ফেনীতে ধর্ষণের শিকার মাদ্রাসা শিক্ষার্থীর আদালতে জবানবন্দি : বগুড়ায় কিশোরীকে ধর্ষণ, ধর্ষক গ্রেপ্তার

রবিবার, ২৬ এপ্রিল ২০২০

কাগজ ডেস্ক : ফেনীর সোনাগাজী উপজেলায় ডাকাতিকালে ধর্ষণের শিকার মাদ্রাসাছাত্রী আদালতে ২২ ধারা জবানবন্দি দিয়েছেন। বগুড়ার সোনাতলা উপজেলায় কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। নিচে এ সম্পর্কে আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

ফেনী : জেলার সোনাগাজী উপজেলায় ডাকাতিকালে ধর্ষণের শিকার মাদ্রাসাছাত্রী আদালতে ২২ ধারা জবানবন্দি দিয়েছেন। গতকাল শনিবার দুপুরে ফেনীর জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম কামরুল হাসানের আদালত জবানবন্দি দেন তিনি বলে জানিয়েছে পুলিশ। এর আগে সকালে ফেনী জেনারেল হাসপাতালে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়। গত শুক্রবার রাতে ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে অজ্ঞাত ৪ জনকে আসামি করে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলার এজাহার উদ্ধৃত করে সোনাগাজী মডেল থানার ওসি মঈন উদ্দিন আহমেদ জানান, গত ২৩ এপ্রিল মধ্য রাতে উপজেলার চরমজলিশপুর ইউনিয়নের বিষ্ণুপুর গ্রামে এক চা দোকানির ঘরে ডাকাতরা হানা দেয়। এ সময় ডাকাতরা ঘরের দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে হাত-পা বেঁধে অস্ত্রের মুখে পরিবারের সবাইকে জিম্মি করে। ডাকাতরা ঘরের আলমিরা ভেঙে নগদ ১৫ হাজার টাকা, একটি মোবাইল ফোনসহ প্রয়োজনীয় সামগ্রী লুট করে। এ সময় ঘরে স্বর্ণালঙ্কার না পেয়ে ডাকাতদের একজন গৃহকর্তার মাদ্রাসা পড়–য়া মেয়েকে পাশের কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় গৃহকর্তা বাধা দিতে চাইলে ডাকাতরা তাকে ও তার স্ত্রীকে মারধর করে। তিনি আরো জানান, আদালতে জবানবন্দি ও স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে ওই মাদ্রাসছাত্রীকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। মামলার আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ।

বগুড়া : জেলার সোনাতলা উপজেলার শ্যামপুর এলাকায় কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় গত শুক্রবার রাতে পুলিশ অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, ওই গ্রামের জনৈক ব্যক্তি একই উপজেলার জোড়গাছা ইউনিয়নের দক্ষিণ বয়রা গ্রামের মৃত টুনু মণ্ডলের ছেলে উজ্জ্বল হোসেনের সঙ্গে মরিচের ব্যবসা করে আসছিলেন। দীর্ঘদিন ধরে একসঙ্গে ব্যবসা করায় দুই পরিবারের মধ্যে আত্মীয়তার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। উজ্জ্বল হোসেনকে তার ব্যবসায়িক পার্টনারের কিশোরী মেয়ে চাচা বলে ডাকে এবং বাবার মতোই তাকে শ্রদ্ধা করে।

একপর্যায়ে গত মঙ্গলবার ওই কিশোরী তার নানার বাড়িতে যাওয়ার পথে উজ্জ্বল হোসেনের সঙ্গে রাস্তায় দেখা হলে সে মেয়েটিকে সোনাতলা থানাধীন দক্ষিণ বয়ড়া গ্রামের জনৈক জাহিদুল ইসলামের বাড়িতে ফুসলিয়ে নিয়ে যায়। ওই বাড়িতে লোকজন না থাকার সুযোগে ফাঁকা বাড়িতে নিয়ে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। ধর্ষণের শিকার মেয়েটি বাড়িতে ফিরে তার পরিবারকে জানায়। এ ঘটনায় তার বাবা বাদী হয়ে সোনাতলা থানায় মামলা দায়ের করেন। শুক্রবার রাতে পুলিশ ধর্ষক উজ্জ্বলকে গ্রেপ্তার করে।

পুলিশ জানায়, কিশোরীকে ধর্ষণের ঘটনায় মামলা দায়ের করেন মেয়েটির বাবা। ধর্ষককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj