক্রবার বাদ জুমা বনানী কবরস্থানে খন্দকার মিল্লাতকে দাফন করা হয় বলে জানান ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা উত্তম কুমার রায়। মৃত্যুর আগের দিনও তিনি নিয়মিত অফিস করেছেন। এমনকি ওই দিন সকালেও বাসা থেকে পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম মনিটরিং করেছেন।

পরিবারের বরাত দিয়ে উত্তম কুমার রায় বলেন, মিল্লাতুল ইসলামের মৃত্যুর পর ডিএসসিসির পরামর্শে তার নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআর-এ পাঠানো হয়েছিল। গতকাল শনিবার রিপোর্টে তার করোনা ভাইরাস পজিটিভ আসে। পরিবারের বরাত দিয়ে তিনি আরো জানান, অফিসের কার্যক্রম শেষে বৃহস্পতিবার মিল্লাত দুপুরের খাবার খেয়েছেন। এরপর বিকালে বুকে অসহ্য ব্যথা অনুভব করলে বুক চেপে ধরে তিনি ড্রয়িংরুমে আসেন।

শরীর প্রচণ্ড রকম ঘেমে গেলে সোফায় শুয়ে পড়েন। এরপর সন্ধ্যায় পরিবারের সদস্যরা তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পূর্ব থেকেই

তার হার্টের সমস্যা ছিল বলে জানা গেছে।

প্রসঙ্গত, ডিএসসিসির অতিরিক্ত প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা হিসেবে অবসরে যাওয়ার পর ওই বিভাগের প্রধান উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করছিলেন মিল্লাতুল ইসলাম। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬২ বছর।

দীর্ঘ চাকরি জীবনে সংস্থাটির সমাজকল্যাণ বিভাগ ও পরিবহন বিভাগের প্রধান হিসেবেও অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করেন তিনি। এরপর সংস্থাটির উপপ্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করেন। পরিশ্রমী ও কাজের প্রতি প্রচণ্ড রকম আগ্রহ থাকায় অবসরের পরও ডিএসসিসির মেয়র সাঈদ খোকন তাকে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রধান উপদেষ্টা হিসেবে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেন। ২ বছর ধরে তিনি এই দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। সম্প্রতি মেয়রের নেয়া ৫০ হাজার পরিবারের ঘরে খাবার পৌঁছে দেয়া কর্মসূচিতেও সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন মিল্লাত। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও এক ছেলে রেখে গেছেন।

খন্দকার মিল্লাতের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন মেয়র সাঈদ খোকন। এ সময় তিনি মরহুমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান। এছাড়া শোক জানায় ঢাকা ইউটিলিটি রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন (ডুরা)। সংগঠনের সভাপতি মশিউর রহমান খান ও সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন রুবেল এক শোক বার্তায় মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনার পাশাপাশি পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj